kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


অটিজম সচেতনতা ও বাংলাদেশ প্রেক্ষাপট

মোছা. মালেকা পারভীন

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



অটিজম সচেতনতা ও বাংলাদেশ প্রেক্ষাপট

২০০৮ সাল থেকে ২ এপ্রিল সারা বিশ্বে বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস পালিত হয়ে আসছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে, অবৈষম্যমূলক পরিবেশে অটিজম শিশুদের শিক্ষার সুযোগ তৈরি করা। এ ধরনের শিক্ষাব্যবস্থায় সব শিশু (সাধারণ ও বৈকল্য শিশু) একই সঙ্গে একই শ্রেণিকক্ষে উন্নতমানের শিক্ষা গ্রহণ করার সুযোগ পায়। অটিজম মস্তিষ্কের স্নায়বিক সমস্যার কারণে হয়ে থাকে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে গবেষকরা অটিজমকে ‘অটিজম স্পেকট্রাম ডিজঅর্ডার’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। অটিজম কেন হয়, তার সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ উদ্ঘাটন করা সম্ভব হয়নি। মস্তিষ্কের অস্বাভাবিক জৈব রাসায়নিক কার্যকলাপ, মস্তিষ্কের অস্বাভাবিক গঠন, বংশগতির অস্বাভাবিকতা থেকে এ সমস্যা হতে পারে বলে বিভিন্ন গবেষণায় প্রতীয়মান হয়। এ ছাড়া গর্ভকালে মায়ের ভাইরাস জ্বর, জন্মের সময় শিশুর অক্সিজেনের অভাব, পরিবেশদূষণ ও অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণের ফলে অটিজম শিশু জন্মগ্রহণ করতে পারে। সাধারণত তিন বছর বয়সে অটিজমের লক্ষণ ধরা পড়ে। যেমন—(১) ১২ মাস বয়সে নাম ধরে ডাকলে কোনো প্রতিক্রিয়া না করা; (২) ১৪ মাস বয়সে কোনো কিছু দেখে আগ্রহ প্রকাশ না করা; (৩) ১৮ মাস বয়সে কোনো খেলার বস্তু নিয়ে খেলা না করা; (৪) দৃষ্টি সংযোগ না করে বরং একা একা থাকতে পছন্দ করা; (৫) ভাষাগত ত্রুটি; (৬) একই শব্দ বারবার বলা; (৭) প্রশ্নের অসংলগ্ন উত্তর দেওয়ার প্রবণতা; (৮) দৈনন্দিন কাজের প্রতি অনীহা; (৯) অস্বাভাবিক শারীরিক অঙ্গভঙ্গি; (১০) যেকোনো শব্দ, গন্ধ, স্বাদ ও অনুভূতির প্রতি অস্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া। তবে যত কম বয়সে অটিজম শনাক্ত করা সম্ভব হবে, ততই শিশুকে স্বাভাবিক আচরণে ফিরিয়ে আনার সুযোগ বেশি থাকবে।

বাংলাদেশে বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় অটিজম শিশুর সংখ্যা বৃদ্ধির হার ঊর্ধ্বগতি। সম্প্রতি  শহরভিত্তিক এক জরিপে দেখা যায়, প্রতি এক হাজার শিশুর মধ্যে একজন শিশু অটিজমে আক্রান্ত হচ্ছে। বিগত পাঁচ-ছয় বছরে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যা অটিজম শিশুদের সার্বিক অগ্রগতির এক মাইলফলক। ২০১০ সালে অটিজম শিশুদের ওপর

গবেষণার লক্ষ্যে Centre for Neurodevelopment and Autism in Children (CNAC) স্থাপিত হয়। এরপর ২০১১ সালের ২৫ জুলাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা ও যুক্তরাষ্ট্রে নিবন্ধিত মনস্তত্ত্ববিদ অটিজম বিশেষজ্ঞ সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের পরামর্শক্রমে এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে Autism Spectrum Disorders and Developmental Disabilities in Bangladesh and South Asian-এর আন্তর্জাতিক

সম্মেলনে ১১টি দেশের অংশগ্রহণে ‘ঢাকা ঘোষণা’ গৃহীত হয়। এরই সূত্র ধরে অটিজম বিষয়ে বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি হয়। সর্বোপরি বাংলাদেশ সরকারের কতগুলো গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ ভবিষ্যতে সবার জন্য সমান শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ভূমিকা রাখবে।

অটিজম শিশুদের শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কিছু শিক্ষাপদ্ধতি ভালো ফল দেয়। অটিজম শিশুদের যদি জটিল বিষয়কে সহজ-সরলভাবে ধাপে ধাপে উপস্থাপন করে শেখানো যায়, তবে তারা সহজে বুঝতে পারবে। শ্রেণিকক্ষ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির মাধ্যমে অটিজম শিশুদের শিক্ষাদান করা যেতে পারে। যোগাযোগ দক্ষতা বাড়ানোর মাধ্যমে অটিজম শিশুদের বিভিন্ন বিষয় শেখানো সম্ভব। সামাজিক দক্ষতা অর্জন পদ্ধতির মাধ্যমেও অটিজম শিশুদের সামাজিক আচরণ শেখানো সম্ভব।

অটিজম কোনো মানসিক রোগ নয়, তাই অটিজম শিশুদের সমাজের বোঝা মনে না করে বরং এসব শিশুকে যথাযথ পরিচর্যার মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদে রূপান্তর করা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে অটিজম সম্পর্কে সচেতনতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আজকের অটিজম শিশুরা যাতে ভবিষ্যতে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারে, সে লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। এই দায়িত্ব শুধু সরকারের একার নয়, এটা আমার, আপনার, গোটা জাতির। আমরা সবাই যদি সচেতন থাকি, তবেই অটিজম শিশুরা ভবিষ্যতে একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ দেখতে পারবে।

 

 লেখক : সহকারী অধ্যাপক, মনোবিজ্ঞান বিভাগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়


মন্তব্য