kalerkantho


রোনালদোর কারাদণ্ড ও মুক্তি

২৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



রোনালদোর কারাদণ্ড ও মুক্তি

মাদ্রিদ। এই শহরের একটা অংশ ৯টা বছর ধরে দেবতুল্য সম্মান দিয়ে এসেছে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোকে। রিয়াল মাদ্রিদের সাদা জার্সিতে রোনালদো গোল করলে তারা আনন্দে উন্মাতাল হয়েছে, রোনালদোর গোলের সুবাদে আসা শিরোপা জয়ের আনন্দে মেতেছেন। কাল সেই শহরেরই একটি আদালতে ঘোষিত হলো রোনালদোর কারাদণ্ড।

জুভেন্টাসের হয়ে শিয়েভোর বিপক্ষে পেনাল্টি মিসের পরদিন পেনাল্টি দিতে রাজি হলেন রোনালদো। কর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আগেই শাস্তি ও জরিমানার সমঝোতা করে নিয়েছিলেন রোনালদোর আইনি উপদেষ্টারা। আদালত তার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শুনানিতে অংশগ্রহণ ও গ্যারেজ পর্যন্ত গাড়ি করে আসার অনুরোধ উপেক্ষা করলেও শেষ পর্যন্ত জেলে পাঠাননি এই ফুটবল তারকাকে। বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি শুনানি। ২০১১ থেকে ২০১৪ সালের ভেতর করা চারটি আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ স্বীকার করে নেন রোনালদো, নিজেকে দোষী সাব্যস্ত করেন। এই চারটি অপরাধের জন্য তাঁর ২৩ মাসের কারাদণ্ড ও ১৮.৮ মিলিয়ন ইউরো জরিমানার শাস্তি দেন মাদ্রিদের প্রাদেশিক আদালত। স্পেনের নিয়ম অনুযায়ী, অহিংস অপরাধের জন্য প্রথম শাস্তির বেলায় মেয়াদটি দুই বছর বা ২৪ মাসের কম হলে সেটা স্থগিত থাকে। তাই শুধু অর্থদণ্ড দিয়েই মুক্তি মিলছে রোনালদোর, যেমনটা হয়েছিল লিওনেল মেসির বেলায়ও। আদালতে সঙ্গিনী জর্জিনা রোদ্রিগেসকে নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন রোনালদো। প্রবেশপথে ছিল উৎসাহী গণমাধ্যমকর্মীদের সারি। তাদের উদ্দেশে ঢোকার পথে কিছু বলেননি রোনালদো, বের হওয়ার সময় শুধু বলেছেন ‘সব হয়ে গেল।’

দোষ স্বীকার ও জরিমানা পরিশোধের মাধ্যমে স্পেনের করসংক্রান্ত আইনি জটিলতা থেকে মুক্তি মিলল রোনালদোর। কর নিয়ে কড়াকড়ির ফাঁদে পড়েছেন মেসি, ফ্যালকাওসহ অনেক ফুটবলারই। কাল রোনালদোর শুনানিতে হাজিরার দিনে আদালতে হাজিরা ছিল তাঁর সাবেক সতীর্থ জাবি আলোনসোরও। স্পেনের জাতীয় দল ও রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এ ফুটবলারও কর ফাঁকির অভিযোগে আদালতের চক্কর কাটছেন। মার্কা, এএস



মন্তব্য