kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

[ ছ ড়া গ ল্প ]

বইমেলায় মাতামাতি

আহমেদ সাব্বির   

৫ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বইমেলায় মাতামাতি

হঠাৎ দেখি বইমেলাতে বাঘ ভালুুক হাতি

সিংহ শিয়াল জেব্রা জিরাফ শিম্পাঞ্জির নাতি

করছে মাতামাতি।

 

কাঁধে চটের ব্যাগ ঝুলিয়ে ঘুরছে দলে দলে

রংবেরঙের বই দেখছে স্টলে স্টলে।

জীবজন্তুর রঙিন ছবি

গুড্ডু বুড়া, গুল্টু সবই,

গল্প ছড়ার পাশে

নিজের ছবি দেখে ভালুক ডিগবাজি খায় ঘাসে।

সত্যি এটা আমার ছবি?

নিজেকে ভালুক ভাবল কবি

শিয়াল এসে চোখ পাকিয়ে বলল—আরে থাম

এইখানে দেখ আমার ছবি, এই যে আমার নাম।

সেই যে কবে আমার নানা

চিবিয়ে খেল কুমিরছানা

পাঠশালাতে ঝুলিয়ে তালা ছাড়ল নদীর ধার

সেই গল্পের গ্রন্থ এটাই, কাটতি চমত্কার।

 

চোখ বুলিয়ে বইয়ের ঝাঁকে

গোঁফঅলা এক বিক্রেতাকে

বাঘ বলল—কাকা

বলতে পারেন এই বাঘটা কোন শিল্পীর আঁকা?

নাকটা কেন বাঁকা?

লেজটা কেন ফাঁকা?

সম্মানিত শিল্পীকে কি একটু যাবে ডাকা?

 

 

সিংহ বলে পাগলামি রাখ

বইয়ের মধ্যে গলাসনে নাক

বই হচ্ছে জ্ঞানের প্রতীক আলোর ফেরিঅলা

একটু দেখি—বলেই জিরাফ বাড়িয়ে দিল গলা

বলল—এটা হাশেম খানের, রনবীকেও চিনি

চল সামনে এবার কিছু বই-পুস্তক কিনি।

 

বাঘ কিনল গল্পের বই সিংহ নিল ছড়ার

ভূত সমগ্র কিনল গাধা আগ্রহ তার পড়ার।

অ্যাডভেঞ্চার কিনল শিয়াল, জিরাফ উপন্যাস

রূপচর্চার বই কিনল ময়ূর এবং হাঁস

ভালুক নিল জোকসের বই দম ফাটানো হাসি

সন্ধ্যা শেষে মেলার গেটে বাজল বিদায় বাঁশি।

 

বইয়ের ঝোলা ভর্তি করে ফুর্তিভরা মনে

জ্ঞানের আলো সঙ্গে নিয়ে ছুটল ওরা বনে।

অলংকরণ : প্রসূন হালদার