kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

অফলাইন

অনলাইনে মজার মজার গল্প, বুদ্ধিদীপ্ত কৌতুক, সাম্প্রতিক বিষয়-আশয় নিয়ে নিয়মিত স্ট্যাটাস দিয়ে যাচ্ছেন পাঠক-লেখকরা। সেগুলোই সংগ্রহ করলেন রনী মাহমুদ

১১ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



জেনে রাখুন

যখন মেয়েপক্ষ এসে যমজ ভাইয়ের একজনকে রিজেক্ট করে দেয়—

অন্য ভাইয়ের বউ : আপা নিয়ে যান, ঠকবেন না। আমি নিজে সেম জিনিস একটা ইউজ করতেছি। খুব কমফোর্টেবল।

 

যখন আমি কালো বলে ক্রাশ আমার সঙ্গে রিলেশনে যেতে চায় না—

আমি : আরেহ আপনি ফর্সা তো। কালো রঙে আপনাকে মানাবে ভালো।

 

যখন ক্রাশ মনে করে সব ছেলেই এক—

আমি : আপা, পুরো মার্কেট ঘুরেও আরেকটা পাবেন না। এটা ওয়ান পিস!

 

বাসর রাতের পরদিন সকালে নতুন বউ যখন জামাইকে দেখে—

বউ : দূর, এটা এখন কেমন যেন লাগতেছে। এর আগে অন্য আরেকটা ছেলে যেটা দেখছিলাম ওটাই মে বি ভালো ছিল।

 

যখন ক্রাশ বলে, এই রিলেশন কখনোই টিকবে না।

আমি : আপা, একবার ট্রাই করেই দেখেন, লাইফটাইম গ্যারান্টি। রিলেশনের কিছু হলে জুতা আপনার গাল আমার।

 

যখন প্রেমিকার বাবা চৌধুরী সাহেব পাঁচ লাখ টাকায় মেয়ের ভালোবাসা কিনে নেয়—

প্রেমিক : আমার খরচ এর চাইতে বেশি হইছে। আপনাকে একেবারে লসে দিয়া দিলাম।

 

যখন যমজ বোনের একটা ফর্সা একটা শ্যামলা। আর বিসিএস ক্যাডার ছেলে শ্যামলাটাকে দেখে অপছন্দ করে—

মেয়ের মা : সাইজ পছন্দ করেন, কালার দেওয়া যাবে!

সোহাইল রহমান

শর্ত

আমাকে যাঁরা প্রোফাইল লক করে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট দেন, তাঁরা রিকোয়েস্ট দেওয়ার সঙ্গে ইনবক্সে নিম্নোক্ত জিনিসগুলো পাঠাবেন...

১. ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ছবি

২. বাসার টেমপ্লেটের ছবি

৩. শেষ মাসের বিদ্যুত্ বিলের ছবি (সত্যায়িত করা থাকতে হবে)

৪. জন্মনিবন্ধনের ছবি

৫. পাসপোর্টের ছবি

৬. চেহারা ভালো করে ধুয়ে, ভালো ক্যামেরা দিয়ে দুটি ছবি (একটি পাসপোর্ট সাইজ, একটি স্ট্যাম্প সাইজ এবং সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড বাধ্যতামূলক)

৭. সিটি করপোরেশন অথবা পৌরসভার নাগরিক সনদের ছবি

৮. চারিত্রিক সনদের ছবি

৯. বিবাহিত হলে কাবিননামার ছবি

১০. নিজ নিজ কর্মস্থলের নিয়োগপত্রের ছবি

অন্যথায় রিকোয়েস্ট এক্সেপ্ট করা হবে না, ধন্যবাদ!

সামিয়াতুল খান

ঐতিহ্য

ছোট ভাইকে সালামি দিয়ে রুম থেকে বের হওয়ার আগেই দেখলাম আম্মা নিয়ে নিচ্ছে, বাঙালি জাতির ঐতিহ্য এখন টিকে আছে।

রুপম করিম

দুই ভাই

এক চোর নির্জন দেখে এক বড়লোকের বাড়িতে ঢুকে চুরি করছিল। মোটামুটিভাবে চুরি করে বের হওয়ার মুখে গৃহকর্ত্রী চাবি খুলে দরজা দিয়ে প্রবেশ করে হতবাক হয়ে গেলেন। জিজ্ঞেস করলেন, কে? আর বন্ধ ঘরে কী করছ?

চোর খুবই সত্ ছিল। পরিষ্কার বলে দিল, চুরি করাই ওর প্রফেশন, তা-ই করছে।

গৃহকর্ত্রী অবাক হয়ে বললেন, বাইরে গার্ড আছে, দরজায় তালা লাগানো ছিল। আমি ব্যাংকের ম্যানেজারের চাকরিতে আছি; কিন্তু মাথায় ঢুকছে না যে কী করে ঢুকলে ঘরে? আমাকে শেখাও তো কী করে ঢুকলে এখানে।

চোর শুধু বলল, আপনি কত বড়লোক। কত ভালো প্রফেশনে আছেন।

আপনার কী দরকার

এই প্রফেশনে আসার?

আমি কিছুতেই আমার প্রফেশনে ভিড় বাড়তে দেব না। এমনিতেই এত এত চোরে গিজগিজ করছে,

আর নয়।

বাবা মঈন

সেলামি

যে দেশে ছেলে-মেয়েরা একটু বড় হলেই তাদের ঈদের সেলামি দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়, সে দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি ঘটবে কী করে?

তাহমিনা হোসেন

 

ব্যাচেলর

যে গভীর রাতে বাসায় ফেরার সময় দোতলায় পোলাওর ঘ্রাণ, তিনতলায় মাংসের ঘ্রাণ, চারতলায় ইলিশের ঘ্রাণ পেরিয়ে পাঁচতলায় উঠে দুপুরের ভাজা ডিম আর আম দিয়ে রাঁধা

চুকা ডাল দিয়ে হাপুস-হুপুস করে ভাত খায়, তাকে ব্যাচেলর বলে।

মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ

চালাকি

এক লোক রেস্টুরেন্টে ঢুকে ভরপেট খেল। বিল এলো কয়েক হাজার টাকা। কিন্তু তার কাছে আছে মাত্র ১০০ টাকা। কথাটা শুনতেই কর্তৃপক্ষ তাকে পুলিশের হাতে তুলে দিল। তারপর লোকটি সেই ১০০ টাকা পুলিশকে ঘুষ হিসেবে দিল আর অমনিই পুলিশ তাকে সসম্মানে ছেড়ে দিয়ে চলে গেল।

 আবির হোসেন

হাবলু

হাবলু যখনই কাপড় ধুতে যায়, তখনই বৃষ্টি নামে। কাপড় আর শুকায় না।

একদিন রোদ উঠল। হাবলু প্রভুকে ধন্যবাদ দিয়ে দোকানের দিকে যাইতে লাগল সাবান কিনতে।

দোকানের কাছাকাছি পৌঁছতেই মেঘ ডাকতে লাগল।

হাবলু ওপরের দিকে তাকিয়ে কইল, ‘আরে! আমি তো বিস্কুট কিনতে যাইতেছি!’

জিনাত জোয়ার্দার রিপা

 

আপনার লেখা মজার স্ট্যাটাস অফলাইন পাতায় ছাপাতে চাইলে নাম-ঠিকানাসহ স্ট্যাটাসটি মেইল করুন মযড়ত্ধত্ফরস—kalerkantho.com-এই ঠিকানায়

 

মন্তব্য