kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

অনলাইনে বিয়ের পাত্র-পাত্রী

এখন প্রযুক্তিই করছে বিয়ের ঘটকালি! বিভিন্ন শ্রেণির পাত্র-পাত্রীর খোঁজ মিলছে মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলোতে। এসব সাইটের পরিচালকদের সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন আতিফ আতাউর

১৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



অনলাইনে বিয়ের পাত্র-পাত্রী

একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করেন ইশমাত রিভু। পঞ্চগড়ে উচ্চ মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরিয়ে ইডেন কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। পড়াশোনা শেষ করে ঢাকায় একটি ব্যাংকে চাকরি হয় তাঁর। এরপর রিভুর জন্য পরিবার থেকে বিয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু গ্রামে থাকা মা-বাবা রিভুর শিক্ষা আর চাকরির সঙ্গে মিলিয়ে উপযুক্ত পাত্রই খুঁজে পাচ্ছিলেন না। শেষে এক বন্ধুর কথায় একটি মেট্রিমোনিয়াল সাইটে অ্যাকাউন্ট খোলেন রিভু। এখানে পেয়েও যান নানা শ্রেণি-পেশার হাজারো পাত্রের খবর। এরপর নিজেই প্রফাইলগুলো ঘেঁটে পছন্দের পাত্রপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিন সপ্তাহের মধ্যেই সেই প্রফাইলের পাত্রের সঙ্গে বিয়ে হয় রিভুর। ‘বিয়ের জন্য মা-বাবা, আত্মীয়স্বজন যখন উপযুক্ত পাত্র খুঁজে পাচ্ছিলেন না তখন একটু দুশ্চিন্তাই হচ্ছিল। আমারও পছন্দের কেউ ছিল না। শেষে মেট্রিমোনিয়াল সাইট থেকেই জীবনসঙ্গী খুঁজে নিলাম। আমার স্বামীও একটি ব্যাংকে চাকরি করে। দুজন তো আমাদের ভার্চুয়াল বিয়ের ঘটনা নিয়ে মজাও করি। বেশ ভালো আছি আমরা।’ খুশিমনেই নিজের অভিমত ব্যক্ত করলেন রিভু।   

তথ্য-প্রযুক্তি আমাদের অনেক কাজই সহজ করে দিয়েছে। বিয়েই বা বাদ থাকে কেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাত্র-পাত্রীর খোঁজা যেমন ঝক্কির, সময়সাপেক্ষ, তেমনি আছে নানা খরচের ব্যাপার। এসব ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতে বেশ কয়েক বছর ধরেই মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলো পাত্র-পাত্রীর খবর দিচ্ছে।

বাংলাদেশে মেট্রিমোনিয়াল ধারণাটি নতুন হলেও একেবারে অপরিচিত নয়। বেশ কয়েক বছর ধরেই কিছু প্রতিষ্ঠান ভার্চুয়ালি বিয়ের ঘটকালি করছে। এসব সাইটে এক ক্লিকেই পাওয়া যায় হাজারো পাত্র-পাত্রীর খবর। যে কেউ চাইলে পাত্র-পাত্রীর বয়স, শিক্ষা, চাকরি, ওজন, উচ্চতা, গায়ের রং, পছন্দ-অপছন্দ ইত্যাদি তথ্য ও ছবি দিয়ে সাইটের নির্দিষ্ট ফর্মে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এরপর সাইটগুলো থেকে প্রদত্ত তথ্য যাচাই-বাছাই করে পাসওয়ার্ড দেওয়া হয়। নির্দিষ্ট পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করলেই দেখা যায় সাইটে ঢুকে দেখা যায় বিভিন্ন পাত্র-পাত্রীর প্রফাইল। সুবিধাজনক পাত্র-পাত্রী এক ক্লিকে খুঁজে পেতে চাকরি, শিক্ষা, জেলার মতো বিভিন্ন ভাগ করা থাকে সাইটগুলোতে। এতে খুব সহজেই নিজের পছন্দমতো পাত্র-পাত্রীর খোঁজ পাওয়া যায়।

