kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

ওদের কন্ডিশনে দারুণ কিছু করা সম্ভব না

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



ওদের কন্ডিশনে দারুণ কিছু করা সম্ভব না

দেশের মাটিতে টেস্ট হলেই বেশি ডাক পান বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ক্যারিয়ারের ২৩ টেস্টের মাত্র ৬টা দেশের বাইরে, বাকি সবই দেশে। উইকেটের সিংহভাগই দেশে। ১০০ উইকেট থেকে তিন পা দূরে থাকা তিনিই সাকিবের অনুপস্থিতিতে বাঁহাতি স্পিনে মূল ভরসা। জানালেন নিজের প্রস্তুতির কথা

প্রশ্ন : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের প্রস্তুতি কেমন চলছে?

তাইজুল : টেস্টের প্রস্তুতি আসলে ভালোই চলছে, চার দিন হলো অনুশীলন শুরু করেছি। বোলিংটা চালিয়ে যাচ্ছি, মাঝেমধ্যে ব্যাটিংও ঝালাই করে নিচ্ছি। টুকটাক ফিটনেস নিয়েও কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।

প্রশ্ন : বিপিএল থেকে টেস্ট ক্রিকেট, ফরম্যাট বদলে সমস্যা হবে না?

তাইজুল : না। মানিয়ে নিতে অতটা অসুবিধা হয় না। বোলিং স্বাভাবিকই থাকে, খুব একটা সমস্যা হয় না।

প্রশ্ন : নিউজিল্যান্ড তো পুরোপুরি ভিন্ন কন্ডিশন, মানিয়ে নেওয়া কতটা কঠিন হবে?

তাইজুল : যেহেতু আমরা ১০-১২ দিন আগে যাচ্ছি, অবশ্যই আলাদা কন্ডিশনে একটু বেশি সময় পেলে ভালো হয়। যথেষ্ট সময় হাতে রেখেই যাচ্ছি। আশা করছি কন্ডিশনের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নেব।

প্রশ্ন : সাকিবের না থাকাটা কিভাবে দেখছেন?

তাইজুল : সাকিব ভাই নেই এটা আমাদের জন্য একটু হলেও খারাপ। এর পরও যদি তিনি খেলেন তাহলে ভালো, আর যদি না খেলেন তাহলে আমার ওপর বড় দায়িত্ব আসতে পারে। আমি চেষ্টা করব নিজের সেরাটা দেওয়ার এবং নিজে ভালো কিছু করার।

প্রশ্ন : সাকিব না থাকায় আপনার কেমন লাভ হবে?

তাইজুল : কখনো এভাবে মনে হয়নি। যখন সাকিব ভাই থাকেন না, তখন আমার জন্য সুযোগটা বেশি থাকে বোলিং করার। আর যখন উনি থাকেন, তখন দুজনই সমান সমান বোলিং করি বা একটু কমবেশি হয়। উনি থাকলে অনেক সাহায্য পাওয়া যায়, অনেক ক্ষেত্রেই। সাকিব ভাই অনেক দিন ধরে ক্রিকেট খেলছেন, আমাদের তুলনায় তিনি সব কিছু ভালো বোঝেন। এই সাহায্যগুলো পাওয়া যায় আরকি।

প্রশ্ন : নিজের কী লক্ষ্য থাকবে সফরে?

তাইজুল : অনেক বড় কিছু করা যাবে—এটা আসলে ভুল। ওদের কন্ডিশনে দারুণ কিছু করা সম্ভব নয়, কপালে থাকলে আবার হতেও পারে। কিন্তু যদি রান কম দিয়ে ২-৩টা উইকেট নেওয়া যায়, তাহলে দলের জন্য ভালো আরকি। নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী দলের জন্য যতটুকু করা যায়, চেষ্টা করব সেটা করার।



মন্তব্য