kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

এই গরমে ত্বকে তরমুজ

- বাজার ভরা তরমুজের মৌসুম এখন। তরমুজের রসালো শাঁস যেমন তৃপ্তিকর তেমনি এর খোসাও ত্বকের জন্য উপকারী। তাই গরমে ত্বকে আরাম দিতে তরমুজ ব্যবহার করতে পারেন। পরামর্শ দিয়েছেন বিউটি জোন পার্লারের রূপ বিশেষজ্ঞ আনজুম শিউলি। লিখেছেন ফাতেমা ইয়াসমীন

২৩ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এই গরমে ত্বকে তরমুজ

গরমকালেই আমাদের ত্বকের সবচেয়ে বেশি সমস্যা দেখা দেয়। ঘেমে প্যাচপেচে ভাব, নানা ফুসকড়ি ওঠা, রোদে পোড়া—এগুলো গরমে ত্বকের অন্যতম সমস্যা। গরমে বাজার সয়লাব থাকে নানা রকম ফলে। বেশির ভাগ ফল কিন্তু খাওয়ার পাশাপাশি রূপচর্চায় ব্যবহার করা যায়।

বিজ্ঞাপন

গরমের অন্যতম ফল হলো তরমুজ। এই সময় প্রাণ জুড়াতে তরমুজের জুড়ি মেলা ভার। শুধু তৃষ্ণা নিবারণেই নয়, ত্বকের যত্নেও তরমুজ বেশ উপকারী।

তরমুজে ৯০ শতাংশের বেশি পানি থাকে, যা মূলত শরীর ও ত্বকের পানিশূন্যতা (ডিহাইড্রেশন) কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া তরমুজের অ্যামিনো এসিড ত্বকের কোলাজেন নামক উপাদান বৃদ্ধিতে সহায়তা করে,মাথার ত্বকের রক্তসঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে। ফলে চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি এবং উজ্জ্বলতা বজায় থাকে। এছাড়াও তরমুজে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’। এই উপাদানগুলো ত্বকের শুষ্কতা, বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে। তরমুজের ভিটামিন ‘এ’ চোখের নিচের কালো দাগ দূর করে। তরমুজ এমন একটি ফল যেটি ত্বকের যেকোনো সমস্যায় ব্যবহার করা যায়। ত্বকের পোড়াভাব কাটিয়ে উজ্জ্বল ও ময়েশ্চারাইজ রাখতে তরমুজ দারুণ কাজ করে। তরমুজে ভিটামিন ‘সি’ থাকার কারণে এটা স্ক্রাব হিসেবেও দারুণ উপকারী।

এক টুকরো তরমুজ কেটে নিয়ে ত্বকে আলতোভাবে ঘষতে পারেন। তারপর ঠাণ্ডা পানি কিংবা আইস কিউব দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। চাইলে তরমুজের রসের সঙ্গে চালের গুঁড়া মিশিয়ে নিয়ে স্ক্রাবিং করতে পারেন। ১০ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

তরমুজের বীজ শুকিয়ে গুঁড়া করেও স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এর সঙ্গে শুধু যেকোনো ক্লিনজার মিশিয়ে নিলেই হলো। এটি আপনার ত্বকের কালো দাগও দূর করবে।

ক্লিনজার হিসেবে তরমুজ দারুণ কাজ করে। কাজের প্রয়োজনে বাইরে গেলে শরীরে ধুলাবালি লাগে। মুখ পরিষ্কারের ক্ষেত্রে তরমুজ ব্যবহার করা যেতে পারে। তরমুজ এবং লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে ক্লিনজার হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। যাঁদের ত্বক শুষ্ক তাঁরা তরমুজ, পাকা কলা, দুধের প্যাক ব্যবহার করতে পারেন।

মাস্ক হিসেবেও তরমুজের জুড়ি মেলা ভার। এর সঙ্গে বেসন, দুই চিমটি হলুদ, টক দই এবং পরিমিত লেবুর রস মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করতে পারেন। শুকিয়ে না যাওয়া পর্যন্ত ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। এই মাস্ক টোনার হিসেবে উপকারী। ফলে ত্বকে সহজেই বলিরেখা পড়বে না।

পরিষ্কার করে নেওয়া তরমুজের বীজ পানিতে সিদ্ধ করে নিন। বীজগুলো নরম হয়ে গেলে পেস্ট করে ব্রণের ওপর মালিশ করুন। তিন থেকে পাঁচ মিনিট পর শুকিয়ে গেলে তার ওপর ডিমের সাদা অংশ ব্রাশ দিয়ে আলতো করে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট পর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তৈলাক্ত ত্বকের জন্যও দাওয়াইটি খুবই উপকারী।