kalerkantho


শিরোপার জন্যই লড়বে শেখ জামাল

১৬ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



শিরোপার জন্যই লড়বে শেখ জামাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক : শেখ জামালকে গতবার ফেভারিটের তালিকায় রাখেনি কেউ। তারকা খেলোয়াড়দের যে দলে ভেড়ায়নি তারা। কিন্তু তারুণ্যের শক্তি এবং ভালো মানের বিদেশিতে মাঠের লড়াইয়ে ছিল ঠিকই এগিয়ে। শেষ পর্যন্ত আবাহনীর সঙ্গে শিরোপা লড়াইয়ে ছিল তারাই। এবারও গতবারের ফর্মুলায়ই দল গড়েছে শেখ জামাল। নাইজেরিয়ান কোচ জোসেফ আফুসির অধীনে প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতিও হয়েছে দারুণ। আবারও মাঠের লড়াইয়ে নিজেদের প্রমাণের অপেক্ষায় দলটি।

গত মৌসুমের খেলোয়াড়দের অনেককেই এবার ধরে রেখেছে শেখ জামাল। আলী হোসেন, জাহেদ পারভেজ, রাকিব সরকার, নুরুল আবছাররা আছেন। এবার অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের মধ্যে নতুন যোগ হয়েছেন সাখাওয়াত রনি। জামালের দুই বিদেশি স্ট্রাইকার সলোমন কিং ও রাফায়েল ওদোয়িন গত লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকার শীর্ষে। তাঁরাই মূলত দলটিকে টেনেছিলেন। দুজন মিলেই ৩০ গোল করেছেন। এই দুজনের প্রথমজন সলোমনকে এবারও রেখে দিয়েছে জামাল। গাম্বিয়ান স্ট্রাইকার এবার সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নামবেন। তাঁর সঙ্গে নতুন যোগ হয়েছেন আরো তিন বিদেশি। যাঁদের মধ্যে আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার মিরিয়ানোকে নিয়ে নতুন করে স্বপ্ন দেখছে দলটি। গত মৌসুমেই আসা তরুণ মিডফিল্ডার সেইনি বোজাংও এবার মাঠে নামবেন। এই গাম্বিয়ান বয়সের কারণে গতবার লিগে খেলার ছাড়পত্র পাননি। এবার নিজেকে দেখানোর সুযোগ পাচ্ছেন তিনি। চার বিদেশির মধ্যে এশিয়ান কোটায় খেলবেন ডেভিড চিটাং, কিরগিজ পাসপোর্টধারী এই সেন্টারব্যাকও দলে নিয়মিত হওয়ার আশায়। শুরুতে জাপানি খেলোয়াড় ইয়োগো কাবায়েশি এবং আরেক বিদেশি মদু লামিনকে বিবেচনায় রেখেছিল তারা। তবে কালই প্রস্তুতি ম্যাচে নতুন আসা ডেভিড ও মিরিয়ানো মুগ্ধ করেছেন। তাতেই স্কোয়াডে ঢুকে পড়েছেন তাঁরা। দলটির ম্যানেজার আনোয়ারুল করিম হেলাল আশাবাদী এবারও শিরোপার লড়াইয়ে থাকবেন তারা, ‘তারুণ্য ও ভালো মানের বিদেশি নিয়ে আমরা গতবার যেমন শিরোপা লড়াইয়ে ছিলাম। এবারও তেমনি লড়াকু একটি স্কোয়াডই গড়া হয়েছি। আশা করি এবারও আমরা লড়াইয়ে থাকব।’

জামালে খেলে তারকাখ্যাতি পাওয়া ল্যান্ডিং দারবোয়ে এবার মোহামেডানে। গাম্বিয়ান এই মিডফিল্ডার গত মৌসুমে অবশ্য খেলেছেন আবাহনীতে, এবার তাঁকে দেখা যাবে সাদা-কালো জার্সিতে। মোহামেডান অনেক দিন ধরেই আর শিরোপা লড়াইয়ে নেই। এবারও তেমন লক্ষ্যের কথা জানাতে পারেননি কর্মকর্তাদের কেউ। সোনালি সময় পেরিয়ে আসা জাহিদ হাসান এমিলি, মিঠুন চৌধুরী, আশরাফুল আলম, এনামুল শরীফ তাঁদের স্থানীয় খেলোয়াড়দের অন্যতম। জাতীয় দলে আবার ফেরার আশায় থাকা তকলিস আহমেদও খেলবেন মোহামেডানে। বিদেশি হিসেবে ল্যান্ডিংকে দলে ভেড়ানোটাই তাদের চমক। অন্য চার বিদেশির মধ্যে স্ট্রাইকার কিংসলে চিগোজিকে তারা ধরে রেখেছে। নতুন যোগ হয়েছে আরেক নাইজেরিয়ান সিরিল ওরিয়াকু, এশিয়ান কোটায় জাপানের উরিউ নাগাতা খেলবেন।

 

শেখ জামাল দল

গোলরক্ষক : সামিউল ইসলাম, মোহাম্মদ নাঈম, সুজন হোসেন, অসীম কুমার দাস; ডিফেন্ডার : রফিকুর রহমান মামুন, শ্যামল মিয়া, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, শওকত রাসেল, মনজুরুর রহমান, মোজাম্মেল হোসেন, মনির হোসেন, আরিফুল ইসলাম, ইশতেখারুল আলম শাকিল, রফিকুল ইসলাম; মিডফিল্ডার : সাইদুল হক, আলী হোসেন, ইমরান হোসেন রুবেল, ওমর ফারুক বাবু, জাহেদ পারভেজ চৌধুরী, রাকিব সরকার, শফিকুল ইসলাম বিপুল, জাকির হোসেন জিকু, মাজহারুল ইসলাম সৌরভ, দিদারুল আলম, শ্যামল ব্যাপারি, ফয়সাল মাহমুদ, সাইফুল ইসলাম তারেক; ফরোয়ার্ড : নুরুল আবছার, সাখাওয়াত হোসেন রনি, সলোমন কিং কমফর্ম, সেইনি বুজাং, মিরিয়ানো, ডেভিড চিটাং ও শাকিল।



মন্তব্য