kalerkantho

ফ্যাশন

ফাগুন দিনের সাজ

বছর ঘুরে চলে এলো আরেক ফাগুন। বাঙালির একান্ত এ উত্সবে সাজটাও হওয়া চাই মনমতো। ত্বকের যত্নে কী করবেন, সাজ আর চুলের বাঁধনই বা কেমন হবে? সব কিছুর প্রস্তুতি নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন এভারগ্রিন অ্যাডামস অ্যান্ড ইভ বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ নাহিদ আফরোজ তানি। লিখেছেন জেনিফার ডি প্যারিস

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ফাগুন দিনের সাজ

ত্বক চাই সতেজ

এই সময়টা মূলত ঋতু পরিবর্তনের সময়, তাই তাপমাত্রা ওঠানামা করে স্বাভাবিকের চেয়ে অন্যভাবে। বিশেষ করে প্রভাব পড়ে ত্বকে। অনেকেই ব্রণ, ত্বকের জ্বালাপোড়া, চুলকানির মতো সমস্যায় পড়েন গরম শুরু হওয়ার আগেই। এ ক্ষেত্রে শুরুতেই শীতে ব্যবহার করা ময়েশ্চারাইজার ক্রিমটি বদলে ফেলতে হবে। গরম যেহেতু চলেই এসেছে, তাই এখন থেকেই শুরু করুন সানব্লকের ব্যবহার। শীতে বিয়ের মৌসুম, তাই অনেকেরই ভারি মেকআপ নিতে হয়। বিয়ের অনুষ্ঠানে সাজগোজের ফলে ত্বকের ওপর পড়ে বাড়তি চাপ। তাই ফাল্গুন উত্সবের আগেই ত্বককে সজীব ও সতেজ করে তুলতে কুইক ফেসিয়াল মাস্ট!

কেমন হবে সাজ

ফাল্গুন হোক কিংবা বৈশাখ, উত্সবে বাঙালি নারীর প্রথম পছন্দ শাড়ি। শাড়ি নির্বাচনের বেলায় সুতির পাশাপাশি টিস্যু, কোটা, জামদানি এমনকি জর্জেট আর শিফনও চলে আজকাল। তবে রঙের বেলায় ফাল্গুনের ফ্যাশন কিন্তু এখন আর হলুদে আটকে নেই। হালকা সবুজ, গোলাপি বা উজ্জ্বল গোলাপি, কমলা সবই ঋতুরাজ বসন্তকে স্বাগত জানাতে চলনসই। আর যেহেতু ফাল্গুনের পরের দিনই বিশ্ব ভালোবাসা দিবস, তাই শাড়িতে লাল রংও মন্দ নয়।

অনেকে সারা দিন ঘোরাঘুরির জন্য শাড়ির বদলে বেছে নেন সালোয়ার-কামিজ, জিন্স টপস কিংবা কুর্তির মতো পোশাক। পশ্চিমা পোশাকে বাঙালির উত্সব উদ্যাপন করে ফিউশন স্টাইল করতে ভালো লাগে অনেকেরই। এ ক্ষেত্রেও উজ্জ্বল রংগুলোর প্রাধান্য থাকে সবচেয়ে বেশি।

মেকআপের বেলায়ও ফিউশনই এবারের ট্রেন্ড। আগের মতো টেনে আইলাইনার দেওয়ার প্রচলন এবার একটু কম; বরং সাজের বেলায় স্মোকি আই লুকের দিকেই ঝুঁকছেন ফ্যাশনসচেতন মেয়েরা। তবে উত্সবের দিন নিয়ম মেনে চলতে হবে এমন কোনো কথা নেই, তাই স্মোকি আইয়ের সঙ্গে ঠোঁটে কোনো উজ্জ্বল রং লাগানো যেতেই পারে। সব ক্ষেত্রেই যে সাজ আপনাকে মানায় তা অনুসরণ করুন।

চুলে থাকুক ফুল 

ফাল্গুনের মতো উত্সবে চুলের স্টাইল পোশাকের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। এ সময়টা ইচ্ছামতো ফুল দিয়ে চুল সাজানোর সময়। বসন্তের প্রথম দিনে গাঁদা ফুলের কদর তো থাকেই, তবে আজকাল স্টাইলে নতুনত্ব আনতে অন্যান্য ফুলের দিকেও হাত বাড়াচ্ছেন মেয়েরা। কসমস, গোলাপ, কাঁঠালচাঁপা থেকে শুরু করে নানা রঙের অর্কিড ফুলও শোভা পাচ্ছে নারীদের চুলে। রঙের বেলায় যেমন পোশাকে দেখা যাচ্ছে ভিন্নতা, তেমনি নজর কাড়ছে বৈচিত্র্যময় ফুলের ব্যবহার। তাজা ফুলের সঙ্গে নজর কাড়বে প্লাস্টিক, কাপড় বা কাগজের ফুলও।

হেয়ারস্টাইলের ক্ষেত্রে শাড়ির সঙ্গে খোঁপাকেই সবচেয়ে বেশি মানায়, সাধারণ হাতখোঁপা করে পছন্দের ফুল দিয়ে সাজিয়ে নিন চুল। আজকাল একপাশে ঢিলেঢালা বেণিও খুব মানায়, বেণিতে ছোট ছোট ফুল গুঁজে নিতে পারেন। সালোয়ার-কামিজ, কুর্তি কিংবা জিন্স-টপসের সঙ্গে সাধারণত চুল খোলাই ভালো লাগবে। আর ফুল পরতে ইচ্ছা হলে একপাশে বেশির ভাগ চুল সরিয়ে কানে ফুল গুঁজে নিন। মাথার সামনের অংশের চুল নিয়ে দুই পাশে দুটি বেণি করে নিন, নিচের অংশে বেশির ভাগ চুল খোলা থাকুক। এবার বেণি দুটি পেছনে নিয়ে বাঁধুন, বেণিতে গুঁজে নিন হরেক রকমের ফুল। এই স্টাইলটি সালোয়ার-কামিজ ও কুর্তির সঙ্গে দারুণ মানায়। অনেকে আজকাল ফুলের মালা বানিয়েও মাথায় মুকুটের মতো পরেন। পাঞ্চ ক্লিপ দিয়ে চুল পেঁচিয়ে একটু ঢিলেঢালাভাবে আটকে নিন, কিছুটা চুল এলোমেলো করে ঘাড়ে আর কানের পাশে ফেলে রাখুন, হয়ে গেল মেসি বান। এবার পছন্দমতো ফুল গুঁজে নিন চুলে। 

যেহেতু ফাল্গুনের উত্সবে পোশাক আর ফুলের দিকেই প্রাধান্য থাকে বেশি, তাই গয়না একটু কমই পরা হয়। ফুল দিয়ে চুল সাজালে নজর রাখুন সেদিকেই, তবে গলা, কান খালি না রেখে পরে নিন ছোট কোনো কানের দুল কিংবা চিকন চেইন। মনে রাখবেন, চুলে ফুল দিয়ে সাজতে চাইলে অতিরিক্ত গয়না না পরাই ভালো। হাতে রঙিন কাচের চুড়ি ছাড়াও থাকতে পারে ছোট আংটি, আর পায়ে পরে নিন নূপুর। 

মন্তব্য