kalerkantho


দক্ষিণ আফ্রিকা না শ্রীলঙ্কা

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



দক্ষিণ আফ্রিকা না শ্রীলঙ্কা

অভিষেকে ৫ উইকেট

অভিষেকে উজ্জ্বল আলো ছড়ালেন লাসিথ এমবুলডেনিয়া। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিংয়ের তিন স্তম্ভ ডিন এলগার, টেম্বা বাভুমা এবং কুইন্টন ডি ককসহ ৬৬ রান খরচায় নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। বাঁহাতি পেসার বিশ্ব ফার্নান্ডোও কম যাননি, ৭১ রানে তাঁর শিকার চার উইকেট। অভিষিক্ত এমবুলডেনিয়ার এবং বিশ্ব ফার্নান্ডোর মারাত্মক এই বোলিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ইনিংস ২৫৯ রানে গুঁড়িয়ে দিয়েও অবশ্য স্বস্তিতে নেই দিমুঠ করুণারত্নের দল।

ডারবান টেস্ট জিততে ৩০৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৪২ রানের মধ্যে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান লাহিরু থিরিমানে এবং দিমুঠ করুনারত্নেকে হারিয়ে ফেলে শ্রীলঙ্কা। দলের বিপদ আরো বাড়ে শূন্য রানে কুশল মেন্ডিসও ফিরলে। আলোর স্বল্পতার জন্য আগেভাগে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে শ্রীলঙ্কার স্কোর ছিল ২৮ ওভারে ৩ উইকেটে ৮৩ রান। ডারবানে জিততে আরো ২২১ রান করতে হবে শ্রীলঙ্কাকে হাতে আছে সাত উইকেট। কাজটা হয়তো অসম্ভব নয়, তবে প্রোটিয়া পেসারদের সামলে শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যাসরা দলকে লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারবেন তো!

চার উইকেটে ১২৬ রানে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে কাল আরো ৬৫ রান যোগ করে বিচ্ছিন্ন হন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান ফাফ দু প্লেসিস ও কুইন্টন ডি কক। ৫৫ রান করা ডি কককে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলে তাদের ৯৫ রানের পঞ্চম উইকেট জুটিটাও ভেঙেছেন এমবুলডেনিয়া। ফাফ দু প্লেসিস অবশ্য এগোচ্ছিলেন শতরানের পথে। কিন্তু তিন অঙ্কের জাদুকরী স্কোর থেকে মাত্র ১০ রান দূরে থাকতে বিশ্ব ফার্নান্ডোর বোলিংয়ে এলবিডাব্লিউ হয়ে যান প্রোটিয়া অধিনায়ক। ২৪৪ মিনিট ক্রিজে কাটিয়ে ৯০ রানের ধৈর্যশীল ইনিংসটি তিনি সাজিয়েছেন ১৮২ বলে ১১ বাউন্ডারিতে। দু প্লেসিসের বিদায়ের পর বাকি তিন উইকেটে আর মাত্র চার রান যোগ করে শেষ দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ইনিংস। ৬৬ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার সফলতম বোলার অভিষিক্ত এমবুলডেনিয়া। ৭১ রানে চার উইকেট বিশ্ব ফার্নান্ডোর। প্রথম ইনিংসে প্রোটিয়ারা আউট হয়েছিল ২৩৫ রানে।

বোলাররা দক্ষিণ আফ্রিকাকে আরো একবার অল্প রানে বেঁধে ফেললেও ব্যাটসম্যানরা দ্বিতীয় ইনিংসেও তেমন আশার আলো দেখাতে পারছেন না শ্রীলঙ্কাকে। ৩০৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৪২ রান যোগ করেন লাহিরু থিরিমানে এও দিমুঠ করুনারত্নে। কিন্তু পর পর দুই ওভারে এ দুজনকে ফিরিয়ে সফরকারীদের ব্যাকফুটে ঠেলে দেন প্রোটিয়া দুই পেসার কাগিসো রাবাদা ও ভারনন ফিল্যান্ডার। ২০ রানে থিরিমানে আউটের পর একই রানে ফেরেন করুনারত্নেও।  আরেক পেসার ডুয়ানে অলিভিয়ের শূন্য রানে কুশল মেন্ডিসকেও আউট করলে সফরকারীদের বিপদ আরো বাড়ে। আলোর স্বল্পতার জন্য তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে আর কোনো উইকেট অবশ্য হারায়নি শ্রীলঙ্কা। চতুর্থ উইকেটে ৩১ রান যোগ করে অবিচ্ছিন্ন আছেন ফার্নান্ডো (২৮* রান) এবং কুশল পেরেরা (১২* রান)।  ক্রিকইনফো



মন্তব্য