kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩০ চৈত্র ১৪২৭। ১৩ এপ্রিল ২০২১। ২৯ শাবান ১৪৪২

নমুনা ভাইভা

১৪৪ ধারা কী—বলুন তো

৬ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১৪৪ ধারা কী—বলুন তো

মো. ইসমাইল হোসাইন, ৩৮তম বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা)

অনার্স-মাস্টার্স করেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ থেকে। ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষার ভাইভা দিয়েছি অধ্যাপক ড. শাহ আব্দুল লতিফের বোর্ডে (স্যার স্টপ ওয়াচ ধরে ভাইভা নিতেন)। সময় ১০ মিনিট। ভাইভা বোর্ডে ছিলেন তিনজন। আমি তখন পুলিশে এসআই পদে চাকরিরত

ভাইভা রুমে প্রবেশ করার পর ভাইভা বোর্ডের চেয়ারম্যান স্যার বসতে বললেন। এরপর প্রশ্ন শুরু করলেন।

চেয়ারম্যান : Are you doing something?

আমি : Yes Sir, I am doing job in Bangladesh Police as a Sub Inspector.

চেয়ারম্যান : What are you doing as duties there?

আমি : Thank you sir, I am doing there as duties, maintaining law, order and discipline, and beside investigation of cases etc.

(উত্তর না জানলে ভুল উত্তর না দিতে বলে ভাইভা শুরু করলেন চেয়ারম্যান স্যার। আমার প্রথম চয়েস ‘আনসার’ নিয়ে তিনি কৌতূহলী হলেন, যা সাধারণত কেউ প্রথম চয়েস দেন না!)

চেয়ারম্যান : Why have you choosed ‘Ansar’ as your first choice?

আমি : Thank you, Sir. I am unique guy, there are two reasons behind choosing Ansar as my first choice. Firstly, I love to think out of box; Secondly, I believe, winners don’t do different things. They do same things differently.

চেয়ারম্যান : When Ansar Mutiny was happened?

আমি : Sorry, Sir. (চেয়ারম্যান স্যার উত্তর বলে দিলেন—১৯৯৪ সাল)

চেয়ারম্যান : আচ্ছা, আপনি তো পুলিশ। বলুন তো, ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬১ ও ১৬৪ ধারার মধ্যে পার্থক্য কী?

আমি : ধন্যবাদ স্যার। ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬১ ধারা হলো সাক্ষী ও বাদীর সাক্ষ্য বা জবানবন্দি আর ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারা হলো আসামি নিজেকে অপরাধী করে দোষ স্বীকারোক্তি।

(এরপর চেয়ারম্যান স্যার বোর্ডের অন্য সদস্যদের প্রশ্ন করতে অনুরোধ করেন।)

বোর্ড সদস্য-১ : চুরি ছাড়া আর কী কী অপরাধ আছে দণ্ডবিধিতে?

আমি : ধন্যবাদ স্যার, চুরির দণ্ডবিধি ৩৭৯ ধারা, দস্যুতার ৩৯২ ধারা, ডাকাতির ৩৯৫ ধারা, ডাকাতির প্রস্তুতির ৩৯৭ ধারা ইত্যাদি।

চেয়ারম্যান স্যার : আচ্ছা, ১৪৪ ধারা কী? বলুন।

আমি : ‘৫ জনের অধিক ব্যক্তি কোনো স্থানে একত্র হতে পারবে না মর্মে’ যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়, তা-ই ফৌজদারি কার্যবিধিতে ১৪৪ ধারা।

চেয়ারম্যান : পুলিশের ডিসি আর অ্যাডমিন ক্যাডারের ডিসি কোনটা?

আমি : মেট্রোপলিটনে এসপি পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে পুলিশে ডিসি বলা হয় আর জেলা পর্যায়ে জেলার প্রধান প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে অ্যাডমিন ক্যাডার থেকে ডিসি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

চেয়ারম্যান : মোবাইল কোর্ট আইন কয়টি?

আমি : মোবাইল কোর্ট আইন ২০০টি। (এটি ভুল উত্তর ছিল, সঠিকটি হলো তফসিলভুক্ত মোবাইল কোর্ট আইন রয়েছে ১১৪টি।)

বোর্ড সদস্য-২ : আচ্ছা, তুমি কোন বিষয়ে পড়ালেখা করেছ?

আমি : স্যার, আমি ইসলামিক স্টাডিজে ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে অনার্স-মাস্টার্স সম্পন্ন করেছি।

চেয়ারম্যান স্যার : বিদায় হজের ভাষণে রাসুল (সা.) খাবার নিয়ে কী বলেছিলেন?

আমি : দুঃখিত, স্যার। (প্রশ্নটা বুঝিনি)।

স্যার বললেন—‘রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমরা যা খাবে তোমাদের দাস-দাসীদেরও তা-ই খাওয়াবে?’ আমি বললাম, জি স্যার।

(স্টপ ওয়াচে তখন ১০ মিনিট শেষ।)

চেয়ারম্যান স্যার : Your time is over. You may go now.

আমি : Thank you sir, Assalamu Alaikum.

     শ্রুতলিখন : জুবায়ের আহম্মেদ

মন্তব্য