kalerkantho


শাহজাহানপুর রেলওয়ে কলোনিতে পরিত্যক্ত পানির পাম্পে পড়ে নিহত শিশু জিয়াদ

আদালত অবমাননার দায় থেকে মুক্ত রেলওয়ে-ফায়ার সার্ভিসের ডিজি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ আগস্ট, ২০১৮ ০১:২৩



আদালত অবমাননার দায় থেকে মুক্ত রেলওয়ে-ফায়ার সার্ভিসের ডিজি

জিয়াদ

শাহজাহানপুর রেলওয়ে কলোনিতে পরিত্যক্ত পানির পাম্পে পড়ে নিহত শিশু জিয়াদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দেওয়ায় আদালত অবমাননার অভিযোগ থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ে এবং ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালককে অব্যাহতি দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। গতকাল আদালতে হাজির হয়ে রেলওয়ের ডিজি আমজাদ নিঃশর্ত ক্ষমা চান ও অভিযোগ থেকে অব্যাহতির আবেদন করেন। আদালত তাকে এবং ফায়ার সার্ভিসের ডিজিকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেন। এ সময় রিট আবেদনকারী আইনজীবী ব্যারিষ্টার আবদুল হালিম এবং নিহত শিশু জিয়াদের মা খোদেজা বেগম ও পিতা নাসিরউদ্দিন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। জিয়াদের মা-বাবা আদালতকে জানান, তারা টাকা পেয়েছেন।

হাইকোর্ট ২০১৬ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি এক রায়ে ক্ষতিপূরণ জিয়াদের পরিবারকে ২০ লাখ টাকা দিতে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক এবং ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ও পরিচালককে (অপারেশন ও রক্ষণাবেক্ষণ) নির্দেশ দেন। রায়ে রেলওয়েকে ১০ লাখ এবং ফায়ার সার্ভিসকে ১০ লাখ টাকা দিতে বলা হয়। রায়ের কপি পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে এ টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়। হাইকোর্টের রায় কার্যকর না করায় রিট আবেদনকারীর করা আদালত অবমাননার মামলায় হাইকোর্ট রেলওয়ের ডিজিকে তলব করেন। এ আদেশে গতকাল হাজির হয়ে টাকা দেওয়ার তথ্য জানান এবং আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা চান। 

২০১৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর বিকেলে বন্ধুদের সঙ্গে খেলার সময় রেলওয়ে মাঠের পরিত্যক্ত পানির পাম্পের পাইপে পড়ে যায় জিয়াদ। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা জিয়াদের মরদেহ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়। এক পর্যায়ে উদ্ধার অভিযান স্থগিত করে। এরপর কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রায় ২৩ ঘণ্টা পর ২৭ ডিসেম্বর বেলা ৩টার দিকে জিয়াদের মরদেহ উদ্ধার করে। এ ছাড়া জিয়াদের পাইপ লাইনে পড়া দিয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকসহ দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা সন্দেহ প্রকাশ করেন। জিয়াদের পিতাসহ বেশ কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ। এসব বিষয় নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়।



মন্তব্য