kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

দুপুর ১২টায় প্রথম ভোট

বিশ্বজিৎ পাল বাবু, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু, নবীনগর   

১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দুপুর ১২টায় প্রথম ভোট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পৈরতলা দক্ষিণ কেন্দ্রে নির্বাচনী দায়িত্বপ্রাপ্তদের ফোন জব্দ করেন প্রিসাইডিং অফিসার। ছবি : কালের কণ্ঠ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছয় উপজেলায় গতকাল শান্তিপূর্ণভাবেই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন হলেও ভোটার উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজ কেন্দ্রে ভোট শুরু হওয়ার প্রায় এক ঘণ্টা পর প্রথম ভোটার আসেন। ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার ক্ষমা রানী কর জানান, কেন্দ্রের এক হাজার ৯২৮ ভোটের মধ্যে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত মাত্র ৬৫টি ভোট পড়েছে। আনন্দময়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ৪ নম্বর বুথে দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে প্রথম ভোট পড়ে। তিন হাজার ৩০৪ ভোটের মধ্যে এ কেন্দ্রে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মাত্র ৮১টি ভোট পড়ে বলে জানান প্রিসাইডিং অফিসার মোহাম্মদ সাহেদ আলী।

সকাল ১০টায় সদর উপজেলার রামকানাই হাই একাডেমির প্রিসাইডিং অফিসার নারায়ণ চন্দ্র সাহা জানান, এখানে তিন হাজার ৩০৫ ভোটের মধ্যে মাত্র ১৮২টি ভোট পড়েছে। হুমায়ুন কবির পৌর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার জানান, দুই হাজার ৯৯৯ ভোটের মধ্যে এ কেন্দ্রে বেলা সোয়া ১০টা নাগাদ মাত্র ২৫০টি ভোট পড়েছে।

নবীনগর উপজেলায় গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার শ্যামগ্রাম মোহিনী কিশোর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল ১০টার মধ্যে মাত্র ৪৬টি ভোট পড়েছে। কেন্দ্রটিতে ভোটারের সংখ্যা দুই হাজার ৭৭৩টি। একইভাবে ১০টা ২৫ মিনিটে উপজেলার কুলাসিন, ১০টা ৪৫ মিনিটে থোল্লাকান্দি, ১১টা ১৫ মিনিটে বড়িকান্দি, ১১টা ৩০ মিনিটে নূরজাহানপুর, ১১টা ৪০ মিনিটে মুক্তারামপুর, ১১টা ৫৫ মিনিটে সলিমগঞ্জ, ১২টা ৪৫ মিনিটে রসুল্লাবাদ কেন্দ্রসহ উপজেলার ১৫টি ভোটকেন্দ্র ঘুরে ভোটের চিত্র প্রায় একই রকম পাওয়া যায়। এর মধ্যে সলিমগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে জানা যায়, ওই কেন্দ্রের দুই হাজার ১০৭ জন ভোটারের মধ্যে মাত্র ১৫৩ জন ভোট দিয়েছেন। একই রকম অবস্থা ছিল জেলার নাসিরনগর, সরাইল, আশুগঞ্জ ও আখাউড়া উপজেলায়ও।

সদর উপজেলার পৈরতলা দক্ষিণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারের কক্ষে গিয়ে দেখা যায়, টেবিলের ওপর ২০টি মুঠোফোন রাখা। প্রিসাইডিং অফিসার সৈয়দ হারিছুর বারী জানান, নিয়ম অনুসারে ভোট দিতে আসা সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে এসব মুঠোফোন রেখে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রটির বাইরেও বেশ শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রয়েছে।

পৈরতলা উত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে কথা হয় ভোটার জিল্লুর মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, ভোটার উপস্থিতি কম হলেও যে যার মতো করে ভোট দিতে পারছে। মেড্ডা পূর্ব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের নৌকার পোলিং এজেন্ট বাসুক কর্মকার ও আনারস প্রতীকের এজেন্ট শামসুল আলম জানান, সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন হচ্ছে। তাই নির্বাচন নিয়ে কারো কোনো ধরনের অভিযোগ নেই।

সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ও ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী ফিরোজুর রহমান ওলিও। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ঘাটুরা হাফিজিয়া ও ফোরকানিয়া মাদরাসা কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার শহীদুল হোসেন বলেন, ‘স্বাধীনতার পর এত সুন্দর ভোট দেখিনি। আগের রাতে কিছু সময় পর ম্যাজিস্ট্রেট এসে দেখে গেছেন সব কিছু ঠিকঠাক আছে কি না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা