kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

যেমন হবে জান্নাতের প্রাসাদ

মুফতি মুহাম্মদ মর্তুজা   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০৮:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যেমন হবে জান্নাতের প্রাসাদ

পবিত্র কোরআনের বহু আয়াতে মহান আল্লাহ তাঁর ঈমানদার বান্দাদের জান্নাত দানের ঘোষণা দিয়েছেন, যেখানে দুঃখ-কষ্ট বলতে কিছু থাকবে না। যেখানকার নিয়ামতগুলো কল্পনার চেয়েও কোটি গুণ সুন্দর। যা হবে মুমিনের স্থায়ী সুখের ঠিকানা। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ মুমিন পুরুষ ও মুমিন নারীদের জান্নাতের ওয়াদা দিয়েছেন, যার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হবে নহর, তাতে তারা চিরদিন থাকবে এবং (ওয়াদা দিচ্ছেন) স্থায়ী জান্নাতে পবিত্র বাসগৃহের। আর আল্লাহর পক্ষ থেকে সন্তুষ্টি সবচেয়ে বড়। এটাই মহাসফলতা।’ (সুরা : তাওবা, আয়াত : ৭২)

সুবহানাল্লাহ! উল্লিখিত আয়াতে মহান আল্লাহ তাঁর মুমিন বান্দাদের জান্নাতে বাসগৃহ দানের কথা উল্লেখ করেছেন। সেই বাসগৃহগুলো কিসের তৈরি হবে, তা জানতে মুমিনের হৃদয় ব্যাকুল হওয়াই স্বাভাবিক। সেই ব্যাকুলতা থেকেই হয়তো আনাস (রা.) প্রিয় নবী (সা.)-কে জান্নাতের বাসগৃহ সম্পর্কে প্রশ্ন করেছিলেন। প্রিয় নবী (সা.)-ও অত্যন্ত সাবলীল ভাষায় তাঁর প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। যেখানে তিনি জান্নাতের প্রাসাদে ব্যবহৃত ইট, সিমেন্ট, কঙ্কর ইত্যাদির বর্ণনা দিয়েছেন। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমরা বললাম, হে আল্লাহর রাসুল, আমাদের কী হলো যে আমরা আপনার কাছে থাকা অবস্থায় আমাদের অন্তর খুবই নরম হয়ে যায়, আমরা দুনিয়ার প্রতি উদাসীন হয়ে যাই এবং নিজেদের পরকালবাসীদের অন্তর্ভুক্ত মনে করতে থাকি। তারপর আপনার কাছ থেকে সরে গিয়ে পরিবার-পরিজনের কাছে ফিরে গিয়ে পার্থিব কাজে জড়িয়ে পড়ি এবং সন্তানাদির সুগন্ধি পেতে থাকি, তখন আমাদের অবস্থা সম্পূর্ণ উল্টো হয়ে যায়। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা যে অবস্থায় আমার কাছ থেকে বেরিয়ে যাও, সব সময় যদি সেই অবস্থায় থাকতে, তাহলে ফেরেশতারা তোমাদের বাড়িতে গিয়ে তোমাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করত। আর তোমরা অপরাধ না করলে আল্লাহ নতুন প্রাণী সৃষ্টি করতেন, যাতে তারা অপরাধ করে আর তিনি তাদের ক্ষমা করেন।’ আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি প্রশ্ন করলাম, হে আল্লাহর রাসুল, কী দিয়ে প্রাণী সৃষ্টি করা হয়েছে? তিনি বলেন, ‘পানি দিয়ে।’ আমি আবার জিজ্ঞেস করলাম, কী দিয়ে জান্নাত তৈরি করা হয়েছে? তিনি বলেন, ‘সোনা-রুপার ইট দিয়ে। একটি রুপার ইট, তারপর একটি সোনার ইট, এভাবে গাঁথা হয়েছে। এর গাঁথুনির উপকরণ (চুন-সুরকি-সিমেন্ট) সুগন্ধি মৃগনাভি এবং কঙ্করসমূহ মণি-মুক্তার ও মাটি হলো জাফরান। জান্নাতে প্রবেশকারী লোক অত্যন্ত সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যে থাকবে, কোনো দুঃখ-কষ্ট ও অভাব-অনটন তাকে স্পর্শ করবে না। সে অনন্তকাল এতে অবস্থান করবে আর মৃত্যুবরণ করবে না। না তার পরনের পোশাক পুরনো হবে আর না তার যৌবনকাল শেষ হবে (অনন্তযৌবনা হবে)।’

তিনি পুনরায় বলেন, ‘তিন ব্যক্তির দোয়া ফিরিয়ে দেওয়া হয় না; ন্যায়পরায়ণ শাসকের দোয়া, রোজাদারের ইফতারের সময়কালীন দোয়া এবং মজলুমের দোয়া। আল্লাহ তাআলা একে (মজলুমের দোয়া) মেঘমালার ওপর তুলে নেন, তার জন্য আকাশের দরজাসমূহ উন্মুক্ত হয়ে যায় এবং আল্লাহ তাআলা বলেন, আমার ইজ্জত ও সম্মানের শপথ! কিছু দেরিতে হলেও আমি তোমাকে সাহায্য করব।’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৫২৬)। এ ছাড়া বিভিন্ন হাদিসে জান্নাতিদের মণি-মুক্তার তাঁবু দেওয়ার ঘোষণাও এসেছে। মহান আল্লাহ সবাইকে জান্নাতের সুমহান মর্যাদা লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।



সাতদিনের সেরা