kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

[ খে লা র দু নি য়া ]

ক্রিকেটে এই নিয়মগুলো কিভাবে এলো

ক্রিকেট খেলায় নিয়ম-কানুনের কমতি নেই। পাকা হিসাব-নিকাশ করা আছে ছোটখাটো ব্যাপারগুলোতেও। সেগুলোর কয়েকটির পেছনে আছে মজার সব ঘটনা। তেমনি কয়েকটির কথা লিখেছেন নাবীল অনুসূর্য

২২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রিকেটে এই নিয়মগুলো কিভাবে এলো

‘হাউজ্জ্যাট’ বলে আম্পায়ারের কাছে প্রায়ই আবেদন করতে দেখা যায় বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানকে

পিচ কেন ২২ গজ?

সতেরো শতকের কথা। তখন সাধারণত দূরত্ব মাপা হতো দড়ি দিয়ে। কিন্তু তাতে মাপে গরমিলের আশঙ্কা থেকে যেত। সেটা দূর করতে ব্রিটিশ গণিতবিদ এডমন্ড গান্টার শিকলের প্রচলন করেন একটি সুনির্দিষ্ট মাপের।

বিজ্ঞাপন

২২ গজ। ২০ মিটারের মতো। ব্রিটিশদের হাত ধরে তাদের পুরো সাম্রাজ্যেই ভূমি পরিমাপে এই গান্টারের শিকল এককের প্রচলন হয়। নিজেদের সাধের ক্রিকেটেও এর ব্যবহার করে তারা। ক্রিকেট পিচের দৈর্ঘ্য তাই এক শিকল। মানে ২২ গজ।

 

উইকেট নামের দরজা

শুরুর দিকে ক্রিকেটে তিনটি নয়, পিচের একেক মাথায় দুটি করে স্টাম্প থাকত। সেগুলোর ওপরে বেলস বসিয়ে ছোট্ট দরজার মতো বানানো হতো। সেখান থেকেই এসেছে এর নাম। বড় বড় ফটকে মানুষ হাঁটাচলার জন্য যে ছোট দরজা থাকে, তাকে বলে উইকেট। ক্রিকেট পিচের এই উইকেট দরজার মাঝে তৃতীয় স্টাম্পের প্রচলন হয় ১৭৭৫ সালে। তখনকার দুই মহাতারকা লাম্পি স্টিভেন্স ও জন স্মলের বদৌলতে। এক ম্যাচে লাম্পির বিপক্ষে ব্যাট করছিলেন স্মল। পর পর তিন বলে পরাস্ত হন স্মল। তিনবারই বল যায় দুই স্টাম্পের মাঝ দিয়ে!

 

আউট চাই

ক্রিকেটের নিয়ম-কানুন ঠিক করে দেয় মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি। তারা এই খেলার সম্ভাব্য সব কিছুর জন্য নিয়ম-কানুন বেঁধে দিয়েছে। এমনকি আউটের জন্য আম্পায়ারের কাছে কী বলে আবেদন করতে হবে সেটাও। বলতে হবে ‘হাউ’স দ্যাট?’ সেটাই বলতে বলতে সংক্ষেপে হয়ে গেছে ‘হাউজ্জ্যাট’। অবশ্য সব খেলোয়াড় এই নিয়ম পুরোপুরি মানেন না। বিশেষ করে যাঁদের মুখের ভাষা ইংরেজি নয়। তাঁদের অনেকে এমনি চিৎকার করেই কাজ সেরে ফেলেন। অনেকে তো স্রেফ আম্পায়ারের দিকে তাকিয়ে অঙ্গভঙ্গি করেই ব্যাপারটা চালিয়ে নেন।

 

‘ডাক’ মানে হাঁস নয়

১৭ জুলাই ১৮৬৬। তখনো সপ্তম এডওয়ার্ড ব্রিটেনের সিংহাসনে বসেননি। তাঁর রাজ্যাভিষেক হয়েছিল অনেক পরে। ১৯০১ সালে। সেদিনের ম্যাচে তিনি ব্যাটিংয়ে নেমে শূন্য রানেই আউট হয়ে যান। পরের দিন পত্রিকায় লেখা হলো, যুবরাজ ‘ডাকস এগ’, মানে হাঁসের ডিম নিয়ে রাজকীয় প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন। ইঙ্গিতটা পরিষ্কার ‘০’-র সঙ্গে হাঁসের ডিমের আকৃতিগত মিলের প্রতি। পরে সেই ‘ডাকস এগ’ কথাটাই বদলে হয়ে গেছে ‘ডাক’।

তথ্যসূত্র : ব্রিটানিকা, লর্ডস ডটওআরজি, আস্ক অক্সফোর্ডডটকম