kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

সা জ

বর্ণিল ঈদে পরিমিত সাজ

ঈদের পুরো দিনের সাজে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন ঘটে। সকালে এই সাজ তো বিকেলে আরেক। তবে গ্রীষ্মের এই ঈদে সাজে থাকতে হবে পরিমিতিবোধ। কারণ গরম-ঘাম কিংবা হঠাৎ বৃষ্টি—দুটি বিষয়ই মাথায় রাখতে হবে। এই সময়ে কেমন সাজ হবে, জানালেন শোভন মেকওভারের রূপ বিশেষজ্ঞ শোভন সাহা

৫ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বর্ণিল ঈদে পরিমিত সাজ

ঈদে আনন্দের পাশাপাশি থাকে নানা কাজের চাপ। তাই নানা কাজের মাঝে নিজেকে একটু পরিপাটি আর আকর্ষণীয় করে সাজিয়ে রাখতে জানা দরকার কিছু বিষয়। ঈদের আগেই ফেসিয়াল, চুলে নতুন কাট, ম্যানিকিউর, পেডিকিউর, ভ্রু প্লাক, হেয়ার ট্রিটমেন্ট কয়েক দিন আগেই করিয়ে নিতে হবে। বিশেষ করে হেয়ার কাট ও ফেসিয়াল—এ দুটি খুবই জরুরি। অনেকে ফেসিয়াল করাতে চান না। তাঁদের অবশ্যই ঘরোয়া উপায়ে ত্বক পরিষ্কার করে নিতে হবে। কারণ এই প্রখর রোদে ত্বকে কমবেশি অনেকেরই সানবার্ন হয়। তাই ত্বক ঠিকঠাক থাকলে অল্প সাজেও আপনি আকর্ষণীয় হয়ে উঠবেন।

 

স্নিগ্ধ সাজে সকাল কাটুক

সকালের স্নিগ্ধতা ধরে রাখতে ঘুম থেকে উঠেই গোসল করে নিতে পারেন। এতে সতেজ থাকবেন। এরপর এক কাপ গ্রিন টি পান করে দিন শুরু করুন। এমনিতেই সকালে একটু-আধটু কাজের চাপ থাকে, তাই আরামদায়ক হয় এমন কোনো পোশাক বেছে নিন। এতে অতিথি বাড়িতে এলেও আপনার আর পোশাক পরিবর্তন করতে হবে না। তবে আবহাওয়া উপযোগী যেকোনো হালকা রঙের পোশাক পরুন, যাতে অস্বস্তি না হয়। মেকআপের শুরুতে অবশ্যই ত্বক পরিষ্কার করে নিতে হবে। বরফের টুকরো দিয়ে ত্বক টোন করে নিতে পারেন। তারপর ভালো মানের প্রাইমার ব্যবহার করুন। কারণ প্রাইমার মেকআপ দীঘস্থায়ী করে। সকালের মেকআপে হালকা ফাউন্ডেশন (ত্বকের ধরন অনুযায়ী) লাগিয়ে তার ওপর ফেস পাউডার দিন হালকা করে। চোখে কাজল পরতে চাইলে কালোর পরিবর্তে বাদামি রং বেছে নিতে হবে।

 

এ ছাড়া পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে একটু মোটা করে বিভিন্ন কালারের কাজল ব্যবহার করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে গাঢ় নীল, সবুজ, পার্পেল কালার চোখ গর্জিয়াস করে তুলবে। এরপর চোখে হালকা একটি ল্যাশ ও ঘন মাশকারা ব্যবহার করতে পারেন। তারপর মুখে হালকা কালারের ব্লাশনও দিতে পারেন। ঠোঁটে ন্যাচারাল কালারের লিপস্টিক লাগিয়ে নিলে চেহারায় সকালের শুভ্রতা থাকবে। যেহেতু গরম, তাই চুল পাঞ্চ ক্লিপ দিয়ে আটকে বা পনিটেল করে রাখতে পারেন।                    

