kalerkantho


সিরিজ আগে পরীক্ষা পরে

২৪ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



সিরিজ আগে পরীক্ষা পরে

যেমন ফজলে মাহমুদ। সাকিব আল হাসানের বিকল্প হিসেবে ডাকা হয়েছে এই ব্যাটিং অলরাউন্ডারকে। ৩০ বছর বয়সে অভিষেক হয় প্রথম ওয়ানডেতে। কিন্তু সেখানে তেমন কিছুই করতে পারেননি। প্রত্যাশার যে জায়গা ব্যাটিং, সেখানে চার বল খেলে শূন্য রানে আউট।

 

 

চট্টগ্রাম থেকে প্রতিনিধি : অমন পরিবর্তনের ডাক আগে এসেছে কত! সিরিজের প্রথম ওয়ানডে যাচ্ছেতাইভাবে হারের পর পারলে সবাইকে বাদ দেওয়ার উঠেছে গণদাবি। ব্যাটিং-বোলিংয়ে পারফরমার যে খুঁজতে হতো আতশি কাচ দিয়ে!

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডের আবহের সুরটা অন্য রকম। বাংলাদেশ দল এখানে পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করলে তা শুধুই অন্যদের পরখ করে দেখার জন্য। আবার প্রথম ওয়ানডেতে পারফরম্যান্সে ঘাটতি থাকার পরও কাউকে ছুড়ে ফেলা যেন না হয়, সে পরিপক্বতাও এসেছে টিম ম্যানেজমেন্টে।

যেমন ফজলে মাহমুদ। সাকিব আল হাসানের বিকল্প হিসেবে ডাকা হয়েছে এই ব্যাটিং অলরাউন্ডারকে। ৩০ বছর বয়সে অভিষেক হয় প্রথম ওয়ানডেতে। কিন্তু সেখানে তেমন কিছুই করতে পারেননি। প্রত্যাশার যে জায়গা ব্যাটিং, সেখানে চার বল খেলে শূন্য রানে আউট। বোলিংয়ে তিন ওভারে ১৬ রান দিয়ে উইকেটশূন্য। তবু তাঁকে বাতিলের খাতায় ফেলে দিতে চান না অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা, ‘রাব্বির (ফজলে মাহমুদ) আরেকটা সুযোগ প্রাপ্য। আমি যদি ওর জায়গায় থাকতাম, তাহলে আশা করতাম পরের ম্যাচটি খেলব। একটা ম্যাচ দিয়ে কাউকে বিচার করা কঠিন। যদি বলেন তাকে নেওয়া হলো কেন, সেটা ভুল কি না তা নিয়ে আলোচনা করতে পারেন। কিন্তু নেওয়ার পর অবশ্যই আমি মনে করি তাকে সুযোগ দেওয়া উচিত।’ প্রথম ম্যাচে তাঁর আউটের ধরনেও সহানুভূতি অধিনায়কের কণ্ঠে, ‘ও প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিল। উইকেটে ওপাশে অসমান বাউন্স ছিল, একটি বল হঠাৎ লাফিয়ে ওঠে। তাতেই আউট হয়। কিন্তু আমার মনে হয়, আরেকটু সুযোগ ওর প্রাপ্য।’ আজ তাই একাদশে থাকছেন তিনি। পাশাপাশি বিশ্বকাপ সামনে রেখে সবাইকে পরখ করে দেখার ব্যাপারটিও মাথায় আছে অধিনায়কের, ‘শান্ত (নাজমুল হোসেন) বসে আছে, ওর ম্যাচ খেলা জরুরি। আরিফুল এশিয়া কাপ থেকে দলের সঙ্গে আছে; কিন্তু কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি। কিন্তু অনুশীলন করে যাচ্ছে পুরোদমে। ওরও তো ম্যাচ খেলা প্রাপ্য। এই সিরিজে পরখ না করলে পরে আরো কঠিন সিরিজে কিভাবে দেখব! রনি (আবু হায়দার) এশিয়া কাপে এক ম্যাচ খেলেছে। সেখানে ভালো করেছে। এসব কিছুই আমাদের মাথায় রাখতে হচ্ছে।’

