kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

প্রচারণায় সাদিক, প্রতীক নেননি শাহিদ

নীলফামারী প্রতিনিধি   

২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদিক হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল। ফলে আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহিদ মাহমুদকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। শেষ পর্যন্ত সাদিকের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন উচ্চ আদালত। প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রচারণায়ও নেমে পড়েছেন সাদিক। অথচ এখনো প্রতীক বরাদ্দ নেননি শাহিদ। ঘটনাটি নীলফামারী সদরের। 

জানা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ছিল। সেদিন চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। পরদিন ১২ ফেব্রুয়ারি ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদিকের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আর ১৮ ফেব্রুয়ারি ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মনোনীত প্রার্থী ফয়েজ আহমেদ তাঁর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহিদকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। ২০ ফেব্রুয়ারি এসংক্রান্ত গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।     

অন্যদিকে প্রার্থিতা ফিরে পেতে জেলা প্রশাসকের কাছে আপিল করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদিক। ১৪ ফেব্রুয়ারি শুনানি শেষে রিটার্নিং কর্মকর্তার দেওয়া রায় বহাল রাখেন জেলা প্রশাসক। পরে ২৪ ফেব্রুয়ারি উচ্চ আদালতে আপিল করেন সাদিক। একই দিন দুপুরে সাদিকের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দেন আদালত।

শাহিদ বলেন, ‘মহামান্য আদালত যে রায় দেবেন তা আমরা মানব। নির্বাচন করতে হলে করব।’ 

 

মন্তব্য