kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার : সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ১৫:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার : সিইসি

ফাইল ছবি

বাঘাইছড়িতে সংগঠিত সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাকে নির্দয় ও দুঃখজনক ঘটনা উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, ভোটের অনিয়মের অভিযোগে মানুষ হত্যা করা, এটা কোনো প্রতিবাদ হতে পারে না। এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তা তদন্ত করে দেখার জন্য পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই হামলার ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সরকার।

তবে, এই ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তা এখনো চিহ্নিত করা যায়নি বলে জানান প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে সন্ত্রাসী হামলায় আহতদের দেখতে আজ মঙ্গলবার চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) যান সিইসি। সেখানে চিকিৎসাধীন আহতদের পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। 

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, পাবর্ত্য চট্টগ্রামে সোমবার সুষ্ঠু ভোট সম্পন্ন হয়েছে। কেউ কেউ ভোটের ব্যাপারে অভিযোগ করলেও অনিয়ম প্রমাণিত হয়নি।

পার্বত্য এলাকায় ভোটের সময় সতর্কতার বিষয়ে কোনো গাফিলতি ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সর্বোচ্চ সতর্ক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। নির্বাচন শেষে ফেরার পথে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার মোতায়েন ছিল। বিজিবির গাড়ি একটু সামনে এগিয়ে যাওয়ার পর সন্ত্রাসীরা সুযোগ বুঝে পিছন দিক থেকে হামলা চালিয়েছে। এতে বেসামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুলিশ ও আনসার সদস্যরাও হতাহত হয়েছেন। যে এলাকায় আক্রমণ হয়েছে সেখানে রাস্তা সরু হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে বিজিবির গাড়ি ফিরে আসতে পারেনি। বিজিবি সদস্যরা ফিরে আসার আগেই হতাহতের ঘটনা ঘটিয়ে সন্ত্রসীরা পালিয়ে যায়।

সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে নুরুল হুদা বলেন, এই ঘটনায় হতাহতদের পরিবার ও স্বজনদের পাশে থাকবে নির্বাচন কমিশন।

এদিকে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল থেকে আজ মঙ্গলবার সকালে গুরুতর আহত সাতজনকে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

চিকিৎসকরা জানান, চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১০ জনের মধ্যে তিনজনকে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। সকলেই এখন শংকামুক্ত।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন শেষে ফেরার পথে নির্বাচনকর্মীদের ওপর সশস্ত্র হামলা চালায়  দুষ্কৃতকারীরা। এতে ঘটনাস্থলেই শিক্ষক মো. আমির হোসেন, ভিডিপি সদস্য আল আমিন, বিলকিস বেগম, মিহির কান্তি দত্ত ও জাহানারা বেগম এবং পথচারী মন্টু চাকমা নিহত হন। সন্ধ্যায় বাঘাইছড়ি থেকে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান আহত আবু তৈয়ব আলী। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা