kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

দশ বছর পর

দশ বছর পর নতুন গানের ভিডিও নিয়ে এলেন মেহের আফরোজ শাওন। জুলফিকার রাসেলের কথায় ‘ইলশেগুঁড়ি’ গানটির সুর করেছেন ভারতের নচিকেতা চক্রবর্তী। শাওনের গান নিয়ে লিখেছেন ইসমাত মুমু

১৬ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দশ বছর পর

গীতিকার জুলফিকার রাসেলই প্রস্তাবটা করলেন। ঢাকা লিট ফেস্ট নিয়ে কথা হচ্ছিল দুজনের। তখনই রাসেল জানালেন, তাঁর লেখা একটি গান সুর করেছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় শিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তী। রাসেলের ইচ্ছা গানটা যেন শাওন গায়। গানের কথা পছন্দ হলো শাওনের। তার চেয়েও বেশি টানল নচিকেতা। শাওনের শৈশবের ভালোলাগা ভালোবাসা নচিকেতার জীবনমুখী গান। কিন্তু রেকর্ডিংয়ের আগে নচিকেতার দেখা মিলল না। গত বছর ভারতের চেন্নাইয়ে রেকর্ডিং হয়েছিল গানটি, সংগীত পরিচালক টুনাই দেবাশীষ গাঙ্গুলির স্টুডিওতে। তিনিই গানটির সংগীতায়োজন করেছেন।

গানটি রেকর্ডিংয়ের ঠিক এক বছর এক দিন পর কথা হচ্ছিল শাওনের সঙ্গে। তথ্যটা জানালেন শাওনই, ‘সকালে ফেসবুক দেখছিলাম। রিমেম্বারিংয়ে চোখে পড়ল গত বছর এই দিনে কী করেছিলাম। সেদিন রবীন্দ্রসদনে আমার একটি গানের অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে আমার সঙ্গে গেয়েছেন নচিকেতাও। দেখা হওয়ার পর তাঁকে জানালাম, গতকাল আপনার সুর করা একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছি। সব শুনে উনি বললেন, আমার খুব ভালো লাগার সুর এটি। আপনি যখন গেয়েছেন ভালো কিছুই হবে। সেই অনুষ্ঠানের ছবিই ভেসে উঠল টাইমলাইনে, তাই মনে পড়ল, এক বছর হয়ে গেছে।’

২২ এপ্রিল ধ্রুব মিউজিক স্টেশন প্রকাশ করেছে গানটির ভিডিও। প্রকাশ পেতে এত সময় লাগল কেন? শাওন বলেন, ‘কণ্ঠ দিয়ে আসার পর গানটি টুনাই দাদার কাছেই ছিল। তিনি সময় নিয়ে গানটি পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। তারপর ভিডিওর পরিকল্পনা, সব মিলিয়ে দেরিটা হয়েছে।’

প্রায় ১০ বছর আগে শাওনের পাঁচটি গানের ভিডিও নির্মাণ করেছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। ‘ভ্রমর কইও গিয়া’ শিরোনামে সে সময় চ্যানেল আইয়ে প্রচারিত হয়েছিল গানগুলো। এরপর আর কোনো গানের ভিডিও করেননি। সেই হিসেবে ১০ বছর পর ‘ইলশেগুঁড়ি’ গানের মডেলও হলেন। ভিডিওটি পরিচালনা করেছেন শরিফুল করিম শ্রাবণ। ফেব্রুয়ারিতে ভিডিওর দৃশ্যধারণ হয়। শাওন বলেন, ‘শ্রাবণ আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাচমেট। নিজে কিছুই করার চেষ্টা করিনি। বন্ধু যা বলেছে, সেটাই করার চেষ্টা করেছি।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গানটি বেশ প্রশংসিত হয়েছে। সাধারণ শ্রোতার পাশাপাশি সেলিব্রিটিরাও প্রশংসা করে লিখছেন। এত মানুষের ভালোবাসা পেয়ে শাওন নিজেও অবাক। উদাহরণ টানলেন, ‘নায়িকা পরীমণিকে সবাই চেনে। কিন্তু ওর সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত পরিচয় ছিল না। কখনো কথাও হয়নি। সেদিন দেখি সে গানটি শেয়ার দিয়েছে। ও আমার বন্ধু তালিকায়ও নেই। ওরা তো আমাদের পরের প্রজন্ম। ওদের কাছে গানটা ভালো লেগেছে, এটাও সত্যিই আনন্দের।’

প্রকাশের অপেক্ষায় আছে শাওনের কণ্ঠে তিনটি সিনেমার গান—শাহরিয়ার নাজিম জয়ের ‘পাপ কাহিনী’, হাসিবুর রেজা কল্লোলের ‘মন্দ ছবি’ ও মাসুদ আখন্দের ‘স্বপ্নপোকা’।

গান নিয়ে সামনের দিনের পরিকল্পনা কী? ‘আমি আসলে কোনো কিছু নিয়েই পরিকল্পনা করতে পারি না। ভালো গানের অফার পেলে গাইব, এটুকুই বলতে পারি।’

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে বসে কথা বলছেন শাওন। ফিল্ম মেকিংয়ের ওপর কোর্স করছেন সেখানে। কথায় কথায় জানালেন ফিরে এসেই নতুন সিনেমার ঘোষণা দেবেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন দেশে ফিরেই।

এনিমেটেড স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘সারভাইভিং ৭১’ নির্মাণ করছেন হলিউড এনিমেটর ওয়াহিদ ইবনে রেজা। ইতিমধ্যে প্রকাশ পেয়েছে ছবির টিজার। এই সিনেমায় বাচিকশিল্পী (ডাবিং) হিসেবে কাজ করেছেন শাওন। এসবের বাইরে তাঁর সবচেয়ে বেশি ব্যস্ততা আর্কিটেকচার ফার্ম ‘ডটস’ নিয়ে। তিনি একজন আর্কিটেক্ট, এটা তাঁর ভক্তমাত্রই জানেন।

 

ছবি : ড্রিমস ইভেন্ট

মন্তব্য