দুপুরের সাজে পরিমিতিবোধ

দুপুরে হালকা রঙের সুতি পোশাক বেছে নিন। ফাউন্ডেশনের ওপর সেটিং পাউডার ব্যবহার করতে হবে। ব্লাশনের রং উজ্জ্বল হলে ভালো হয়। পোশাকের রং অনুযায়ী হালকা আইশ্যাডোর সঙ্গে মোটা আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন। আইল্যাশ ব্যবহার করতে না চাইলে ঘন করে মাশকারা লাগিয়ে নিন। মুখে একটু হাইলাইটার ব্যবহার করতে পারেন। ম্যাচিং করে কপালে টিপ দিন। ঠোঁটে একটু গাঢ় রঙের লিপস্টিক সাজটাকে নতুনত্ব দেবে। পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কানে অথবা গলায় ভারী একটা জাঙ্ক জুয়েলারি বেছে নিতে পারেন। চোখের পুরোটা পাতায় বেইস কালার করে তারপর অন্য কালারগুলো দিন। আয়রন বা কার্লিং আয়রন দিয়ে চুলে কার্লিং লুক দিতে পারেন। অথবা কিছু চুল হালকা পাফ করে ফুলিয়ে পেছনে ক্লিপ বেঁধে বাকি চুল খোলা অথবা ফ্রেঞ্চ বান, রিং খোঁপা করে নিতে পারেন।     

                       

রাতের সাজ জমকালো

রাতের সাজটা হবে ভারী। জমকালো সালোয়ার-কামিজ, লেহেঙ্গা বা শাড়ি—অর্থাৎ যে পোশাকই পরুন না কেন, মেকআপ অবশ্যই গর্জিয়াস হতে হবে। লিকুইড ফাউন্ডেশনের সঙ্গে সাইনার মিলিয়ে নিতে পারেন। এতে মেকআপের বেইসে গ্লেস দেবে। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে চোখের শেড নির্বাচন করতে পারেন। আইলিডে বেইস কালারের একটি শেড দিয়ে নিন। আইশ্যাডোর ক্ষেত্রে স্মোকি আই রাতের সাজে পারফেক্ট হবে। রাতের মেকআপে গ্লিটারও দেওয়া যেতে পারে। চোখে ঘন আইল্যাশ ব্যবহার করুন। যেহেতু গাঢ় আইশ্যাডো দিচ্ছেন, তাহলে লিপস্টিক ন্যাচারাল রাখবেন, তবে ব্লাশনটা একটু ভারী হবে। তারপর ওপরে টি জোন এবং থুতনিতে হাইলাইটার ব্যবহার করুন। মেকআপের সঙ্গে চুলের লুকটিও হবে গর্জিয়াস। চুল আয়রন বা কার্ল করতে পারেন। কিংবা পোশাকের সঙ্গে মানানসই হেয়ারস্টাইল হিসেবে ব্লো-ডাই করে পেছনে খোঁপা, নানা ধরনের বেণিও করতে পারেন। মেকআপের পর সেটিং স্প্রে দিতে ভুলবেন না, বিশেষ করে এই গরমের সময়ে।

 

জেনে রাখুন

♦         মেকআপ দীর্ঘ সময় ত্বকে ভালো রাখার জন্য দিনের বেলা যতটা সম্ভব অয়েলফ্রি আর ওয়াটারপ্রুফ মেকআপ ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। মুখের বেইস থেকে শুরু করে কাজল, মাশকারা, লিপস্টিক পর্যন্ত যতটা পারা যায়।

♦         অনেকের মেকআপের পর ত্বক কালচে হয়ে যায়। এ রকম হলে যে বেইস ব্যবহার করছেন, তাতে থাকা পিগমেন্ট ও ময়েশ্চার আপনার ত্বকের নিঃসৃত স্বাভাবিক তেলের সঙ্গে যদি কোনো কারণে মিশে যেতে না পারে, তখন ত্বকের তেলের সঙ্গে বিক্রিয়া করে ত্বক কালো দেখায়। তাই যাঁদের তৈলাক্ত ত্বক, তাঁরা এ সমস্যায় বেশি পড়েন। মেকআপের সময় ময়েশ্চারাইজার লাগানোর আগে টোনার ব্যবহার করুন। এতে তেলের নিঃসরণ কম হবে। মেকআপের পরে ত্বকের সঙ্গে কোনো রকম বিক্রিয়া করবে না।

♦         অনেকেই আছেন, হাত দিয়ে ফাউন্ডেশন লাগান ও ব্লেন্ড করেন। এ ক্ষেত্রে হাত একেবারে শুষ্ক হতে হবে। হাতের ঘাম ও আর্দ্রতা ফাউন্ডেশন ও মুখের সঙ্গে মিশে মেকআপ কালো করে ফেলে।

মন্তব্য