kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফেসবুক থেকে

২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফেসবুক থেকে

ট্রু ডিটেকটিভ

ট্রু ডিটেকটিভ

সিজন ৩

দেশ : যুক্তরাষ্ট্র

ধরন : ক্রাইম, ড্রামা, মিস্ট্রি

 

দীর্ঘ সাড়ে তিন বছর অপেক্ষার পর থার্ড সিজন নিয়ে ফিরে এলো আমাদের অনেকের অন্যতম প্রিয় সিরিজ ‘ট্রু ডিটেকটিভ’। অ্যান্ড ইট’স ব্যাক উইথ আ ব্যাং!

৭ নভেম্বর ১৯৮০। বিকেলবেলা সাইকেল নিয়ে  খেলতে বের হয় দুই ভাই-বোন উইলিয়াম আর জুলি। তাদের বাবার কড়া নির্দেশ, সাড়ে ৫টার মধ্যে ঘরে ফিরতে হবে। সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত হয়ে যায়, তাও তারা ঘরে ফেরে না। সিজনের শুরু তিনটা টাইমলাইন দিয়ে। এর শুরুতে আমরা দেখতে পাই প্রেজেন্ট টাইমের (২০১৫ সাল) মাহেরশালা আলীকে, যিনি ভয়েস রেকর্ডারে কোনো এক মার্ডার কেস নিয়ে তার ডেপজিশনের রেকর্ডিং শুনছেন। সেখান থেকে কাহিনি চলে যায় ফ্ল্যাশব্যাকে, ১৯৯০ সালে, যখন সেই ডেপজিশন রেকর্ড করা হয়েছিল। সেই ফ্ল্যাশব্যাক থেকে কাহিনি আরো একবার ফ্ল্যাশব্যাকে যায়, ১৯৮০ সালে।

‘ট্রু ডিটেকটিভ’-এর চিরচেনা স্টাইলে সাজানো তিনটা টাইমলাইন নিয়ে বেশ কমপ্লেক্স একটা মার্ডার মিস্ট্রি। প্রথম এপিসোড শুরুর চার-পাঁচ মিনিট দেখেই সেই ২০১৪ সালের ট্রু ডিটেকটিভের কথা মনে পড়ে গেল। মাহেরশালা আলীর ওয়েইন হেইজ ক্যারেকটারটি দেখে আবার ম্যাথু ম্যাকনহেরের কথা মনে পড়ে গেল।

মাথা নষ্ট করা ফার্স্ট সিজনের পর সেকেন্ড সিজন অনেকেরই আশা পূরণ করতে পারেনি। তবে থার্ড সিজনের এখন পর্যন্ত বের হওয়া দুই এপিসোড দেখে মনে হচ্ছে, ট্রু ডিটেকটিভ ইজ ব্যাক, ফর রিয়াল।

 

তানজীম রাহাত

সিরিয়ালখোর গ্রুপের পোস্ট

মন্তব্য