kalerkantho


কোহলি-রোহিতের সেঞ্চুরিতে ভারতের দাপট

২২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



কোহলি-রোহিতের সেঞ্চুরিতে ভারতের দাপট

এশিয়া কাপে বিশ্রাম নিয়েছিলেন বিরাট কোহলি। খেললে যে মরুর বুকে ঝড় তুলতেন বোঝালেন ভালোভাবে। প্রত্যাবর্তনের ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলায় মেতে করলেন ৩৬তম সেঞ্চুরি। তিন অঙ্কে পৌঁছেছেন রোহিত শর্মাও। জোড়া সেঞ্চুরিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৩২২ রানের চ্যালেঞ্জও ৪৭ বল হাতে রেখে সহজে পেরিয়ে গেল ভারত। ৮ উইকেটের জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে দাপুটে শুরুই হলো ভারতের।

ওশানে থমসের ঘণ্টায় ১৪৭ কিলোমিটারের বলে শিখর ধাওয়ান বোল্ড হয়েছিলেন ৬ রানে। বাকি গল্পটা বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মার। দুজন দ্বিতীয় উইকেটে গড়েন ২৪৬ রানের জুটি। ১০৭ বলে ২১ বাউন্ডারি ২ ছক্কায় ১৪০ রানে দেবেন্দ্র বিশুর বলে কোহলি স্টাম্পিং হলে ভাঙে জুটিটা। ততক্ষণে ম্যাচ এসে পড়েছে পকেটে। ২০তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি করা রোহিত শর্মা ১১৭ বলে ১৫ বাউন্ডারি ৮ ছক্কায় খেলেন ১৫২ রানের হার না মানা ইনিংস। ৩২২ রানের বড় স্কোরেও ক্যারিবীয়দের জেতা হয়নি তাই।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৮৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ভারতীয় বোলারদের মিডল অর্ডারে নিয়মিত উইকেট নেওয়ার ক্ষমতায় সেখান থেকে পথ হারাতে পারত ক্যারিবীয়রা। সেটা হয়নি পাঁচ নম্বরে শিমরন হিটমায়ারের সেঞ্চুরিতে। একটা প্রান্ত আগলে রেখে ভারতীয় বোলারদের শাসন করে গেছেন এই মিডল অর্ডার। ৭৮ বলে ৬ বাউন্ডারি ৬ ছক্কায় শেষ পর্যন্ত থামেন ১০৬ রানে। ৯৮ থেকে সেঞ্চুরিতে পৌঁছান মোহাম্মদ সামিকে ছক্কা মেরে। ১৩তম ওয়ানডেতে এটা ২১ বছর বয়সী এই তরুণের তৃতীয় সেঞ্চুরি। একটা সময় ৩৮তম ওভারে ৫ উইকেটে ২৪৮ করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গুয়াহাটির ব্যাটিং উইকেটে সেখান থেকে ৩৫০ রান করাটা অসম্ভব মনে হয়নি তখন। কিন্তু রবীন্দ্র জাদেজাকে সুইপ করতে গিয়ে ঋষভ পান্টের তালুবন্দি হয়ে হিটমায়ার ফেরার পর আর হয়নি সেটা। ক্রিকইনফো



মন্তব্য