kalerkantho

সোমবার । ২২ আষাঢ় ১৪২৭। ৬ জুলাই ২০২০। ১৪ জিলকদ  ১৪৪১

চতুর্থ শ্রেণি
বিজ্ঞান

পদার্থ ও ওজন

চতুর্থ শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের ষষ্ঠ অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে পদার্থ, ওজন ও বাতাস নিয়ে। আর তা নিয়ে সংক্ষেপে আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর তৈরি করেছেন নূসরাত জাহান

২৮ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পদার্থ ও ওজন

আমাদের চারপাশে যা দেখতে পাই তা-ই পদার্থ। যেমন—বই, খাতা, পত্রিকা, চেয়ার, গাছপালা ইত্যাদি। প্রত্যেক বস্তু কোনো না কোনো পদার্থ দিয়ে তৈরি। মানে একটা পদার্থ দিয়ে আমরা আরেকটা বস্তু তৈরি করতে পারি। যেমন—চেয়ার কাঠ দিয়ে বানানো হয়। পদার্থ কয়েকটি অবস্থায় থাকতে পারে। যেমন—তরল, কঠিন, বায়বীয় বা গ্যাসীয়। তবে অবস্থা যেমনই হোক না কেন, পদার্থ হতে হলে ওটাকে নির্দিষ্ট আয়তন দখল করতেই হবে।

 

         কঠিন পদার্থের নির্দিষ্ট আকার থাকে, আয়তন ও ওজন থাকে। যেমন—বই।

         তরল পদার্থের নির্দিষ্ট আকার থাকে না। তবে আয়তন, ওজন থাকে। যে পাত্রে রাখা হয় সেই পাত্রেই আকার ধারণ করে। যেমন—পানি।

         গ্যাসীয় পদার্থের নির্দিষ্ট আকার নেই। যেমন—বাতাস ও রান্না করার গ্যাস।

         কঠিন পদার্থের আয়তন ঘন সেন্টিমিটার বা মিটার এককে মাপা হয়।

         তরল পদার্থ মাপার জন্য লিটার বা মিলিলিটার একক ব্যবহার করা হয়।

         পানি আবার তিন অবস্থায় থাকতে পারে—কঠিন, তরল ও বাষ্প (বায়বীয়)।

         কোনো পদার্থ যে পরিমাণ জায়গা দখল করে তাকে আয়তন বলে।

         কোনো বস্তুর ওজন মাপার জন্য দাড়িপাল্লা, নিক্তি ব্যবহার করা হয়।

         আমরা সাধারণত ওজনকে কেজি বা গ্রামে প্রকাশ করি। অবশ্য এটা দিয়ে বস্তুর মোট পরিমাণ বোঝায়, ওজন নয়। ওজনের এককের নাম হলো নিউটন। এ সম্পর্কে তোমরা পরের ক্লাসে আরো জানতে পারবে।

         বায়ু বা গ্যাসীয় পদার্থ চোখে দেখা না গেলেও এরা পদার্থ। কারণ এরা জায়গা দখল করে থাকে।

বায়বীয় বস্তুর ওপরও চাইলে বসে থাকা যায়। কিভাবে? একটা বেলুন ফুলিয়ে তার ওপর বসলেই হলো!

ওজন

ওজন বলতে তুমি কী বোঝো? কোন বস্তু কতটা ভারী? এমনটা ভাবতেই পারো। তবে ওজন বিষয়টা আরেকটু জটিল। আমাদের পৃথিবী তার চারপাশের সমস্ত বস্তুকেই নিজের পেটের দিকে (মানে কেন্দ্র) অনবরত টানছে। যার কারণে লাফ দিলে আমরা আবার মাটিতেই নেমে আসি। এ টানকে বলে অভিকর্ষ টান। মূলত এ টানের কারণেই কোনো বস্তুর ওজন আমরা অনুভব করতে পারি।

মহাকাশে গেলে কিন্তু এ টান আর থাকবে না। রকেটে চড়ে তুমি যদি আমাদের কক্ষপথে ঘুরতে থাকা আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে চলে যাও, তবে একটা বিচিত্র পরীক্ষা করে দেখতে পার। এ পরীক্ষার জন্য লাগবে একটা দাড়িপাল্লা। দাড়িপাল্লার এক পাশে বড় একটা লোহার বল আর অন্যপাশে একটা কাপড়ের বল রাখলে। কী ঘটবে? লোহার বল যেদিকে, সেদিকটা নিচে নেমে যাবে? মোটেও না। পাল্লার কোনো প্রান্তই হেলে পড়বে না। মনে হবে যেন লোহার বল আর কাপড়ের বলের ওজন একই। আসল কথা হলো কক্ষপথে অভিকর্ষ টান কাজ করে না বলে সেখানে সব কিছুই ওজনহীন হয়ে যায়। তাই ওজন মাপতে হলে বস্তুকে পৃথিবীতে থাকতে হবে। অবশ্য বস্তু যেখানেই থাকুক না কেন, সেটা কিন্তু আয়তনে ছোট-বড় হবে না। ভেতরের সমস্ত কিছু সমান থাকবে। কোনো বস্তুর ভেতরের সব কিছু মিলে যা থাকে, সেটাকে বলে ভর। এ নিয়ে পরের ক্লাসে তোমরা আরো বিস্তারিত জানবে।

 

প্রশ্নোত্তর

         পদার্থ কাকে বলে?

            উত্তর : কোনো জিনিসের আকার, আয়তন, ওজন থাকলে তাকে পদার্থ বলে।

         পদার্থের বৈশিষ্ট্যগুলো কী?

            উত্তর : আয়তন, আকার, ওজন।

         পদার্থ কয় ধরনের?

            উত্তর : কঠিন, তরল ও বায়বীয়।

         কোন পদার্থের নির্দিষ্ট আকার নেই?

            উত্তর : তরল ও বায়বীয় পদার্থের।

         তরল পদার্থের দুটি উদাহরণ দাও।

            উত্তর : পানি, ফলের রস।

         কঠিন পদার্থের আয়তন মাপার একক কী?

            উত্তর : ঘন সেন্টিমিটার বা ঘনমিটার।

         তরল পদার্থ মাপার একক কী?

            উত্তর : মিলিলিটার ও লিটার।

         চাপ প্রয়োগে বাধা প্রদান করে, এ বৈশিষ্ট্য কার?

            উত্তর : বায়বীয় পদার্থের।

         বস্তুর ওজন বলতে কী বোঝো?

            উত্তর : কোনো বস্তুর ওপর পৃথিবীর কেন্দ্রের টান। যত জোরে টানবে ওজন তত বেশি অনুভূত হবে।

মন্তব্য