kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

সুমাইয়া শিমুর ঈদ রেসিপি

রান্না নিয়মিত না করলেও রাঁধতে পছন্দ করেন অভিনয়শিল্পী সুমাইয়া শিমু। তাঁর রান্না পরিবারের সবাই খুব পছন্দ করে—জানালেন অভিনেত্রী। প্রতি ঈদেই প্রিয় কয়েকটি পদ রান্না করেন। এ টু জেডের পাঠকদের জন্য দিলেন নিজের পছন্দের দুটি রেসিপি।

১৯ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



সুমাইয়া শিমুর ঈদ রেসিপি

ছবি : আবু সুফিয়ান নিলাভ, লিখেছেন : আতিফ আতাউর

লকডাউন ঘোষণার পর থেকে বাসায়ই থাকছেন সুমাইয়া শিমু। লকডাউনের আগে ঈদের কিছু শপিং করেছিলেন। এরপর ঘরে বসে অনলাইনেই সেরে ফেলেছেন বাকি কেনাকাটার কাজ। বললেন, ‘লকডাউনের আগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করছিলাম। কিন্তু লকডাউনের ঘোষণায় এখন ঘরেই থাকছি। সংক্রমণ কমাতে সরকারের নির্দেশনাগুলো আমাদের প্রত্যেকেরই মানা উচিত।’
বাসায় থাকলেও বসে নেই তিনি। পরিচালকদের পাঠানো স্ক্রিপ্ট পড়ছেন। বন্ধুদের সঙ্গে ফোনে, ভিডিও কলে আড্ডা দিচ্ছেন। ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারণে শোবিজ থেকে দূরে ছিলেন কিছুদিন। সেসব সেরে আবার ফিরেছেন পছন্দের জগতে। এজন্যও অনেকেই ফোন দিয়ে শিডিউল জানতে চান। এসব নিয়ে লকডাউনেও ব্যস্ত সময় পার করছেন শিমু। ‘বেটার ফিউচার ফর উইমেন’ ও ‘বেটার ফিউচার ফর কমিউনিকেশন’ নামে দুটি সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক তিনি। সংগঠন দুটিতেও সময়

দিচ্ছেন। সারাদিন ঘরবন্দি থাকার অবসাদ কাটাতে প্রতিদিন ইয়োগা করেন। অবসরে চলচ্চিত্র, নাটক ও তথ্যচিত্র দেখেন। বাগান করতে খুব পছন্দ করেন শিমু। বিভিন্ন ধরনের ফুল ও ফল গাছে ভর্তি শিমুর বাগান। সকাল ও বিকেলের বেশ কিছুটা সময় কাটে সেখানে।
করোনাকালে বাসায়ই ঈদ করবেন। প্রতি ঈদে প্রিয়জনদের জন্য রান্না করেন। তাঁর রান্না করা খাবার পছন্দ করেন পরিবারের সবাই। বললেন, ‘রান্নাও একটা শিল্প। মনোযোগ না থাকলে খাবারের স্বাদ ও গুণাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই রান্নাটা মন দিয়ে করি। যারাই আমার রান্না করা খাবার খেয়েছে, প্রশংসা করেছে।’ এবার ঈদে কাচ্চি বিরিয়ানি ও তন্দুরি চিকেন করবেন।
শিমু বললেন, ‘ঈদের দিন একটু পর পর খাবার খাই আমি। এটাও আমার ঈদের আনন্দ। এ ছাড়া হালকা সেজেগুজে নতুন জামা পরি। এবার যেহেতু বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। বাসায়, ছাদে আর ইন্টারনেটের দুনিয়ায়ই ঘুরে বেড়াব।’

তন্দুরি চিকেন

উপকরণ
মুরগির মাংস ৫০০ গ্রাম, টক দই এক কাপের তিন ভাগের এক ভাগ, তেল ২ থেকে ৩ টেবিল চামচ, তন্দুরি চিকেন মসলা ২৫ গ্রাম, ইতালিয়ান পিত্জা সস ২/৩ টেবিল চামচ (যেকোনো সস দিতে পারেন), পেঁয়াজ রিং করে কাটা ১টি।

যেভাবে তৈরি করবেন
১.  মাংস ভালো করে ধুয়ে কাঁটা চামচ দিয়ে কেচে নিন।
২.  পেঁয়াজ বাদে সব উপকরণ দিয়ে মেরিনেট করে রাখুন ২ ঘণ্টা।
৩. ট্রেতে মসলাসহ ঢেলে মাইক্রোওভেনে গ্রিল অপশনে ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট রাখুন।
৪.  মসলা শুকিয়ে মাংসের গায়ে লেগে গেলে গ্রিল ট্রেতে দিন। তাহলে ভালোভাবে তাপ লেগে কম সময়েই হয়ে যাবে। না দিলেও সমস্যা নেই।
৫. পোড়া পোড়া হয়ে এলে নামিয়ে নিন।
 
