kalerkantho

রবিবার। ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৭ জুন ২০২০। ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

ছোট পর্দায়

স্নোপিয়ার্সার

১৪ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্নোপিয়ার্সার

বং জুন-হোর আলোচিত চলচ্চিত্র ‘স্নোপিয়ার্সার’ অবলম্বনে এবার তৈরি হয়েছে টিভি সিরিজ। ১৭ মে থেকে প্রচারের অপেক্ষায় থাকা সিরিজটি নিয়ে লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

এ বছর অস্কার জয় করে বিশ্বজুড়ে বং জুন-হো ব্যাপক পরিচিতি পেলেও চলচ্চিত্রবোদ্ধারা তাঁকে চেনেন-জানেন আগে থেকেই। সেই ‘মেমোরিজ অব মার্ডার’ থেকে তিনি একের পর এক উপহার দিয়েছেন তাক লাগানো সব চলচ্চিত্র। ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া ‘স্নোপিয়ার্সার’ যার মধ্যে অন্যতম। আলোচিত সেই সিনেমা এবার আসছে ছোট পর্দায়। ১৭ মে থেকে দর্শকরা দেখতে পাবেন একই নামের সিরিজটি। আমেরিকায় টিএনটি নেটওয়ার্কে প্রচার হলেও, বিশ্বজুড়ে দর্শকরা সেটা দেখতে পাবেন নেটফ্লিক্সেই।

পৃথিবীজুড়ে বরফযুগ শুরু হওয়ার সাত বছর পরের কাহিনি নিয়েই নির্মিত হয়েছে সিরিজটি। প্রধান উপজীব্য অবশ্যই পৃথিবীজুড়ে ঘুরতে থাকা সেই ট্রেন। ধ্বংসযজ্ঞ থেকে বেঁচে যাওয়া মানুষরাই এ ট্রেনের যাত্রী। বর্তমান সমাজব্যবস্থার মতোই ট্রেনটিতে বাসিন্দারাও নানা শ্রেণিতে বিভক্ত। দৈনন্দিন জীবনের লড়াইয়ের পাশাপাশি সিরিজটিতে উঠে এসেছে শ্রেণিবিভাজনের নির্মম বাস্তবতা। সিরিজটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ডেভিড ডিগস, জেনিফার কনেলি, মিকি সামনারের মতো অভিনেতা-অভিনেত্রীরা। অবশেষে মুক্তির অপেক্ষায় থাকলেও সিরিজটি নির্মাণের আগে বেশ কয়েক দফা ঝামেলা হয়েছে। শুরুতে সিরিজের ক্রিয়েটর ছিলেন হলিউডের অন্যতম চিত্রনাট্যকার জশ ফ্রিডম্যান। তিনি সিরিজের প্রথম পর্বটি তৈরিও করেছিলেন। কিন্তু টেলিভিশন প্রযোজকদের মনঃপূত হয়নি। পরিবর্তন করতে বললে, নিজের সৃষ্টি নিয়ে অটল থাকেন জশ। কিছুদিন আগেই যে নির্মাতাকে মাথায় তুলে রেখেছিলেন টিএনটির প্রযোজকরা, এরপর তাঁকেই বিদায় করে দেন। জশ ফ্রিডম্যানের সঙ্গে বিদায় নেন আরো বেশ কয়েকজন কলাকুশলীও। এরপর ডাকা হয় ‘অরফ্যান ব্ল্যাক’খ্যাত গ্রায়েম ম্যানসনকে। নিজের চিত্রনাট্যে অন্য নির্মাতার কাজ করাকে মোটেও ভালোভাবে নেননি জশ। টুইটারে গ্রায়েম ম্যানসনকে ‘বোকা’ বলে সম্বোধন করতেও পিছপা হননি। তবে গ্রায়েম কিন্তু তাঁর কাজ নিয়ে খুশি। বং জুন-হোর চলচ্চিত্রকে মাথায় রেখেই তিনি নির্মাণ করেছেন সিরিজটি, ‘বং জুন-হোর সৃষ্টি অসাধারণ। চেষ্টা করেছি চলচ্চিত্রটির প্রতি সম্পূর্ণ সম্মান রাখতে।’ চলচ্চিত্রটিতে শুধু ট্রেনের নিচের শ্রেণির মানুষের গল্প দেখানো হলেও ম্যানসন গল্পটা বলেছেন সব শ্রেণিরই। তাঁর মতে, দর্শকদের অন্য কামরার গল্পগুলোও জানা প্রয়োজন। এরই মধ্যে সিরিজটির দ্বিতীয় কিস্তি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন নির্মাতারা। বং জুন-হো এ সিরিজটিতে রয়েছেন শুধু নির্বাহী প্রযোজক হিসবেই।

মন্তব্য