kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

লিখিত পরীক্ষায় দরকার জুতসই কলম

রবিউল আলম লুইপা, ৩৫তম বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা)

২০ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লিখিত পরীক্ষায় দরকার জুতসই কলম

পরামর্শ

বিসিএস লিখিত পরীক্ষার ২১ ঘণ্টায় একটা ভালো কলমেরও দারুণ ভূমিকা আছে। যদিও কলম নিয়ে  বেশির ভাগ প্রার্থীরই কোনো পরিকল্পনা থাকে না। তাই জুতসই কলম নিয়ে পর্যালোচনা করে পরীক্ষার সপ্তাহ দুয়েক আগেই পরিকল্পনা ঠিক করে রাখুন।

সঠিক কলম নির্বাচনে প্রার্থী যে বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখতে পারেন, সেগুলো হলো—

 

কলমের কালির প্রবাহ : লিখিত পরীক্ষার প্রায় সব বিষয়েই একজন প্রার্থীকে প্রচুর লিখতে হয়।

বিজ্ঞাপন

তাই কালির প্রবাহ দ্রুত ও বেশি হয় এবং নতুন কলমেও যেন শুরু থেকেই দ্রুত লেখা যায় বা গাঢ় কালি আসে—এমন কলম নির্বাচন করা ভালো।

সেই হিসেবে অয়েল জেল বলপেন ব্যবহার করতে পারেন। এ ধরনের কলমের লেখা সাধারণত শুরু থেকেই রানিং বা স্মুথ, ফলে অনেকক্ষণ লিখে স্মুথ করার দরকার পড়ে না।

কলমের বডিতে গ্রিপ : যাঁদের হাতের তালু নিয়মিত ঘামে, তাঁদের জন্য নিবের কাছাকাছি স্থানে গ্রিপ সংযুক্ত কলম সবচেয়ে জুতসই। বাজারে রাবার বডির বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গ্রিপার কলম থেকে আপনার জন্য মানানসই কলম বেছে নিতে পারেন।

 

কলমের চিকন নিব : হাতের লেখা সুন্দর করার জন্য বেশির ভাগ পরীক্ষার্থীই মোটা নিবের চেয়ে চিকন নিবের ০.৫ পয়েন্টের কলম বেশি পছন্দ করেন। সে ক্ষেত্রে বাজারের এই ধাঁচের নামি ব্র্যান্ডের কলমগুলো দেখতে পারেন। তবে এই ধরনের কলমের স্মুথনেস একটু কম। তাই এ ধরনের নতুন কলমের ক্ষেত্রে খাতায় দাগিয়ে বাসা থেকেই রানিং বা স্মুথ করে নিয়ে যাওয়াই সবচেয়ে ভালো।

 

কলমের বডির পুরুত্ব : একটানা দীর্ঘক্ষণ লেখার জন্য কলমের শেইপের পুরুত্ব স্বাভাবিক থাকলে খুব সুবিধা হয়। পুরুত্বের কারণে হাতে ব্যথা হতে পারে। এটি বিবেচনায় রেখে ভালো কোনো ব্র্যান্ডের চিকন নয়, মোটাও নয়—এমন পুরুত্বের কলম বেছে নিতে হবে।

 

নীল কালির ব্যবহার : পরীক্ষার খাতায় কালি ও রঙের নির্দিষ্টতা নিয়ে সুস্পষ্ট কিছু বলা না থাকলেও কালো কালির পাশাপাশি হাইলাইটের জন্য নীল রঙের কালি সব ক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য।

এ ক্ষেত্রে অনেকেই নীল বলপেনের পাশাপাশি সাধারণত নীল জেলপেনও ব্যবহার করেন।

সব শেষ কথা, কলম নিয়ে যদি কেউ দ্বিধাদ্বন্দ্বে থাকেন, তাহলে যে কলম দিয়ে লেখায় আপনি সবচেয়ে অভ্যস্ত বা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন, সেটি ব্যবহারেই অগ্রাধিকার দিন।