বিবাহবিডিডটকমের নির্বাহী পরিচালক জিএম ফ্রেজার বলেন, ‘সাধারণত শিক্ষিত গোষ্ঠীর মানুষই মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলোর মাধ্যমে পাত্র-পাত্রীর খোঁজ করেন। অনেকে সময় বাঁচাতে এ ধরনের সাইটের আশ্রয় নেন। আমরা প্রফাইলধারীদের তথ্য যাচাই-বাছাই করে তবেই অন্তর্ভুক্ত করি। মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলো শুধু পাত্র-পাত্রীর মধ্যে যোগাযোগের কাজটি করে। এরপরের কাজ দুই পক্ষকেই করতে হয়। তবে চাইলে মেট্রিমোনিয়াল সাইটটির সাহায্যও নিতে পারেন।’

তাসলিমা ম্যারেজ মিডিয়ার সিইও তাসলিমা আক্তার বলেন, ‘অনেকটা শখের বসেই শুরু করেছিলাম ২০১১ সালে। এরপর ভালো চাহিদা ও সাড়া পাই। ২০১৪ সালে অফিস নিয়ে যাত্রা শুরু করি। এখন অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসছেন এমন উদ্যোগ নিয়ে। নিরাপত্তা ও গোপনীয়তার স্বার্থে মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলোতে ব্যক্তিগত তথ্য ও ছবির প্রাইভেসি সেটিংস থাকে, যাতে তথ্য ও ছবি লক করে রাখা যায়। শুধু অনুমোদন দিলেই কেউ তা দেখতে পারেন। এতে ব্যক্তিগত তথ্য হাতছাড়া হওয়ার ভয় থাকে না। ফলে এখন অনেকেই ভরসা পাচ্ছেন এমন সাইটগুলোর আশ্রয় নিতে। আমাদের এখানে সেলফ সার্ভিস ও ম্যাচ মেকার দুইটা অপশনই আছে। অর্থ্যাত্ যাঁরা খুব ব্যস্ত, সাইটে ঢুঁ মারার সময় নেই, তাঁরা এই সুবিধাটা নিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে আমাদের একজন প্রতিনিধি প্রফাইলধারীর পার্টনার প্রেফারেন্স অনুযায়ী সিভি পাঠানোর কাজ করেন। অনুমোদন পেলে দুই পক্ষের মধ্যে মিটিং ফিক্স করে দেওয়ার মধ্যেই এই সার্ভিস সীমাবদ্ধ। এজন্য নির্দির্ষ্ট ফি দিতে হয়।’

মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলোতে প্রফাইল খুলতে বিভিন্ন মেয়াদে সাবস্ক্রিপশন নিতে হয়। তিন হাজার টাকা দিয়ে ৪৫ দিনের সাবস্ক্রিপশন যেমন পাওয়া যাবে, তেমনি আবার ছয় থেকে এক বছরের সদস্য পদের জন্য রয়েছে আলাদা আলাদা সার্ভিস চার্জ।

বরবধুডটকমের এমডি মঞ্জুরুল করিম বললেন, ‘২০০৭ সালে আমাদের যাত্রা শুরু। আমাদের সাইটে প্রতিদিন গড়ে ২০ থেকে ৩০ জন নিবন্ধন করেন বিয়ের পাত্র-পাত্রী খুঁজতে। সদস্য আছেন প্রায় এক লাখের উপরে। ফ্রি রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে যে কেউ পাত্র-পাত্রীর ছবি ও যোগ্যতা দেখতে পারে। এরপর পছন্দ হলে যোগাযোগ করতে চাইলে আমাদের সাহায্য নিতে পারেন।’

মেট্রিমোনিয়াল সাইটগুলোর দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, খুব বেশি খুঁতখুঁতে না হলে সাধারণত ৪৫ দিনের প্যাকেজের মধ্যেই বেশির ভাগ প্রফাইলধারীর বিয়ে হয়ে যায় এসব সাইটের মাধ্যমে। এসব সাইটের মাধ্যমে বর-বধূ যারা খুঁজে পান তাদের অনুমতি নিয়ে সেসব বিয়ের গল্পও শেয়ার করা হয়।

বাংলাদেশে মেট্রিমোনিয়াল সাইটের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে bibahabd.com , taslimamarriagemedia.com,biyeta.com ,sensiblematch.com ,borbodhu.com ,shadi.com.bd,bangladeshimatrimony.com,deshimatchmaking.com ,marriagematch.com ,badhonmatrimony.com ,marrigesoluionbd.com ,bridegroombd.com ,kabinbd.com প্রভৃতি।