kalerkantho

রবিবার । ২১ জুলাই ২০১৯। ৬ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৭ জিলকদ ১৪৪০

ফেসবুক থেকে পাওয়া

তোমাদের লিফটটা কোন দিকে?

৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আকাশ হঠাৎ কল দিয়ে বলল—ভাই, বাসায় একটু সমস্যা হচ্ছে। আগামী মাস থেকে এখানে আর থাকা হবে না। ‘আচ্ছা’ বলেই রেখে দিলাম। রাতের দিকে ভার্সিটির ফেসবুক গ্রুপে একটা পোস্ট দিলাম একটা সিট ফাঁকা হবে বলে।

এই বাসায় আছি আজ প্রায় দুই বছর। সাতজন একসঙ্গে থাকি। তিন রুমে দুজন করে ছয়জন, আর আমি থাকি একটা আলাদা রুমে। আকাশ আমার বন্ধুর ছোট ভাই। প্রায় পাঁচ মাস আগে সে এই বাসায় ওঠে।

ফেসবুকে পোস্ট দেখে চার-পাঁচজন ইনবক্সে বাসার ভাড়াসহ নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইল। এর মধ্যে প্রথম সেমিস্টারের এক ছেলে বলল—ভাইয়া, বাসা ভাড়া কত, কোন ফ্লোরে বাসা?

—রুমভাড়া ছয় হাজার টাকা। একেকজনের তিন হাজার টাকা করে দেওয়া লাগে। বাসা পাঁচতলায়।

 —লিফট আছে?

—না।

—কী বলেন ভাই, পাঁচতলায় হেঁটে ওঠা যায় নাকি, তার ওপর এত ভাড়া!

বুঝলাম ছেলেটা ঢাকা শহরে ব্যাচেলর ফ্ল্যাটের ব্যাপারে প্রথম খোঁজ করছে। তাই নিজেকে সামলে নিয়ে বললাম, তা অবশ্য ঠিক, ব্যাচেলর বাসা। এর চেয়ে বেশি ফ্যাসিলিটি নাইরে ভাই।

ছেলেটা অবশ্য আর কিছু বলল না। এদিকে নতুন সেমিস্টার শুরু হয়ে গেল। এর প্রায় তিন মাস পর ব্যাচমেট আমজাদের বাসায় গেলাম ল্যাব রিপোর্ট নিতে। দেখি প্রথম বর্ষের ওই ছেলে আমজাদের বাসায়। ওকে দেখেই তাজ্জব বনে গেলাম। আমজাদকে জিজ্ঞেস করলাম, তোদের রুম ভাড়া কত রে?

-সাত হাজার টাকা।

ল্যাব রিপোর্ট নিয়ে ফেরার পথে ওই ছেলেকে ডেকে বললাম, ‘তোমাদের এই বিল্ডিংয়ের লিফটটা কোন দিকে? উঠার সময় খুঁজে পেলাম না, একটু দেখিয়ে দিবা? সাততলা থেকে নামা কষ্ট।’

ছেলেটি কী বলবে ভেবে না পেয়ে আমার দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকল।

আল সানি

টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ

সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়।

মন্তব্য