kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

বৈশাখী আনন্দে মাতো

বৈশাখে মুখ রাঙাই

যারা আঁকাআঁকি জানো, তারা কিন্তু চাইলে পহেলা বৈশাখে বন্ধু বা অন্যের মুখেও এঁকে দিতে পারো বৈশাখী আলপনা। এতে যেমন তোমার প্রতিভার প্রকাশ পাবে, তেমনি পকেটে আসতে পারে অল্পবিস্তর হাতখরচা। তবে মুখচিত্র যারা আঁকার কথা ভাবছ, তাদের মেনে চলতে হবে জরুরি কিছু নিয়ম-কানুন। জানাচ্ছেন গাজী খায়রুল আলম

৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈশাখে মুখ রাঙাই

♦    এমন জায়গা ঠিক করবে, যেখানে পহেলা বৈশাখের দিন মানুষ জড়ো হয় বেশি। তবে জায়গাটি কোনো মেলার সামনে বা মেলায় যাওয়া রাস্তায় হলে ভালো হয়।

♦    তুমি কেমন আঁকতে পারো, এটি তো আর কেউ জানে না। তাই তোমার আঁকা কিছু আলপনা দিয়ে ছোট বুকলেট রেখে দিতে পারো সঙ্গে। এতে গ্রাহকরা আগেই ডিজাইন পছন্দ করার সুযোগ পাবে।

♦    কারোর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরাজুরি করতে যেয়ো না। এতে হিতে-বিপরীত হতে পারে। যারা নিজ থেকে আঁকাতে চাইবে, তাদেরটা এঁকে দেবে।

♦    মুখচিত্র আঁকাকে কখনো ব্যাবসায়িক চিন্তায় নেবে না। অহেতুক মোটা অঙ্ক দাবি করাটা কিন্তু এক ধরনের প্রতারণা।

♦    যারা আঁকাতে চায়, তাদের আগে জিজ্ঞেস করে নেবে, কোন ধরনের ডিজাইন তাদের পছন্দ। অনেকেই আছে, যারা হয়তো মুখে কোনো পশুপাখি বা মানুষের অবয়ব চাইবে না।

♦    মুখচিত্র আঁকতে ব্যবহার করো ভালো মানের ফ্যাব্রিক রং। এ ছাড়া অ্যাক্রামিন নামের একটা রংও পাওয়া যায় এর জন্য। ভুলে এনামেল পেইন্ট ব্যবহার করবে না, এটা ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।

 

যারা আঁকাতে চাও

♦    যারা আঁকাতে চাও, তারা আগেই নকশা ঠিক করে নাও। এ ক্ষেত্রে তোমার মুখের সঙ্গে মানানসই নকশা বাছাই করতে শিল্পীর পরামর্শ নিতে পারো।

♦    এমন কোনো মুখচিত্র আঁকাবে না, যেটি আমাদের  সংস্কৃতির সঙ্গে যায় না।

♦    অনেকে হয়তো ভয়ে মুখচিত্র আঁকো না। যদি রং না ওঠে, অথবা যদি কোনো সমস্যা হয়। তবে এসব রং সাবানপানি দিয়ে সহজেই উঠিয়ে ফেলা যায়।

♦    মুখে আঁকতে পারো শুভ নববর্ষ, হাতপাখা, ঢোল, বাঘ, একতারা কিংবা গাছের ডালে বসে থাকা দোয়েলের ছবি। চাইলে মুখের এক পাশে বা দুই পাশেই আঁকাতে পারো। আবার হাতেও আঁকাতে পারো।

♦    যিনি আঁকবেন, তার কাছে আগেই জিজ্ঞেস করে নাও সম্মানি কত টাকা। তা না হলে পরে আবার চার্জ শুনে মুখ ভার হয়ে যেতে পারে।

মন্তব্য