kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

মাগুরায় শঙ্কায় এইচএসসি পরীক্ষার্থীর জীবন

নড়াইলে সংঘর্ষে নিহত ১ কেশবপুরে ভাঙচুর

মাগুরা, নড়াইল ও কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

৩০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাগুরায় শঙ্কায় এইচএসসি পরীক্ষার্থীর জীবন

নির্বাচনী সহিংসতার কোপানলে পড়ে মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার নাকোর গ্রামের এইচএসসি পরীক্ষার্থী নাইমুজ্জামান হৃদয়ের জীবন অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়ে বর্তমানে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে সে। হৃদয়ের স্বাভাবিক জীবনে ফেরা নিয়ে সংশয়ে তার পরিবার। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত ২৫ মার্চ দুপুরে স্থানীয় নাকোল বাজারে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপের হামলার শিকার হয় সে।

হৃদয়ের বাবা নাকোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মির্জা মিজানুর রহমান নওরোজ গতকাল শুক্রবার জানান, সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়ার সমর্থকদের সঙ্গে গত ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত শ্রীপুরের উপজেলা নির্বাচন নিয়ে তাঁর দ্বন্দ্ব হয়। এ উপজেলা নির্বাচনে শাহজাহান মিয়া আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাহামুদুল গনি শাহীনের পক্ষ নিয়েছিলেন। অন্যদিকে মিজানুর রহমান নেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী পংকজ সাহার পক্ষ। নির্বাচনী উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে শাহজাহান ও তাঁর লোকজন পরদিন ২৫ মার্চ ধারালো অস্ত্র নিয়ে নাকোল বাজারে মহড়া দেয়। এ সময় মিজানুর রহমানের ছেলে হৃদয়কে বাজারে পেয়ে তাঁর মাথা ও শরীরের বিভিন্ন অংশ কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষের লোকজন। আহত হৃদয়কে প্রথমে মাগুরা সদর হাসপাতালে, পরে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ বিষয়ে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনার পর পরই পুলিশ হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে মিন্টু শিকদার নামের একজনকে আটক করেছে।’

যশোরের কেশবপুরের সুফলাকাটি ইউনিয়নের কলাগাছি বাজারে গত বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আমির হোসেন ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিকুল ইসলামের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্য থেকে তিনজনকে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় নৌকা প্রতীকের অফিস ভাঙচুর হয়েছে। খবর পেয়ে কেশবপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। কেশবপুরে আগামী ৩১ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার ওসি শাহীন বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে এ ব্যাপারে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনিব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

নড়াইল সদরের মাইজপাড়া ইউনিয়নের তারাশী গ্রামে ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে গোলাম সিকদার (৬০) নামের একজন নিহত হয়েছেন। গোলাম তারাশি গ্রামের মাজেদ সিকদারের ছেলে। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নৌকা প্রতীকের সমর্থক বলে জানা গেছে। পুলিশ এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতজনকে আটক করেছে।

এদিকে সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অনিয়ম, দুর্নীতি ও নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টায় সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা শেখ আতাউর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নির্বাচন চলাকালে ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী সাঈদ মেহেদী তাঁর এজেন্টদের বুথ থেকে বের করে দিয়ে ভোট লুটপাট করেছে। নির্বাচনের পরে তাঁর কর্মী-সমর্থকরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও দলীয় অফিস ভাঙচুর করেছে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা