kalerkantho

সোমবার । ১১ মাঘ ১৪২৭। ২৫ জানুয়ারি ২০২১। ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ কম

তারিকুল হক তারিক, কুষ্টিয়া   

২৫ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুষ্টিয়া জেলা শহরের ২৫ কিলোমিটারের মধ্যে তিনটি পাইকারি সবজির বাজার বিক্তিপাড়া, লক্ষ্মীপুর ও শেখপাড়া। ভরা মৌসুমে প্রতিদিন এই তিন বাজারে কৃষকরা তাঁদের উৎপাদিত এক থেকে দেড় হাজার মণ শসা নিয়ে আসেন। এর ৩০০ থেকে ৪০০ মণ কুষ্টিয়ার বিভিন্ন বাজারে যায়, আর বাকিটা চলে যায় রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন বাজারে। কয়েক দিন ধরে এই পাইকারি বাজারে কৃষক শসা বিক্রি করছেন ২৫ থেকে ২৮ টাকা কেজি দরে। এরপর তা কুষ্টিয়া শহরে এসে হচ্ছে ৫০ টাকা। আর রাজধানী ঢাকায় এসে হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি।

বাজারে নতুন বেগুনও উঠেছে। কুষ্টিয়ার বিভিন্ন পাইকারি বাজারে লম্বা জাতের এই বেগুন ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি হলেও শহরের বাজারে তা ৫০ টাকা এবং ঢাকায় ৭০ টাকা কেজি। কুষ্টিয়া পৌর বাজারের সওদাগর ভাণ্ডারের মালিক পাইকারি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন জানান, আমরা আজ বেগুন ৩৮ থেকে ৪২ টাকায় বিক্রি করেছি। কেউ কেউ ৪০ টাকাও বেচেছে। শুনেছি খুচরা বাজারে এই বেগুনই ৫০ করে বিক্রি হয়েছে।

বিত্তিপাড়া বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী হায়দার আলী জানান, আমাদের এই তিন হাটে এক থেকে দেড় হাজার মণ শসা আসে। এখন দৈনিক ৫০০ থেকে ৭০০ মণ আসছে, বাজার একটু চড়া। এখানে ৩০ টাকায় কিনে আপনারা কেন সেটা শহরে ৪০ টাকা বা ঢাকায় ৮০ টাকায় বিক্রি করেন? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ঢাকায় আগে সবজি নিতে ট্রাক ভাড়া লাগত আট হাজার টাকা, এখন লাগছে ১৬ হাজার টাকা। আর স্থানীয় বাজারে পৌঁছাতে কেজিতে দুই টাকা এখন লাগছে চার টাকা। তার সঙ্গে আরো খরচ আছে।

কুষ্টিয়া পৌর বাজারের সবচেয়ে বড় শসা ব্যবসায়ী কেষ্ট জানান, সবজির চাহিদা বেশি ও সরবরাহ কম হওয়ায় দাম একটু বাড়বেই।

মন্তব্য