kalerkantho


গর্ব নিয়ে বিদায় হেরাথের

১০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



গর্ব নিয়ে বিদায় হেরাথের

প্রথম দিন সতীর্থরা দিয়েছিলেন গার্ড অব অনার। গল টেস্টে হারের দিনও গতকাল রঙ্গনা হেরাথের জন্য থাকল বিদায়ী অভিবাদন। দলের সব খেলোয়াড়ের স্বাক্ষর দেওয়া টি-শার্ট উপহার দিলেন অধিনায়ক দিনেশ চান্ডিমাল। লঙ্কান বোর্ড তুলে দিল বিশেষ স্মারক। চোখের কোণ বেয়ে পড়ছিল তখন অশ্রু। কোনো রকমে সামলে হেরাথ কৃতজ্ঞতা জানালেন সতীর্থ আর বোর্ডের প্রতি। ৪০ বছর বয়সে ৯৩ টেস্টে ৪৩৩ উইকেটে থামল এই কিংবদন্তির ক্যারিয়ার। বিদায়বেলায় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন হেরাথ, ‘আবেগী মুহৃর্ত আমার জন্য। কিন্তু আপনাকে সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে সতীর্থ, কোচ আর বোর্ড কর্তারা পাশে ছিলেন আমার। সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আমি।’

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এর আগে ২০১২ সালে গলে সবশেষ খেলেছিলেন হেরাথ। সেবার নিয়েছিলেন ১২ উইকেট। কিন্তু বিদায়ী টেস্টে পেয়েছেন মাত্র ৩ উইকেট। ধার যে হারিয়েছেন তাঁর চেয়ে বেশি জানে না আর কেউ। দলও প্রথমবার গলে হারল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। ২১১ রানের হারে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে রান আউট হয়েছিলেন হেরাথ। এর পরপরই ইংলিশ ক্রিকেটাররা মাঠে অভিবাদন জানান তাঁকে। শেষটা হয়তো রাঙাতে পারেননি তবে অবসর নিলেন বাঁহাতি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি টেস্ট উইকেট নিয়ে। ৯৩ টেস্টে তাঁর উইকেট ৪৩৩টি। ১০৪ টেস্টে ৪১৪ উইকেট নিয়ে হেরাথের পর রয়েছেন ওয়াসিম আকরাম। এমন রেকর্ড গড়ে বিদায় নিতে পেরে গর্বিত হেরাথ, ‘শ্রীলঙ্কার হয়ে খেলতে পেরে আমি গর্বিত। বর্তমান দলটির সঙ্গে খেলতে পারাটাও বিশেষ কিছু। দেশের হয়ে খেলা সব সময় সম্মানের। ২২ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে জাতীয় দলে আসা বিশেষ কিছু।’

মুরালিধরন অবসর নেওয়ার আগে ২২ টেস্টে ৩৭.৮৯ গড়ে ৭০ টেস্ট উইকেট নিয়েছিলেন হেরাথ। মুরালি অবসর নিতেই লঙ্কান বোলিংয়ের ভার পড়ে তাঁর কাঁধে। এরপর ৭১ টেস্টে কাছাকাছি ২৬ গড়ে নিয়েছেন ৩৬২ উইকেট। লঙ্কান বোলারদের মধ্যে এ সময় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৩২ উইকেট দিলরুয়ান পেরেরার। এ সময় টেস্টে সবচেয়ে বেশি ৪০০ উইকেট ইংল্যান্ডের ফাস্ট বোলার জেমস অ্যান্ডারসনের। হেরাথের উইকেট ৩৬২টি, স্টুয়ার্ট ব্রডের ৩৫০, রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ৩৩৬ আর নাথান লায়নের ৩১৮টি। একটা জায়গায় সবাইকে ছাড়িয়ে হেরাথ। চতুর্থ ইনিংসে পেয়েছেন সবচেয়ে বেশিবার পাঁচ বা তারও বেশি উইকেট। গর্ব নিয়ে বিদায় বলতেই পারেন তিনি। অবসরের পর কী করবেন হেরাথ? বিদায়বেলায় তিনি জানালেন, ‘একটা ব্যাংকে কাজ করছি, সেখানে সময় দেব আরো বেশি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলতে পারি কিছুদিন। অতৃপ্তি বললে, বিশ্বকাপ ফাইনালে পৌঁছেও জিততে না পারাটাকে বলব আমি। তবে সব মিলিয়ে আমি খুশি।’ ক্রিকইনফো



মন্তব্য