kalerkantho


নাঈম হাসানের ৮ উইকেট

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



নাঈম হাসানের ৮ উইকেট

ক্রীড়া প্রতিবেদক : জাতীয় লিগের মোড় বদল হয়েছে। শুরুর দুই রাউন্ডে ব্যাটসম্যানদের দাপটে নাভিশ্বাস উঠেছিল বোলারদের। তৃতীয় রাউন্ডে এসে পায়ের তলায় মাটি খুঁজে পাওয়া বোলাররা গতকাল শুরু হওয়া চতুর্থ রাউন্ডে চালকের আসনে। কক্সবাজারে ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে চট্টগ্রামের তরুণ অফস্পিনার নাঈম হাসান একাই নিয়েছেন ৮ উইকেট। রংপুরে বরিশালের সোহাগ গাজীর অফস্পিনে ধরাশায়ী হয়েছে স্বাগতিকরা। খুলনা এবং রাজশাহীতে শুরু হওয়া আসরের অপর দুটি ম্যাচে একক কোনো বোলারের বীরত্বগাথা নেই। তবু ব্যাটসম্যানকুলের মুখে হাসি নেই ওই দুটি ভেন্যুতেও। অবশ্য ব্যাটসম্যানদের দুর্দিনে সবচেয়ে চওড়া দেখিয়েছে তুষার ইমরানের ব্যাট। এরই মধ্যে তিনটি সেঞ্চুরি করা খুলনার অভিজ্ঞ এ খেলোয়াড়ের ইনিংসটিই ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭১ রানের। ৭২ রান করেছেন ঢাকা বিভাগের আব্দুল মজিদ।

 

মজিদ ওপেনার। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে সাইফ হাসানকে সঙ্গী করে ঢাকা বিভাগকে স্বস্তির শুরু উপহারও দিয়েছিলেন তিনি। ৭২ রান তো কম নয়। রকিবুল হাসানকে দিয়ে নাঈমের দিনটাকে নিজের করে নেওয়ার ইঙ্গিত তখন পাওয়ার কথাও নয় মজিদের। কিন্তু তিনি দলীয় ১৫১ রানে চট্টগ্রামের তরুণ অফস্পিনারের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হতেই পতনের শুরু ঢাকা বিভাগের প্রথম ইনিংসের। মাঝখানে ফিফটি করে কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন শুভাগত হোম। তবে সব প্রতিরোধ ভেসে গেছে নাঈমের ঘূর্ণিঝড়ে। ১০৬ রানে ৮ উইকেট নিয়ে তিনি ঢাকাকে থামিয়ে দিয়েছেন ২৮৮ রানে। আজ তার জবাব দিতে নামছে চট্টগ্রাম।

রংপুরে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে নেমে স্বাগতিকদের স্পিনে বেঁধে ফেলে বরিশাল। ৩ উইকেটে ৯৩ রান তুলে ফেলা দলটির ১৪৭ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পেছনে মূল কৃতিত্ব বরিশালের দুই স্পিনার সোহাগ গাজী ও মনির হোসেনের। সোহাগ ৫ উইকেট নিয়েছেন ৪০ রানে আর ২ শিকারের জন্য মনির খরচ করেছেন মাত্র ১১ রান। অবশ্য জবাব দিতে নেমে জোর ধাক্কা খেয়েছে বরিশালও। শুভাশীষ রায় গতকালই তুলে নিয়েছেন ২ উইকেট। তাতে বরিশাল আজ শুরু করছে ৩৫ রান নিয়ে।

খুলনায় সেঞ্চুরির সুযোগ নষ্ট করেছেন তিনজন। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা স্বাগতিক দলের দিন শেষের স্কোরটা তাই ৭ উইকেটে ২৮১ রান। ওপেনার এনামুল হকের (৫৬) পর তিন ও চার নম্বরে নামা সৌম্য সরকার (৬৬) ও তুষার (৭১) ফিরে গেছেন আরো বড় ইনিংসের সম্ভাবনা জাগিয়ে। ৭৩ রানে ৩ উইকেট নিয়ে দিনের সফলতম বোলার রাজশাহীর বাঁহাতি স্পিনার সানজামুল ইসলাম।

রাজশাহীতে শুরু হওয়া এ পর্বের প্রথম দিনটি দলীয় সাফল্যের নিদর্শন হয়ে থাকতে পারে। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা সিলেট দিন শেষ করেছে ৯ উইকেটে ২৯১ রানে। এর মধ্যে তিনটি হাফসেঞ্চুরিসহ আটজনই পেরিয়েছেন দুই অঙ্কের ঘর। বোলিংয়েও কারো একক রাজত্ব নেই। ঢাকা মেট্রোর ছয় বোলারের সবাই উইকেট পেয়েছেন। সর্বোচ্চ দুটি করে শিকার তিনজনের।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ঢাকা বিভাগ-চট্টগ্রাম :

ঢাকা ৮৮ ওভারে ২৮৮/১০ (মজিদ ৭২, শুভাগত ৫৭, সাইফ ৪১, নাঈম ৮/১০৬)।

রংপুর-বরিশাল :

রংপুর ৭৪ ওভারে ১৪৭/১০ (রাকিন ৪৭, নাঈম ৩৯; সোহাগ ৫/৪০, মনির ২/১১)। বরিশাল ১৪ ওভারে ৩৫/২ (রাফসান ব্যাটিং ১৪, আল আমিন ব্যাটিং ৮; শুভাশীষ ২/১৩)।

খুলনা-রাজশাহী :

খুলনা ৮১ ওভারে ২৮১/৭ (তুষার ৭১, সৌম্য ৬৬, এনামুল ৫৬; সানজামুল ৩/৭৩)।

সিলেট-ঢাকা মেট্রো :

সিলেট ৯০ ওভারে ২৯২/৯০ (শানাজ ৬০, জাকির ৫০, শাহনুর ৫৪; অনিক ২/৫৩, আশরাফুল ২/৫৬, আরাফাত সানি ২/৬০)।



মন্তব্য