kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গেইম

অপরাধ সাম্রাজ্যের মানচিত্র

সামীউর রহমান   

২২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



অপরাধ সাম্রাজ্যের মানচিত্র

ইতালির নিরীহ জলপাই তেলের ব্যবসায়ী পরিবারগুলো কিভাবে নিউ ইয়র্কের আন্ডারওয়ার্ল্ডের দখল নিয়েছিল, গডফাদার ছবিতে সেই গল্প বলে গেছেন মারিও পুজো। কত ছবি ও গল্পে যে উঠে এসেছে মাফিয়াদের রোমহর্ষক কর্মকাণ্ড! মাফিয়া ৩ এমনই এক গেইম, যেটা খেলতে হলে কলজেতে জোর থাকা চাই।

গল্পটা ফেলা হয়েছে ষাটের দশকের শেষ দিকের সময়ে আমেরিকার এক কাল্পনিক শহর নিউ বোর্দোতে, যদিও আভাসেই বোঝা যায় সেটা আসলে নিউ অরলিন্স। কৃষ্ণাঙ্গ অনাথ কিশোর লিঙ্কন ক্লে, আক্ষরিক অর্থেই যে বাপে তাড়ানো মায়ে খেদানো। সেই কিশোরের শহরের অপরাধজগতের মুকুটহীন সম্রাট হয়ে ওঠার পথের নির্মম প্রতিশোধের গল্পই বলে মাফিয়া ৩।

শুরুতে কৃষ্ণাঙ্গ পাদ্রি ফাদার জেমসের বয়ানে জানা যায়, ছোটবেলাতেই লিঙ্কনের মা ফেলে চলে যায় তাকে। মা ছিল কৃষ্ণাঙ্গ, বাবা খুব সম্ভবত ইতালিয়ান। তারপর থেকে গির্জার অনাথ আশ্রমে মানুষ হতে থাকা লিঙ্কনের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে কৈশোরে, যখন অর্থের অভাবে গির্জা কর্তৃপক্ষ বন্ধ করে দেয় অনাথ আশ্রম। অভাবের তাড়নায় স্থানীয় কৃষ্ণাঙ্গ গুণ্ডাদের দলে মিশে যাওয়া লিঙ্কনের অপরাধে হাতেখড়ি তখনই। ভিয়েতনাম যুদ্ধে বাধ্যতামূলক যোগদান করতে হয় তাকে, মার্কিন আইন যে তাই ছিল। স্পেশাল ফোর্সের যোদ্ধা হিসেবে অস্ত্র চালনায় চার বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে ফেরার পর লিঙ্কন গায়ে-গতরে আর নৈপুণ্যে আরো পরিণত ও পোড়খাওয়া। এরপর আবার অপরাধের স্রোতে মিশে যাওয়া। সেখানে বিশ্বাসঘাতকতা, মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা এবং প্রতিশোধ। এভাবেই লিঙ্কনের জীবনের পরতে পরতে ষাটের দশকের মার্কিন শহরগুলোর গ্যাংওয়ার আর বিভাজন দেখিয়েছে টুকে গেইমস।

মাফিয়া ৩-এর প্রাণ এর চরিত্রগুলোর অসাধারণ সব সংলাপ আর নিখুঁত চিত্রায়ণ। ফাদার জেমসের চেহারার ভাঁজ কিংবা যুদ্ধফেরত লিঙ্কনের মুখের কাটাছেঁড়া দাগগুলো এত নিখুঁত যে মনেই হয় না এনিমেশন। গেইমকে এগিয়ে নিয়ে যায় এর গল্প, সংলাপে ভর করে। অস্কারজয়ী ছবির চিত্রনাট্যের মতোই সংলাপ গেইমের, চরিত্রগুলো কণ্ঠে আছে নিষ্ঠুর কিছু রসিকতাও। তাতেই বোঝা যায়, প্রতিনিয়ত আইনের সঙ্গে ইঁদুর-বেড়াল খেলে বেপরোয়া জীবন বাজি রাখা মানুষগুলোর জীবনেও আছে কষ্ট আর বঞ্চনার ক্ষোভ।

গল্প এগিয়ে চলে নানা ঘটনাপ্রবাহে। ব্যাংক ডাকাতি, গ্যাংওয়ার, প্রবঞ্চনা, বেঁচে ফেরা এবং নির্মম প্রতিশোধ...মোটা দাগেই এই হলো স্টোরিলাইন। তবে গল্পের প্রতিটা বাঁকই অপ্রত্যাশিত ও রোমাঞ্চকর। গানপ্লেই মূল আকর্ষণ, হরেক রকমের বন্দুকবাজি ুকরেই কায়েম করতে হবে ত্রাসের রাজত্ব। সঙ্গে মুঠোর ওজনটাও কম নয়, নামের শেষে ক্লে লাগিয়ে সেটাই কি বোঝাল দুকে গেইমস! গোটা গেইমেই বক্সিং জগতের অনেকের নামের মিল; লিঙ্কন ক্লে, স্যাল মারকানো যেন মনে করিয়ে দেয় ক্যাসিয়াস ক্লে আর রিকি মার্সিয়ানোকে।

রোল প্লেইং অ্যাকশন ধাঁচের গেইমটিকে দুর্বলতা হিসেবে আছে কিছু কারিগরি ত্রুটি, একঘেয়ে কিছু ফিলারমিশন আর দ্রুত এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার ব্যবস্থা না থাকা। ভালো দিকগুলো হচ্ছে অসাধারণ ক্যারেক্টার ডিটেইল, গ্রাফিকস আর বিশাল মানচিত্র। সেই সঙ্গে অপরাধজগতের ব্যবসা চালানোর কায়দাকানুন যোগ করাটাও নতুন ফিচার।

সব মিলিয়ে হতাশ করবে না মাফিয়া ৩। বিশেষ করে যারা একটু বাস্তবঘেঁষা গেইম পছন্দ করেন, স্পেসশিপে চড়ে এলিয়েন ধাওয়া করাটা যাদের নাপছন্দ তাদের নিশ্চয়ই ভালো লাগবে এই গেইম। আর বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে ক্ল্যাসিক মডেলের কিছু গাড়ি চালানোটা তো থাকছেই!

 

খেলতে হলে লাগবে

উইন্ডোজ সেভেন ৬৪ বিট

ইন্টেল কোরআই ৫ ২৫০০ গিগাহার্জ প্রসেসর

৬ গিগাবাইট র‍্যাম

এটিআই এইচডি ৭৮৭০/এনভিডিয়া জিটিএক্স ৬৬০ গ্রাফিকস কার্ড

ভিডিও মেমোরি ২ গিগাবাইট

হার্ডডিস্কে ৫০ গিগাবাইট ফাঁকা জায়গা

 

যারা খেলতে পারবে

১৭ বছর +


মন্তব্য