kalerkantho


১১ হাজার ভোল্টেজের তার ছিঁড়ে একজনের মৃত্যু, আহত ৩

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



রংপুরের বদরগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের ১১ হাজার ভোল্টেজের তার ছিঁড়ে পড়ে লাল্টু মিয়া (৩৫) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন তিনজন। এ ছাড়া দুটি গরু ও একটি ছাগল মারা গেছে। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে দুর্ঘটনাটি ঘটে পৌর শহরের শংকরপুর বিলপাড়ায়। আহতদের উপজেলা ও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, প্রচণ্ড গরমের কারণে রাতে লোকজন ঘরের বাইরে বসে বিশ্রাম নিচ্ছিল। তখন হঠাৎ পল্লী বিদ্যুতের ১১ হাজার ভোল্টেজের তার ছিঁড়ে পড়ে মাটিতে। লোকজন নিজ নিজ বাড়ির মেইন সুইচ বন্ধ করতে ছুটে যায়। মেইন সুইচে হাত দিতেই অনেকে শর্ট সার্কিটের কবলে পড়ে। বাড়ির সুইচ বন্ধ করতে গিয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে গুরুতর আহত হন হাফেজ আলীর ছেলে লাল্টু মিয়া, তারাজুল ইসলাম (৫০), তাঁর স্ত্রী রাহেলা বেগম (৪০) ও প্রতিবেশী বোন সেভেনা আক্তার (১৮)। তাঁদের তাৎক্ষণিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লাল্টুকে মৃত ঘোষণা করেন। তারাজুল ও রাহেলাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২-এর বদরগঞ্জ জোনাল অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মো. হামিদুল হক বলেন, ‘এটি দুর্ঘটনামাত্র। ১১ হাজার ভোল্টেজের কেবলগুলো একটু পুরনো। এ কারণে হয়তো ছিঁড়ে পড়তে পারে। হতাহতদের জন্য আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি।’

বদরগঞ্জ থানার ওসি আনিছুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেনি।

বিদুৎস্পর্শে মৃত্যু

এদিকে ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানান, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার মহেন্দ্রগাঁও গ্রামে শনিবার সকালে মানিক হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তি বিদুত্স্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন। মানিক মহেন্দ্রগাঁও গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মানিক নিজ বাড়িতে টেবিল ফ্যানের সুইচ অন করতে সুইচ বোর্ডে হাত দেওয়া মাত্র তাঁর হাত আটকে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। হরিপুর থানার ওসি রুহুল কুদ্দুস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।



মন্তব্য