kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

সীতাকুণ্ডে পাটকল শ্রমিকদের রাজপথ-রেলপথ অবরোধে দুর্ভোগ

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০১৯ ১৩:০৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সীতাকুণ্ডে পাটকল শ্রমিকদের রাজপথ-রেলপথ অবরোধে দুর্ভোগ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে পাটকল শ্রমিকদের মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন, বকেয়া পরিশোধসহ ৯ দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার ৪টি রাষ্ট্রায়াত্ত পাটকলের কয়েক হাজার শ্রমিক নিজ নিজ কারখানাসংলগ্ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও রেললাইনে গিয়ে এই কর্মসূচি পালন করেন। এতে বাস ও ট্রেন চলাচল বন্ধ হওয়ায় জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ বাধা দিতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সারা দেশে পাটকল শ্রমিকদের ৯ দফা দাবিতে চলমান আন্দোলন কর্মসূচি পালনের লক্ষ্যে উপজেলার গালফ্রা হাবীব, গুল আহম্মদ, আর আর জুট মিলস ও হাফিজ জুট মিলসের শ্রমিকরা মঙ্গলবার সকাল ৮টার পর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও রেলপথ অবরোধ করেন। গালফ্রা হাবীবের শ্রমিকরা সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার বাড়বকুণ্ড মহাসড়ক অবরোধকালে সেখানে পূর্ব থেকে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা বাধা দিলে দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়। পুলিশ শ্রমিকদের ব্যানার-ফেস্টুন কেড়ে নিলে শ্রমিকরাও চড়াও হয়। পরে সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. দেলওয়ার হোসেন অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে গিয়ে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে আসেন এবং শ্রমিকদের সাথে আলাপ-আলোচনাসাপেক্ষে এ ঘণ্টা পর রাজপথ থেকে সরিয়ে দেন। একইভাবে প্রায় ১০টা পর্যন্ত কর্মসূচি পালন করেন অন্যান্য ৩টি জুট মিলের শ্রমিকরাও। পুলিশ শ্রমিক নেতাদের সাথে আলাপ শেষে ১০টার পর তাদেরকে রাজপথ-রেলপথ থেকে সরিয়ে কারখানায় ফেরত পাঠান। তবে শ্রমিকরা কারখানায় তাদের পূর্বঘোষিত শ্রমিক ধর্মঘট পালন করছেন।

গালফ্রা হাবীব জুট মিলের সিবিএ সভাপতি মো. শরীয়ত উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক জসীম উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, রাজপথ-রেলপথ অবরোধ ও ৭২ ঘণ্টার শ্রমিক ধর্মঘট ডেকেছেন কেন্দ্রীয় শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। তাদের নির্দেশনা অনুসারে আজ থেকে শ্রমিক ধর্মঘট চলছে। তারা কারখানায় কোনো কাজ করছেন না। দাবি না মানলে এই কর্মসূচি ৩ দিন পর্যন্ত অব্যহত থাকবে। একই অবস্থা সব পাটকলে।

সীতাকুণ্ড রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মতিলাল বড়ুয়া বলেন, শ্রমিকদের রেলপথ অবরোধের কারণে কিছুক্ষণ ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। তবে অল্প সময় পরেই রেলপথ অবরোধ তুলে নিলে আবার ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সীতাকুণ্ড থানার ওসি মো. দেলওয়ার হোসেন বলেন, শ্রমিকরা সকাল সাড়ে ৮টা থেকে রাজপথ-রেলপথ অবরোধ করে। বাড়বকুণ্ডে প্রায় এক ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ রাখে তারা। এই অবরোধ তুলতে চাইলে পুলিশ সদস্যদের সাথে তাদের বাকবিতণ্ডা ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে আমি সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করলে এক ঘণ্টা পর তারা মহাসড়ক থেকে কারখানায় ফিরে যান। তিনি আরো বলেন, শ্রমিকদের এই কর্মসূচি প্রত্যাহারে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে সরকারের পক্ষ থেকে আলাপ-আলোচনা চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা