kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

স্বপ্নের রূপায়ণ সিটি উত্তরা

৩১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বপ্নের রূপায়ণ সিটি উত্তরা

আবাসন খাতের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান রূপায়ণ গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম আবাসন প্রকল্প ‘রূপায়ণ সিটি উত্তরা’। এটি একটি প্রিমিয়াম মেগা গেইটেড কমিউনিটি। বিস্তারিত জানাচ্ছেন জুবায়ের আহমেদ

আবাসনের ক্ষেত্রে গেইটেড কমিউনিটি বর্তমানে একটি সম্প্রসারণশীল খাত। আবাসন শিল্পের একটি আধুনিক সংস্করণ। এ ব্যবস্থায় গ্রাহকদেরকে সুস্থ, সুন্দরভাবে বসবাসের জন্য সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হয়। বর্তমানে নগরায়ণের ক্ষেত্রে নিরাপদ বাসস্থানের জন্য সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হয়ে উঠেছে গেইটেড কমিউনিটি। উত্তরায় ১৪০ বিঘা জমির ওপর ঢাকার প্রথম মেগা গেইটেড কমিউনিটি রূপায়ণ সিটি উত্তরা। এটিতে রয়েছে উন্মুক্ত পরিবেশ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি ক্লাব, হাসপাতাল, পার্ক, বারবিকিউ জোন, ইনডোর গেইমস জোন, বিপণিবিতান, তারকা হোটেল ও সার্বক্ষণিক নিরাপত্তাব্যবস্থা। প্রতিটি শিশুর শারীরিক, মানসিক ও বুদ্ধির বিকাশে খেলাধুলার ভূমিকা অনস্বীকার্য! আর এ জন্যই ঢাকার একমাত্র প্রিমিয়াম মেগা গেইটেড কমিউনিটিতে রয়েছে দুই বিঘার সবুজ মাঠ। আরো রয়েছে সাত কিলোমিটার বিস্তৃত দেশের সবচেয়ে বড় জগিং ট্র্যাক, যেখানে অনায়াসেই জগিং করে বসবাসকারীরা শরীর ফিট রাখতে পারবেন। অর্থাৎ আধুনিক জীবনযাপনের সব সুযোগ-সুবিধা রয়েছে এই মেগা গেইটেড কমিউনিটিতে।

 প্রকল্পটির মোট চারটি ফেইজের মধ্যে তিনটি আবাসিক এবং একটি বাণিজ্যিক। গ্র্যান্ড, মেজিস্টিক ও স্কাই ভিলা নামক আবাসিক ফেইজের প্রতিটিতে রয়েছে কর্নার শপ, আন্তর্জাতিক মানের স্কুল এবং খেলার মাঠ।

রূপায়ণ ম্যাক্সাস নামে গড়ে তোলা হচ্ছে আন্তর্জাতিক মানের দেশের সেরা শপিংমল। রেগুলার ফ্ল্যাট থেকে শুরু করে ডুপ্লেক্সসহ সব ধরনের ফ্ল্যাট পাবেন এই মেগা গেইটেড কমিউনিটিতে। অর্থাৎ বাংলাদেশেই বিশ্বমানের লাক্সারি লাইফ। অন্যদিকে এই আবাসন প্রকল্পটিতে থাকবে নিজস্ব অগ্নিনির্বাপক দল, বর্জ্য ও পয়োপরিশোধনাগার, ২৪ ঘণ্টা পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের ব্যবস্থা। প্রকল্পটিতে প্রায় ৬৩ শতাংশ খালি জায়গা রয়েছে। ফলে বসবাসকারীরা খোলামেলা মুক্ত পরিবেশ পাবেন। রূপায়ণ সিটি উত্তরা ছাড়াও রূপায়ণের রয়েছে বেশ কিছু লাক্সারিয়াস আবাসিক ও বাণিজ্যিক প্রকল্প।

রূপায়ণ হাউজিং এস্টেটই দেশের প্রথম স্যাটেলাইট টাউনশিপের ধারণা নিয়ে আসে। মতিঝিল থেকে মাত্র ১০ মিনিটের দূরত্বে, সাইনবোর্ডের সন্নিকটে দেশের প্রথম পরিকল্পিত টাউনশিপ প্রকল্প রূপায়ণ টাউন। এখানে বর্তমানে ৭৮৪টি পরিবার বসবাস করছে। যার মধ্যে ৩০০টি বিদেশি পরিবার রয়েছে। এই টাউনশিপের দ্বিতীয় ফেইজের কাজও চলছে দ্রুতগতিতে। টাউনশিপের পাশাপাশি রূপায়ণ কন্ডোমিনিয়াম প্রজেক্টেও ঈর্ষণীয় সাফল্য পেয়েছে। ঢাকার প্রাণকেন্দ্র সিদ্ধেশ্বরীতে রূপায়ণ নির্মিত প্রকল্প ‘রূপায়ণ স্বপ্ন নিলয়’ একটি সত্যিকারের কন্ডোমিনিয়াম প্রকল্প। এই প্রকল্পের সফলতার পরে রূপায়ণ গ্রুপ বসুন্ধরার বুকে তৈরি করছে আরেকটি কন্ডোমিনিয়াম প্রকল্প রূপায়ণ লেক ক্যাসেল।

বিস্তারিত জানতে কল করুন ১৬৫০৪ নম্বরে।

মন্তব্য