kalerkantho

রবিবার । ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৭ রবিউস সানি                    

ক্রিকেটার থেকে অভিনেতা

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রিকেটার থেকে অভিনেতা

তাঁরা মূলত মাঠের নায়ক হলেও বড় পর্দায়ও নায়ক হয়েছেন। কেউ কেউ তো অভিনয়কেই পেশা বানিয়ে ফেলেছেন। ক্রিকেটার থেকে অভিনেতা বনে যাওয়াদের নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

 

শ্রীসান্থ

২৭ টেস্ট, ৫৩ ওয়ানডে খেলা শ্রীসান্থকে ভারতের অন্যতম প্রতিশ্রুতিশীল ফাস্ট বোলার মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু নানা বিতর্কে পথ হারায় তাঁর ক্যারিয়ার। মিডিয়ার প্রতি আগ্রহ ছিল আগে থেকেই। খেলা ছাড়ার পর পুরোপুরি সেখানেই মনোনিবেশ করেন। জনপ্রিয় রিয়ালিটি শো ‘বিগ বস’-এর রানার-আপ হয়ে যার শুরু। এর আগেই করেছিলেন আরেক শো ‘এক খিলাড়ি এক হাসিনা’। এরপর আরো বেশ কয়েকটি শো করেছেন। অভিনয় করেছেন ‘টিম ৫’, ‘অক্ষর ২’, ‘ক্যাবারে’ সিনেমায়। মুক্তির অপেক্ষায় আছে অ্যাকশন থ্রিলার ‘কেমপে গোউদা ২’; যেখানে ভিলেন হিসেবে দেখা যাবে তাঁকে।

 

ব্রেট লি

ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম গতিশীল পেস বোলার অস্ট্রেলিয়ার ব্রেট লি। ভারতীয় সংস্কৃতির প্রতি আগ্রহ ছিল আগে থেকেই। খেলোয়াড় হিসেবে যতবারই ভারতে এসেছেন, বলেছেন এ অঞ্চলের নাচ-গান ভীষণ পছন্দ তাঁর। খেলা ছাড়ার পর তাঁর অভিনয়ে অভিষেক হয় ‘আনইন্ডিয়ান’ দিয়ে। এই অস্ট্রেলিয়ান ছবিতে তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জির বিপরীতে নায়কের ভূমিকায় দেখা যায় তাঁকে। বক্স অফিসেও মোটামুটি ভালো করে ছবিটি।

 

অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ

ইনজুরির কারণে বড় অসময়েই ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায় অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফের। খেলা ছাড়ার পর অন্যতম সেরা এই ব্রিটিশ অলরাউন্ডার পুরোপুরি টিভি তারকা বনে গেছেন। নিয়মিত বিভিন্ন অনুষ্ঠান, রিয়ালিটি শো উপস্থাপনা করতে দেখা যায় তাঁকে। ব্রিটেনে তো বটেই, বেশ কয়েকটি অস্ট্রেলিয়ান টিভিতেও কাজ করেছেন তিনি।

এবারের বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও তিনিই উপস্থাপনা করেছেন। ফ্লিনটফের করা অনুষ্ঠানের মধ্যে আছে ‘দ্য প্রজেক্ট’, ‘অস্ট্রেলিয়ান নিনজা ওরিয়র’, ‘ক্যাননবল’, ‘টপ গিয়ার’ ইত্যাদি। এ ছাড়া বিবিসি রেডিও ৫-এ লাইভ অনুষ্ঠানও করেছেন। ২০১৭ সালে জিতেছেন রেডিও একাডেমি অ্যাওয়ার্ডস। টিভিতে অভিনয়ও করেছেন তিনি। বিবিসির ‘লাভ, লাইজ অ্যান্ড রেকর্ডস’-এ দেখা গেছে তাঁকে।

 

অজয় জাদেজা

জনপ্রিয় ক্রিকেটার অজয় জাদেজাকে দেখা যায় ‘খেল’ ছবিতে। ২০০৩ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিতে সানি দেওল ও সুনীল শেঠির সঙ্গে ছিলেন তিনিও। এরপর ২০০৯ সালে ‘পাল পাল দিল কে সাত’-এও তিনি ছিলেন। অভিনয় ছাড়াও টিভির নিয়মিত মুখ অজয়। দীর্ঘদিন ‘জি নিউজ’-এর ক্রিকেট বিষয় শো উপস্থাপনা করেছেন। এ ছাড়া জনপ্রিয় দুই রিয়ালিটি শো ‘ঝলক দিখলা জা’ ও ‘কমেডি সার্কাস’-এও ছিলেন তিনি।

 

নভোজিৎ সিং সিধু

খেলোয়াড়ি জীবনে ছিলেন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। তবে খেলে যতটা জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন, টিভিতে এসে করেছেন তার কয়েক গুণ বেশি। কী গুণের জন্য রিয়ালিটি শোতে বিচারক হয়েছেন বলা মুশকিল, তবে ক্রমেই নভোজিৎ সিং সিধু আর বিচারক সমর্থক হয়ে উঠেছেন। মূলত কমেডি শোতে অপ্রতিদ্বন্দ্বী তিনি। ২০০৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত তিনি ‘দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান লাফটার চ্যালেঞ্জ’, ‘বিগ বস ৬’, ‘কমেডি নাটস উইথ কপিল’, ‘দ্য কপিল শর্মা’য় দেখা গেছে তাঁকে।

 

ইয়োগরাজ সিং

জনপ্রিয় ভারতীয় ক্রিকেটার যুবরাজ সিংয়ের বাবা ইয়োগরাজ সিং খেলোয়াড় হিসেবে তেমন কিছু করতে পারেননি। কিন্তু অভিনেতা হিসেবে ভালোই নাম কামিয়েছেন। বলিউড, পাঞ্জাবি ছবিতে দেখা গেছে তাঁকে। ৩০টি পাঞ্জাবি ও ১০ বলিউড ছবি করেছেন। ‘ভাগ মিলখা ভাগ’-এ মিলখার কোচ হিসেবে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

 

সেলিম দুরানি

আফগানিস্তানে জন্ম নেওয়া এই ভারতীয় অলরাউন্ডার ক্রিকেটার সিনেমাও করেছিলেন। ১৯৭৩ সালে পারভীন ববির বিপরীতে ‘চরিত্র’তে ছিলেন তিনি। আগে ‘এক মাসুম’-এও ছিলেন তিনি। তবে এরপর তাঁকে আর সিনেমায় দেখা যায়নি।

 

মন্তব্য