ম্যাচ না হেরে কিভাবে এক-দুজন করে এমন ক্রিকেটারকে সুযোগ দেওয়া যায়, সেটি নিয়ে তাই ভাবনা টিম ম্যানেজমেন্টের। মাশরাফিও কাল বলেন সেটি, ‘এটি সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ। আগের ম্যাচের কাউকে হুট করে সরিয়ে দেওয়া কঠিন। কোচ, নির্বাচক সবার সঙ্গে কথা বলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আমাদের দেখতে হবে কিভাবে এক-দুজনকে সুযোগ দিতে পারি। ওরা দলের সঙ্গে আছে। যেন একাদশে খেললে দ্রুত পারফরম করতে পারে, সে জন্য তিন-চার ম্যাচ সময় না নেয়, তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি আমরা।’ নতুনদের মধ্যে বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম, বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন প্রথম ওয়ানডে যেমনটা করেছেন আর কী, ‘অপু (নাজমুল) খুব ভালো বোলিং করেছে। দুটো ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছে। আবার সাইফুদ্দিনকে দেখুন। আমাদের পেস বোলিং অলরাউন্ডার ও রিস্ট স্পিনারের দুটো জায়গায় পিছিয়ে ছিলাম। সাইফুদ্দিন যদি প্রথম ম্যাচের মতো ধারাবাহিক পারফরম করতে থাকে, তাহলে দল হিসেবে আমাদের এক ধাপ ওপরে ওঠার সুযোগ থাকবে।’

পেস বোলিং বিভাগটা এমন নতুনদের নিয়ে তৈরি নয়। সেখানে মাশরাফি, মুস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেনের অভিজ্ঞতায় ভরসা। কিন্তু নিজেদের শারীরিক সামর্থ্যের চূড়ায় এখন নেই কেউই। রুবেল তো প্রথম ওয়ানডে খেলেনইনি। অস্বস্তি আছে বাকি দুজনেরও। তবে এ নিয়ে খুব উদ্বিগ্ন নন অধিনায়ক, ‘রুবেল আজ ফুল রান আপে বোলিং করেছে। মুস্তাফিজের কনুইয়ে ব্যথা ছিল বলে প্রথম ম্যাচে পুরো ওভার করাইনি। ও নিজে যখন ভাবছিল যে আর পারবে না, তখন ব্রেক দিয়েছি। নিজেই ব্যথার কথা বলছিল। বাকিরা সবাই সুস্থ আছে।’ তাঁর নিজের কুঁচকির ইনজুরি নিয়েও উদ্বিগ্ন নন। ওয়ানডে সিরিজ শেষে ব্যাপারটায় মনোযোগ দেবেন বলে জানালেন মাশরাফি, ‘আমার একটু সময়ের দরকার। তিন সপ্তাহ অনুশীলন করতে পারিনি। হয়তো এই সিরিজটা না খেলতে পারতাম। কিন্তু এই একটি ফরম্যাটই তো খেলি। এরপর চার-পাঁচ সপ্তাহের বিরতি আছে। তখন এগুলো নিয়ে কাজ করব। এখন মোটামুটি খেলার মতো অবস্থায় আছি, তবে এর চেয়ে ভালো ফিটনেস নিয়ে আমি খেলি।’

মাশরাফির ফিটনেস ফেরানোর কাজটা না হয় তোলা থাকবে সিরিজ শেষের জন্য। কিন্তু সিরিজ জয়ের অপেক্ষাটা আজই মিটিয়ে ফেলতে চায় বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ সামনে রেখে সবাইকে পরখ করে দেখার প্রয়োজনীতার সামনেও ওই লক্ষ্যটা ভোলেনি স্বাগতিকরা।



মন্তব্য