kalerkantho

রবিবার। ১৮ আগস্ট ২০১৯। ৩ ভাদ্র ১৪২৬। ১৬ জিলহজ ১৪৪০

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

উখিয়া-টেকনাফে সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা নিবন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০১:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উখিয়া-টেকনাফে সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা নিবন্ধন

উখিয়া-টেকনাফে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু নোমান মোহাম্মদ জাকের হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে অভিযোগ উঠেছে, এলাকার কতিপয় অসাধু ব্যক্তি সরকারি-বেসরকারি ত্রাণের লোভে নিজেদের রোহিঙ্গা পরিচয়ে নিবন্ধন করেছে। এ রকম একটি ঘটনার ব্যাপারে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করা করেছে।

পালংখালী ইউনিয়নের মুছারখোলা গ্রামের আবদুল গফুরের তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী কোহিনুর আক্তার ইউএনওকে লিখিত অভিযোগে জানান, তাঁর স্বামী আবদুল গফুর দীর্ঘদিন যাবৎ মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছিলেন। গত দেড় মাস আগে দেশে ফিরে প্রথম স্ত্রী কোহিনুরকে তালাক দিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন। এরপর আবদুল গফুর ছলেমা খাতুন (৩০) নামের আরেক নারীকে বিয়ে করেন।

কোহিনুর অভিযোগ করে আরো জানান, তাঁর কথিত স্বামী আবদুল গফুর সরকারি-বেসরকারি ত্রাণসামগ্রীর লোভে তাঁর সন্তান জসিম উদ্দিন (৮), সোমাইয়া জেসমিন রিয়া (৭), তানভির হাসান শাহীন (৫) ও আবদুল গফুরের দ্বিতীয় স্ত্রী ছলেমা খাতুনকে (৩০) মিয়ানমারের চৌপ্রাঙ্গ গ্রামের স্থানীয় রোহিঙ্গা বাসিন্দা দেখিয়ে বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করে ত্রাণসামগ্রী ভোগ করছে।

এ ব্যাপারে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিকারুজ্জামান বলেন, স্থানীয় চারজন রোহিঙ্গা পরিচয়ে নিবন্ধন হওয়ার লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য উখিয়া থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে উখিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল খায়ের জানান, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা