kalerkantho

রবিবার । ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৭ রবিউস সানি                    

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

দক্ষিণ চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে উপজেলায় ভোট কাল

ভোট জালিয়াতির শঙ্কায় বিদ্রোহী প্রার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ও চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০৩:০২ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দক্ষিণ চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে উপজেলায় ভোট কাল

দেশের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আগামীকাল রবিবার দক্ষিণ চট্টগ্রামের পাঁচ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলাগুলো হচ্ছে পটিয়া, চন্দনাইশ, বোয়ালখালী, বাঁশখালী ও লোহাগাড়া। একই দিন আনোয়ারা উপজেলায় নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোট হচ্ছে না। একই দিন কক্সবাজারের সব উপজেলা পরিষদেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

জানা গেছে, দক্ষিণ চট্টগ্রামের পাঁচ উপজেলায় ১৬ জন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও ৩১ জন ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ভোটযুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনীর হোসাইন খান জানান, চট্টগ্রামের পাঁচ উপজেলায় ভোট গ্রহণের জন্য সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। 

বোয়ালখালীতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলমের পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আবদুল কাদের সুজন। পটিয়ায় তিন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী। 

বাঁশখালীতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মরহুম সোলতানুল কবির চৌধুরীর বড় ছেলে চৌধুরী মোহাম্মদ গালিব সাদলী। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মৌলভী নুর হোসেন। লোহাগাড়ায় তিন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরী, সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক চৌধুরী ও এস এম ছলিম উদ্দিন খোকন চৌধুরী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চন্দনাইশে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা এ কে এম নাজিম উদ্দীন ও পর পর দুইবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী।

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, বাঁশখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ২৮ ভোটকেন্দ্রে ভোট ডাকাতি, জালিয়াতি ও দাঙ্গা-হাঙ্গামার অভিযোগ করেছেন বিদ্রোহী আওয়ামী লীগ প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম (আনারস)। তিনি জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এসংক্রান্ত অভিযোগে বলেন, বাঁশখালীতে ৩০ জন প্রিসাইডিং অফিসার বাইরের উপজেলা থেকে নিয়োগ করা হয়েছে। একজন সংসদ সদস্যের ইশারায় তা করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। 

চকরিয়া (কক্সবাজার) : কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন, নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন ও পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয়জনসহ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১২ জন প্রার্থী। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থী নৌকা প্রতীকের আবুল কাশেম ও বিদ্রোহী প্রার্থী দোয়াত-কলম প্রতীকের জাহাঙ্গীর আলম ও আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকের এস এম গিয়াস উদ্দিন। বিদ্রোহী প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন, ‘ভোটের আগের রাতে নির্দিষ্ট ২০টি কেন্দ্র বাছাই করে নৌকা প্রতীকে সিল দেওয়ার জন্য দলীয় প্রার্থী সব কিছু ঠিকঠাক করে রেখেছেন।’ 

পটিয়া (চট্টগ্রাম) : পটিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা হলেন নৌকা প্রতীকের মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী আফরোজা বেগম জলি (আনারস) ও মো. সাজ্জাদ হোসেন  (দোয়াত-কলম) এবং ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ডা. তিমির বরণ চৌধুরী (উড়োজাহাজ), ছৈয়দ এয়ার মুহাম্মদ পেয়ারু (বই) ও মো. সাহাবুদ্দিন চৌধুরী (তালা)। পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার হাবিবুল হাসান জানান, পটিয়ায় নির্বাচনে সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করছে। কোনো প্রার্থী এখন পর্যন্ত অন্য প্রার্থীর প্রচারণায় বাধা দেওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা