kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

কেউ আর কড়া নাড়েনি

মাহমুদ আল জামান

৫ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



কেউ আর কড়া নাড়েনি

সেই যে প্রত্যাখ্যাত হয়ে নিসর্গের শনশন আর নদীর

ছলছল শব্দকে বুকে ধারণ করে

বৈরাগ্য সাধনকে মুক্তি বলে অভিবাদন করেছি

তারপর কেউ আর কড়া নাড়েনি।

অহিফেন সেবন করে

বন্ধুর সঙ্গে রাতবিরাতে শ্মশানে যাই

দাউদাউ জ্বলতে থাকে মানুষের দেহের পর দেহ।

মাতাল তরণির মধ্যে দুলতে দুলতে

হয়ে উঠেছি খেয়ালি রাজা

ধ্বংসে উদ্যত, সুদূর পথরেখা, উন্মুখ স্বেচ্ছাচারী।

নিজেকে আমূল পাল্টে অবয়বহীন মানুষ এক

স্বপ্নহীন পড়ে থাকে নিঃসঙ্গ, একা।

ভীষণ উন্মাদনা উধাও

অচিন পাখি উড়ে যায় আকাশে।

জ্বালা নেই, এখন যন্ত্রণা নেই

নেই মিছিলের সেই মুখ।

কেবলই থাবা বসায় মুখচ্ছবিতে।

অসহায় ভগ্নকণ্ঠ মায়াবী বিলাপ হয়ে ঝরে পড়ে।

স্লোগান নয়, কেবল অস্থির মানুষের অচেনা কলরব ভেসে আসে, কী সব হচ্ছে যাচ্ছেতাই

বন্দি কি জেগে নেই?

প্রেত নৃত্যে, কখনো মধ্য রাত্রিবেলা জাতিসত্তার নবীন বিন্যাসে আমি পরাজিত। বলতে দ্বিধা নেই, আমি

মৃত মানুষের কবরের মতো অস্তিত্বহীন।

আমার যৌবন পলাতক

যেখানেই যাই গ্রাম কিংবা শহর

কলকাতা কিংবা নিউ ইয়র্ক

কোনো প্রার্থনাসভায় নতজানু হয়ে শূন্যতায়

ছুঁতে চাই তোমাকে। প্রতীক্ষায় কাটে বেলা

তবুও কেউ আর সেই অলৌকিক কড়া নাড়ে না।

মন্তব্য