kalerkantho


পবিত্র কোরআনের আলো । ধারাবাহিক

ইহুদিদের দুইবার বিপর্যস্ত হওয়ার ভবিষ্যদ্বাণী

২১ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



ইহুদিদের দুইবার বিপর্যস্ত হওয়ার ভবিষ্যদ্বাণী

৪. আর আমি কিতাবে বনি ইসরাঈলকে বলে দিয়েছিলাম, নিশ্চয়ই তোমরা পৃথিবীতে দুইবার বিপর্যয় সৃষ্টি করবে। এবং তোমরা অতিশয় অহংকারস্ফীত হবে। [সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৪ (দ্বিতীয় পর্ব)]

তাফসির : আলোচ্য আয়াতে আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণের অশুভ পরিণতি সম্পর্কে বনি ইসরাঈলের দুটি ঘটনা উল্লেখ করা হয়েছে। বনি ইসরাঈল তথা ইহুদিদের সম্পর্কে তাওরাত বা ইসরাঈল বংশীয় অন্য নবীদের সহিফায় বর্ণিত ছিল যে তারা দুইবার সীমা লঙ্ঘন করবে এবং তার জন্য সমুচিত শাস্তি পাবে। প্রথমবার খ্রিস্টপূর্ব ৫৮৬ সালে ব্যাবিলনের অধিপতি বুখত নাসর ও দ্বিতীয়বার ৭০ খ্রিস্টাব্দে রোমান সম্রাট তিতাউস তাদের নির্বিচারে হত্যা করে এবং তাদের ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত করে।

মুসা (আ.)-এর ইন্তেকালের পর বনি ইসরাঈল যখন ফিলিস্তিনে প্রবেশ করে তখন সেখানে বিভিন্ন জাতি বাস করত। হিত্তি, আম্মাত্তরি, কেনানি, ফিরিজজি, ইয়াবুসি, ফিলিস্তি ইত্যাদি। এসব জাতি শিরকে লিপ্ত ছিল। এদের সবচেয়ে বড় উপাস্যের নাম ছিল ‘ঈল’। একে তারা বলত দেবতাদের পিতা। সাধারণত তারা একে ষাঁড়ের সঙ্গে তুলনা করত। তার স্ত্রীর নাম ছিল ‘আশিরাহ’। তার গর্ভজাত সন্তানদের থেকে ঈশ্বর ও ঈশ্বরীদের একটি বিশাল বংশধারা শুরু হয় বলে তারা বিশ্বাস করত। তাদের যেসব দেবতা ছিল, তার মধ্যে কিছু ছিল মৃত্যুর দেবতা, কিছু ছিল স্বাস্থ্যের দেবী, আবার কোনো কোনো দেবতা দুর্ভিক্ষ ও মহামারির আবির্ভাব ঘটাত। ওই সব দেব-দেবীকে এমন গুণে গুণান্বিত করা হয়েছিল যে সমাজের সবচেয়ে নিকৃষ্ট ব্যক্তিও তাদের সঙ্গে নিজের নাম জড়িয়ে পরিচিতি লাভ করা পছন্দ করত না। অন্যদিকে সেসব জাতি নৈতিকতার দিক থেকেও নিকৃষ্ট স্তরে নেমে গিয়েছিল। প্রাচীন ধ্বংসাবশেষ খনন করার পর তাদের অবস্থার যে চিত্র আবিষ্কৃত হচ্ছে, তা তাদের জঘন্য ধরনের নৈতিক অধঃপতনের সাক্ষ্য দেয়। শিশু বলিদান তাদের সমাজে সাধারণ প্রথায় পরিণত হয়েছিল। তাদের উপাসনালয়গুলো ব্যভিচারের আড্ডায় পরিণত হয়েছিল। মেয়েদের দেবদাসী বানিয়ে উপাসনালয়গুলোতে রাখা এবং তাদের দিয়ে ব্যভিচার করানো উপাসনার অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। এ ধরনের আরো বহু চরিত্র-বিধ্বংসী কাজ তাদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছিল। তাওরাতে মুসা (আ.)-এর মাধ্যমে বনি ইসরাঈলকে যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল, তাতে পরিষ্কার বলে দেওয়া হয়েছিল, তোমরা ওই সব জাতি থেকে ফিলিস্তিন অধিকৃত করে নেবে এবং তাদের সঙ্গে বসবাস করা থেকে দূরে থাকবে। পাশাপাশি তাদের নৈতিক পদস্খলন ও বিশ্বাসগত ত্রুটিগুলো এড়িয়ে চলবে। কিন্তু বনি ইসরাঈল যখন ফিলিস্তিনে প্রবেশ করে তখন তারা এসব নির্দেশনা বেমালুম ভুলে যায়। জ্ঞাত বা অজ্ঞাতসারে তাদের মধ্যেও শিরকের অনুপ্রবেশ ঘটে। তারাও তাদের সন্তানদের বলি দিতে শুরু করে। তাদের অনেকে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে। ফলে তাদের জন্য আল্লাহর আজাব অবধারিত হয়ে যায়। সেই আজাব বড় শক্তভাবে তাদের গ্রাস করেছিল। ইতিহাসে এমন ঘটনা বারবার ঘটেছে। তবে দুইবারের ঘটনা সর্বাধিক স্মরণীয়।

গ্রন্থনা : মাওলানা কাসেম শরীফ

 



মন্তব্য