kalerkantho

ধারাবাহিক তাফসির

পুলসিরাত কী ও কেন

গ্রন্থনা : মুফতি কাসেম শরীফ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১১:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুলসিরাত কী ও কেন

৭১. তোমাদের প্রত্যেকে তা (পুলসিরাত) অতিক্রম করবে। এটা তোমার রবের অনিবার্য সিদ্ধান্ত। [সুরা : মারিয়াম, আয়াত : ৭১ (প্রথম পর্ব)]

তাফসির : আগের আয়াতে জাহান্নামের অধিবাসী পাপীদের সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছিল। ইসলামী আকিদা ও বিশ্বাস অনুসারে, জাহান্নামের ওপর একটি পুল নির্মিত থাকবে। এটি অতিক্রম করে জান্নাতে যেতে হবে। আলোচ্য আয়াতে সেই পুল সম্পর্কে বর্ণনা করা হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, প্রত্যেক ব্যক্তি কিয়ামতের দিন পুলসিরাত অতিক্রম করবে। জাহান্নামবাসী পুলসিরাত অতিক্রম করার সময় নিচে পড়ে যাবে, যেখানে জাহান্নাম রয়েছে। আর জান্নাতবাসীরা দ্রুত তা হয়ে জান্নাতে গমন করবে।

‘পুল’ শব্দটি ফারসি। এর অর্থ সেতু। ‘সিরাত’ আরবি শব্দ। এর অর্থ রাস্তা বা পথ। তবে ইসলামী পরিভাষায় এর অর্থ পারলৌকিক সেতু বা পুল। সুদূর আরব থেকে পারস্য হয়ে উপমহাদেশে ইসলাম আসায় বহু আরবি ও ফারসি শব্দ বাংলা ভাষায় জায়গা করে নিয়েছে। আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেখা যায়, মূল আরবি ধর্মীয় পরিভাষার পরিবর্তে মিশ্র পরিভাষার প্রচলন ঘটেছে। যেমন—নামাজ, শবেবরাত, শবেকদর, পুলসিরাত ইত্যাদি। পুলসিরাত শব্দের অর্থ যে রাস্তা পুলের মতো বা পথের সেতু। হাশরের ময়দানে জান্নাত ও জাহান্নাম হাজির করা হবে। জাহান্নামের ওপর স্থাপন করা হবে পুলসিরাত। এর শেষ প্রান্তে থাকবে জান্নাত। এটি হাশরের ময়দান থেকে জান্নাত পর্যন্ত বিস্তৃত থাকবে। অন্ধকারাচ্ছন্ন এই ভয়াবহ পথ প্রতিটি মানুষকে অতিক্রম করতে হবে। কারণ সেটাই হবে জান্নাতে পৌঁছানোর একমাত্র পথ।

পুলসিরাতের সংজ্ঞায় ইমাম গাজালি (রহ.) লিখেছেন, ‘পুলসিরাত হলো জাহান্নামের ওপর প্রলম্বিত সেতু, যা তলোয়ারের চেয়ে ধারালো হবে এবং চুলের চেয়েও সূক্ষ্ম হবে। কাফির ও পাপাচারীরা সেখানে পদস্খলিত হয়ে নিচে পতিত হবে। সেখানে জাহান্নাম অবস্থিত থাকবে। আর মহান আল্লাহ ঈমানদারদের পা সুদৃঢ় রাখবেন। ফলে তারা চিরস্থায়ী নিবাসে পৌঁছে যাবে।’ (কাওয়াইদুল আকায়িদ, ইমাম গাজালি : ১/৬৬)

ইমাম আশআরি (রহ.) বলেন, ‘পুলসিরাত হলো জাহান্নামের ওপর স্থাপিত দীর্ঘ সেতু। মানুষ তার আমল অনুযায়ী সেখান থেকে পার হবে। চলার গতির ক্ষেত্রেও মানুষের আমলভেদে তারতম্য হবে।’ (রিসালাতুন ইলা আহলিস সাগার : ১/২৮৬)

মন্তব্য