kalerkantho


আল জাজিরার প্রতিবেদনে নাম এসেছে বাংলাদেশেরও

আল জাজিরার অভিযোগ অস্বীকার

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



আল জাজিরার প্রতিবেদনে নাম এসেছে বাংলাদেশেরও

ক্রিকেটে জুয়াড়িদের দখলদারি নিয়ে প্রচারিত চ্যানেলটির দ্বিতীয় পর্বের তথ্যচিত্রে ২০১১ ও ২০১২ সালের মোট ১৫টি ম্যাচে স্পট ফিক্সিং হয়েছে বলে দাবি করেছে আল জাজিরা, যার মধ্যে ৯টিতে ইংলিশ এবং পাঁচটিতে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা জড়িত। ‘সন্দেহযুক্ত’ সেসব ম্যাচের সূত্র ধরে নাম এসেছে বাংলাদেশেরও।

 

ক্রিকেটের আঁতুড়ঘর ইংল্যান্ড। আর এ খেলাটির পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটের এই দুই কুলীনের সংসারেই আগুন লাগিয়ে দিয়েছে কাতারভিত্তিক টিভি চ্যানেল আল জাজিরা। ক্রিকেটে জুয়াড়িদের দখলদারি নিয়ে প্রচারিত চ্যানেলটির দ্বিতীয় পর্বের তথ্যচিত্রে ২০১১ ও ২০১২ সালের মোট ১৫টি ম্যাচে স্পট ফিক্সিং হয়েছে বলে দাবি করেছে আল জাজিরা, যার মধ্যে ৯টিতে ইংলিশ এবং পাঁচটিতে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা জড়িত। ‘সন্দেহযুক্ত’ সেসব ম্যাচের সূত্র ধরে নাম এসেছে বাংলাদেশেরও। ২০১১ বিশ্বকাপে চট্টগ্রামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয় নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে আল জাজিরার তথ্যচিত্রে।

সবশেষ তথ্যচিত্রের মূল লক্ষ্য ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। ওই সময়কালে দল দুটির ১৫টি ম্যাচে জুয়াড়ির হাত থাকার কথা বলা হয়েছে। সেসব ম্যাচে উল্লিখিত দুটি দলের সঙ্গে বাংলাদেশসহ নাম এসেছে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, কেনিয়া ও নেদারল্যান্ডসের। বাংলাদেশের নাম আসা প্রসঙ্গে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী গতরাতে জানিয়েছেন, ‘খবরে আমি বিষয়টি দেখেছি। তবে এ ব্যাপারে আমরা নিজেরা কোনো পদক্ষেপ নেব না। কারণ আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগ থেকে আমাদের প্রতিনিয়ত এসব বিষয়ে অবহিত করা হয়। তাদের কাছ থেকে আমরা এ জাতীয় কিছু পাইনি।’

আইসিসির পক্ষ থেকে কোনো সতর্কবার্তা না পাওয়ায় উদ্যোগী নয় বিসিবি। তবে তোলপাড় শুরু হয়েছে ইংল্যান্ডে। ক্রিকেটের জনক দেশটির খেলাটির প্রতি অনুরাগের কথাই জানে বাকি বিশ্ব। সেখানে এক বছরে দলটির ৯টি ম্যাচ ঢুকে গেছে সন্দেহের রাডারে! এর মধ্যে লর্ডসে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট যেমন আছে, তেমনি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিও সন্দেহের তীরে বিদ্ধ করেছে আল জাজিরা। অবশ্য তদন্তের জন্য আল জাজিরা কর্তৃপক্ষ থেকে পর্যাপ্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় আপাতত ক্রিকেটারদের ওপর পূর্ণ আস্থা রাখার ঘোষণা একটি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দিয়েছে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলশ ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)।

একই পদক্ষেপ নিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াও (সিএ)। ক্রিকেট জুয়া নিয়ে মে মাসে প্রথম তথ্যচিত্রটি প্রচার করে আল জাজিরা। রবিবার ‘ক্রিকেটস ম্যাচ ফিক্সার্স—দ্য মুনাওয়ার ফাইলস’ পর্বে সরাসরি উল্লেখ করেছে ওই ১৫টি ম্যাচের কথা। এর পাঁচটিতে অংশ নেওয়া অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট সংস্থার প্রধান নির্বাহী জেমস সাদারল্যান্ড বলেছেন, ‘ক্রিকেট জুয়ার ব্যাপারে আমরা ন্যূনতম ছাড় দেব না। সমঝোতার কোনো সুযোগ নেই। তবে আল জাজিরা আমাদের যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ দিচ্ছে না। তাই সাবেক কিংবা বর্তমান কোনো খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের কোনো কারণ নেই।’

ক্রিকেটের বৈশ্বিক সংস্থা আইসিসিও মে মাস থেকে আল জাজিরার কাছ থেকে সাক্ষ্য-প্রমাণ চেয়ে আসছে। তবে তথ্য অধিকার আইনের কথা বলে সেসব প্রদানে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছে টিভি চ্যানেলটি। অবশ্য আল জাজিরার তথ্যচিত্রের মূল চরিত্র অনীল মুনাওয়ার যে ক্রিকেট জুয়াড়ি, সে সম্পর্কে অবগত থাকার কথা জানিয়েছে আইসিসি। আর আল জাজিরার গোপন ক্যামেরার সামনে মুনাওয়ার যেসব তথ্য দিয়েছেন, তা রোমহর্ষক। তাঁর ভাষ্যমতে, বিশ্বের সিংহভাগ ক্রিকেটারকেই ‘কেনা’ যায়। মুনাওয়ারের দেওয়া ২৬টি পূর্বাভাসের ২৫টি মিলে যাওয়ার পরই তথ্যচিত্রটি প্রচার করেছে আল জাজিরা, যা উদ্বেগজনকই বটে। ফক্স নিউজ, দ্য টেলিগ্রাফ



মন্তব্য