kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

[ লি ট ল মা স্টা র ]

উম্মে মাইসুন

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উম্মে মাইসুন

বাংলা মাধ্যমের শিক্ষার্থী মাইসুন। কিন্তু শেখায় ইংরেজি। বয়স এগারো বছর হবে। ফেসবুকের মাইসুনকে হয়তো অনেকের চেনা চেনাও লাগছে। মোবারক আজাদ কথা বলে এসেছেন

রবি টেন মিনিটস স্কুলের একটি ভিডিও দিয়ে নাম করে মাইসুন। বলতে বলতে রাতারাতি ‘মিলিয়ন’ ভিউ পেয়ে যায় মাইসুনের ভিডিওটি। হাজার হাজার মন্তব্য (কমেন্ট) লেখে ভিডিওর দর্শকরা। গেল জুন থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৬০ লাখ বার ভিডিওটি দেখা হয়েছে রবি টেন মিনিটস স্কুলের চ্যানেল থেকে। এরপর একে একে ওখানেই আটটি ভিডিও আপলোড করে মাইসুন। সব মিলিয়ে মাইসুন ভিউ পেয়েছে দেড় কোটি।

চট্টগ্রামের বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে মাইসুন। মা-বাবার সঙ্গে থাকে জামালখান এলাকায়। মূলত ইংরেজি ভাষা চর্চার ক্লাস নেয় মাইসুন। সেই সঙ্গে বাংলা ও ইংরেজি বই পড়ায়। বলল, ‘পড়তে শেখার পর থেকেই গল্পের বইই বেশি পড়েছি। বাংলা আর ইংরেজি বইও পড়ি। আসল সমস্যা কিন্তু ভয়। ভয় না পেলেই ইংরেজি শেখা সহজ হয়। আমি এখন ইংরেজিতে গল্পও লিখছি।’

 

যেভাবে ইংরেজি শেখা

মাইসুনের খালা থাকেন যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে। একবার খালারা দেশে এলে সমবয়সী খালাতো বোনদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বেশ ঝামেলা হয়েছিল। খেলাধুলার মজাটাই নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। মাইসুন নিজেই একটা সমাধান বের করল। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে ইংরেজি প্র্যাকটিস করত। সেই সঙ্গে কার্টুন ও সিনেমা দেখা আরো বাড়িয়ে দিল। ঘণ্টার পর ঘণ্টা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে ইংরেজি বলা প্র্যাকটিস করায় মাইসুনের জড়তা কেটে যায়।

পরে বাবার সাহায্য নিয়ে ভিডিও ব্লগিং শুরু করল মাইসুন। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ইউটিউবে মাইসুন’স ওয়ার্ল্ড নামের একটি চ্যানেল চালু করে। ৪৪ হাজার সাবস্ক্রাইবার আছে চ্যানেলটিতে। ফেসবুকে ইংরেজি কনটেন্টও শেয়ার করে সে। তার ফেসুবক পেজ মাইসুন’স ওয়ার্ল্ডে ফলোয়ার আছে প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার। তাকে এসব কাজে সাহায্য করেন তার বাবা আশরাফ রুবেল এবং মা উম্মে সালমা চৌধুরী। ইউটিউব চ্যানেলে মাইসুনের এখন পর্যন্ত ভিডিও আছে ৩৫টি।

 

আরো মাইসুন

মাইসুন গণিতও পছন্দ করে। মুহম্মদ জাফর ইকবাল তার প্রিয় লেখক। ‘ভূতের বাচ্চা কটকটি’, ‘রিটিন’, ‘আমার সাইন্টিস মামা’ ইত্যাদি তার প্রিয় বই। স্পাইডারম্যান, হ্যারি পটার দেখতে সে পছন্দ করে। জেরেনিমো স্টিলটন ও প্রিন্সেস ডায়েরিজের সিরিজ বইগুলোও তার প্রিয়।

 

হতে চায়

গবেষক হতে চায় মাইসুন। বিজ্ঞানজগতের রহস্য সন্ধান করতে চায়। আর দেশ-বিদেশ ঘুরে ভ্রমণবিষয়ক ভিডিওচিত্র তৈরি করতে চায়। মাইসুন বলল, ‘আমি নানা ধরনের ভ্রমণবিষয়ক ভিডিও দেখি। এসব ভিডিও আমার ভালো লাগে। ইংরেজি শিক্ষার ভিডিও দেখতেও পছন্দ করি। আইমান সাদিক আমার আদর্শ।’

 

মন্তব্য