kalerkantho


নতুন করে পুরনো লড়াই

মাসাকাদজার ফেভারিট জিম্বাবুয়ে

২১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



মাসাকাদজার ফেভারিট জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশ দলের কোনো সিরিজই আর ‘লো প্রফাইল’ নয়! অস্ট্রেলিয়া কি ভারত, এমনকি জিম্বাবুয়ে সিরিজপূর্ব আবহও রমরমা, আগ্রহের কমতি নেই। সময়ের ঘূর্ণাবর্তে পিছিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ওয়ানডের সিরিজ শুরুর আগের দিনও হোম অব ক্রিকেটের বাতাসে বারুদ খুঁজলেন অনেকে। যুযুধান অভিব্যক্তি না থাকলেও দুই দলের অধিনায়ক—মাশরাফি বিন মর্তুজা ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজার সিরিজপূর্ব ভাবনা একই সমান্তরালে। দুজনের সে প্রত্যাশা ব্যক্ত করা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠ’র সামিউর রহমানও 

 

জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি খেলেছে। আমরা প্রতিপক্ষ এবং কন্ডিশনের সঙ্গে অন্য অতিথি দলগুলোর চাইতে খানিকটা বেশিই পরিচিত।

 

চলমান দুঃসময়

দক্ষিণ আফ্রিকায় আমাদের সময়টা ভালো কাটেনি। এখানকার একমাত্র অনুশীলন ম্যাচটিতেও একই অবস্থা। আসলে এখান থেকে উন্নতি করা ছাড়া আর কোনো পথ নেই। এই সফর থেকে আমরা কী অর্জন করতে পারি, সেদিকে আমাদের পূর্ণ মনোযোগ আছে। ছেলেরা খুবই মুখিয়ে আছে ভালো খেলার জন্য, তারা খুব আশাবাদী।

 

পরিচিত কন্ডিশন

জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি খেলেছে। আমরা প্রতিপক্ষ এবং কন্ডিশনের সঙ্গে অন্য অতিথি দলগুলোর চাইতে খানিকটা বেশিই পরিচিত। তাই দল হিসেবে আমাদের বেশ ভালো একটা সুযোগ আছে, বিশেষ করে বলা যায় অন্য যেকোনো প্রতিপক্ষের চেয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষেই আমাদের ভালো করার সম্ভাবনা বেশি। আমার তো মনে হয় সিরিজটা খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে।

 

কোচ পরিবর্তন

কোচিং স্টাফ বদলেছে, তবে খেলোয়াড়দের মধ্যে খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি। এই সময়ে জিম্বাবুয়ের বেশির ভাগ ক্রিকেটারই জাতীয় দলে খেলার জন্য নিজেকে তৈরি রেখেছে। সবাইকে পাওয়াটা খুবই বড় একটা সুবিধা।

 

স্পিন সামলানো

উপমহাদেশে খেলতে এলে প্রচুর স্পিন খেলতে হবে, এটা তো জানা কথাই। আমরা প্রস্তুতি নিয়েই এসেছি। স্পিন খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। আমাদের অবচেতন মনেও তাই সিপন নিয়ে ভাবনাচিন্তা চলছে।

 

মেহেদী মিরাজ

আমি বেশ কয়েকবার মেহেদী মিরাজের বিপক্ষে খেলেছি। তাঁর বোলিংয়ের ভিডিও দেখাও হয়েছে অনেকবার। তাঁর বোলিংটা কেমন হতে পারে, সেটা আমরা জানি।

 

সিরিজে লক্ষ্য

মূল কাজটা হচ্ছে ইতিবাচক মানসিকতা ধরে রাখা আর নিজেদের ওপর আস্থা রাখা। স্পিনের চ্যালেঞ্জটাও আমাদের নিতে হবে। এখান থেকে সামনের দিকে যাওয়া ছাড়া আমাদের আর কোনো রাস্তা নেই।

 

সিকান্দার রাজার প্রত্যাবর্তন

সবাইকে একসঙ্গে পাওয়াটা খুব বড় একটা সুবিধা। শুধু গ্রায়েম ক্রেমার নেই, ও এখনো চোটগ্রস্ত।

 

ফেভারিট তত্ত্ব

বাংলাদেশ গত কয়েক বছরে অনেক উন্নতি করেছে। বিশেষ করে ঘরের মাঠে। তাদের বিপক্ষে আমরাও বেশ অনেকবারই খেলেছি, তাই আমাদের সামনেও ভালো একটা সুযোগ। তাই ফেভারিট তকমাটা আমি জিম্বাবুয়েকেই দেব।



মন্তব্য