kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়ার চূড়ান্ত অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়ার চূড়ান্ত অনুমোদন

মোবাইল ফোন অপারেটর রবি ও এয়ারটেলের একীভূত হওয়ার বিষয়ে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। গতকাল মঙ্গলবার বিটিআরসির বৈঠকে কিছু শর্তসহ এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান দুটির একীভূত হওয়ার সব প্রক্রিয়া শেষ হলো। এখন দুই অপারেটর নির্ধারিত মাসুল ও ফি দিয়ে একীভূত হবে। বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ জানিয়েছেন, ভলান্টারি রিটায়ারমেন্ট স্কিমের (ভিআরএস) আওতায় যাঁরা রবি ও এয়ারটেল থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেবেন তাঁদের চার মাসের মূল বেতন দিতে হবে।

গত ১ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ দুই মোবাইল ফোন অপারেটরের একীভূত হওয়ার প্রস্তাব অনুমোদন করেন। এ ক্ষেত্রে তিনি একীভূত ফি, তরঙ্গ চার্জ ও অন্যান্য শর্ত সম্পর্কে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রস্তাব অপরিবর্তিত রাখেন। গত ১৩ জুলাই প্রতিষ্ঠান দুটির জন্য একীভূত বা মার্জার ফি হিসেবে ১০০ কোটি টাকা এবং স্পেকট্রামের জন্য ৫০৭ কোটি টাকা নির্ধারণ করে অর্থ মন্ত্রণালয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রস্তাব অনুমোদন করে। এ ক্ষেত্রে রবি যদি এয়ারটেলের পাঁচ মেগাহার্জ টুজি স্পেকট্রাম ফেরত দেয় তাহলে এ টাকার পরিমাণ আরো কমে আসবে। সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা হিসাব করে দেখিয়েছেন, পাঁচ মেগাহার্জ স্পেকট্রাম ফেরত দিলে রবিকে এয়ারটেলের স্পেকট্রামের জন্য ১৩৮ কোটি টাকা পরিশোধ করতে হবে। সব মিলিয়ে পরিশোধ করতে হবে ২৩৮ কোটি টাকা।   

রবির মালিকানা মালয়েশিয়া ভিত্তিক আজিয়াটা গ্রুপের। এয়ারটেলের মালিক ভারতের ভারতী এয়ারটেল। গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর দুই কম্পানির পক্ষ থেকে বাংলাদেশে ব্যবসায়িক কার্যক্রম একীভূত করার সম্ভাবনার বিষয়ে একান্ত আলোচনা শুরুর ঘোষণা দেওয়া হয়। গত ২৮ জানুয়ারি রবি ও এয়ারটেলের কার্যক্রম একীভূত করতে আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়।


মন্তব্য