পরিবেশন
সস দিয়ে সালাদ ও নানরুটি বা পোলাউ দিয়ে পরিবেশন করুন।

টিপস
১.  দুধ ঘন করে কুসুম গরম থাকতে ১ টেবিল চামচ লেবুর রস দিয়ে ৫ মিনিটে টক দই তৈরি করে নিতে পারেন।
২.  ইলেকট্রিক ওভেনে তৈরি করতে ১৮০ ডিগ্রিতে ২০ মিনিট বেক করে পরে ৪০ মিনিট ২১০ ডিগ্রিতে তন্দুরি চিকেন তৈরি করতে হবে।
৩. এটি গ্যাসের চুলায় ননস্টিক ফ্রাইপ্যানেও তৈরি করা যায়। সে ক্ষেত্রে চুলার আঁচ মৃদু থাকতে হবে।

কাচ্চি বিরিয়ানি

উপকরণ
মাংস মেরিনেট করার জন্য যা লাগবে
খাসির একটি রানের মাংস, লবণ ১ টেবিল চামচ, আদা বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা দেড় টেবিল চামচ, সাদা গোলমরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ, এলাচি গুঁড়া ১ চা চামচ, দারচিনি গুঁড়া ১ চা চামচ, জায়ফল ও জয়ত্রি গুঁড়া আধা চা চামচ করে, শুকনা মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, ঘি ৪ টেবিল চামচ, দুধ আধা কাপ, জাফরান একচিমটি, টক দই এক কাপ ও লবণ ১ চা চামচ।
বিরিয়ানির ভাত রান্নার জন্য
বাসমতী চাল ১ কেজি, তেজপাতা ২টি, লবঙ্গ ১ চা চামচ, দারচিনি ২টি, এলাচি ৫-৬টি ও লবণ স্বাদমতো।
বিরিয়ানির লেয়ারের জন্য
কাবাব চিনি ১ চা চামচ, শাহি জিরা আধা চা চামচ, কাঠবাদাম গুঁড়া ২ টেবিল চামচ, কিশমিশ আধা টেবিল চামচ, কেওড়া জল ১ টেবিল চামচ, বেরেশতা ১ কাপ, ঘি/মাখন/তেল ২ টেবিল চামচ, আলু ৪-৫ টুকরা, কাঁচা মরিচ ৫-৬টি, কালো এলাচি ২টি, আলুবোখারা ৫-৬টি ও ডো করা আটা বা ময়দা।

যেভাবে তৈরি করবেন


১.  খাসির মাংস ভালোমতো ধুয়ে নিন। একটি বড় পাত্রে পানি নিয়ে তাতে লবণ দিন। এই লবণ পানিতে মাংস ভিজিয়ে রাখুন ১ ঘণ্টা। এতে মাংস নরম হবে এবং লবণ ভেতরে ঢুকবে।
২.  এক ঘণ্টা পর মাংস তুলে নিয়ে কিচেন টিস্যু দিয়ে চেপে চেপে পানি নিংড়ে নিন।
৩. মাংসে একে একে আদা, রসুন, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া, এলাচি ও দারচিনি গুঁড়া, জায়ফল ও জয়ত্রি গুঁড়া এবং মরিচ গুঁড়া দিন। এরপর ঘি, দুধ, জাফরান, টক দই ও লবণ দিন। সব একসঙ্গে মেখে মেরিনেট করুন ২-৩ ঘণ্টা।
৪. এবার যে পাত্রে বিরিয়ানি রান্না হবে, সেই পাত্রে মাংস নিন। একে একে তেজপাতা, লবঙ্গ, দারচিনি, এলাচি, লবণ, কাবাব চিনি, শাহি জিরা, কাঠবাদাম গুঁড়া ও কিশমিশ দিন। এখন আলু ও মরিচ দিন। আলু আগেই সামান্য লবণ ও হলুদ দিয়ে হালকা ভেজে নিতে হবে।
৫. বিরিয়ানির ভাত তৈরি করতে অন্য একটি পাত্রে পরিমাণমতো পানি নিয়ে দারচিনি, লবঙ্গ ও তেজপাতা দিন। এবার এতে বাসমতী চাল দিয়ে সঙ্গে পরিমাণমতো লবণ দিন।
৬. ভাত আধা সিদ্ধ হলে নামিয়ে যে পাত্রে মাংস রাখা হয়েছে তার ওপর গরম বাসমতী ভাতটা বিছিয়ে দিন। তারপর একে একে ঘি, কেওড়া জল, তরল দুধ, কাঁচা মরিচ, আলুবোখারা ও জাফরান দিয়ে ঢেকে দিন।
৭. এবার আগে তৈরি করে রাখা ডো দিয়ে পাত্রের চারদিক আটকে দিন। কোনো দিক যেন খোলা না থাকে।
৮. প্রথম ১০ মিনিট একটু বেশি আঁচে, তারপর ৩০-৪০ মিনিট কম আঁচে চুলায় রাখুন।