kalerkantho



বিশ্রাম পেতে পারেন মুশফিক

খুলে যাওয়া দরজায় দাঁড়িয়ে অনেকেই

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



খুলে যাওয়া দরজায় দাঁড়িয়ে অনেকেই

দুবাই থেকে থেকে প্রতিনিধি : মধ্যরাত পেরিয়ে যাওয়ার পর দুজন কাছাকাছি সময়ের মধ্যেই আবুধাবি থেকে ফিরলেন দুবাইয়ের ফেস্টিভাল সিটির ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে। একজন ত্রস্ত, বিধ্বস্ত চেহারায়। আরেকজন পরের ম্যাচের ছক সাজিয়ে ভীষণ ফুরফুরে মেজাজে।

প্রথমজন চন্দিকা হাতুরাসিংহেকে দূর থেকে দেখেই আঁচ করা গেল যে শ্রীলঙ্কার এশিয়া কাপ থেকে বিদায়ের বেদনায় নীল হয়ে আছেন। তাঁর দলের বিপক্ষে গত পরশু রাতে আফগানিস্তানের দুর্দান্ত জয় দেখে ফেরা স্টিভ রোডসের স্বস্তির কারণ লঙ্কানদের হারে বাংলাদেশেরও সুপার ফোর ততক্ষণে নিশ্চিত হয়ে গেছে।

কাজেই আবুধাবিতে আগামীকালের বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচই হয়ে উঠেছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়নশিপ নির্ধারণী লড়াই। যে লড়াইয়ের আমেজ ছড়াতেও একটু বিলম্ব। সেটিই খুব স্বাভাবিক। আজকের ভারত-পাকিস্তান ম্যাচই আপাতত উত্তাপ ছড়াচ্ছে বেশি। এশিয়া কাপের আয়োজক এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলেরও (এসিসি) যত ব্যস্ততা ওই ম্যাচকে ঘিরেই। সংস্থার কোষাগার তো সবচেয়ে বেশি স্ফীত করে এ মহারণই।

যেটি দেখতে আজ দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের গ্যালারিও উপচে পড়বে নিশ্চিতভাবেই। এই ম্যাচের টিকিট ‘সোল্ড আউট’ হওয়ার ঘোষণা তো আরো দুই দিন আগেই দিয়ে ফেলেছে এসিসি। তবে শ্রীলঙ্কা ম্যাচে প্রবাসী বাংলাদেশিরা যেভাবে গ্যালারি ভরেছে, তাতে আবুধাবিতেও সমর্থনের অভাব হওয়ার কথা নয় মাশরাফি বিন মর্তুজাদের। যদিও আফগানিস্তান ম্যাচের আগে অনেক সংকটও সমাধান করার আছে রোডসের।

তামিম ইকবালকে হারানোই আপাতত সবচেয়ে বড় সংকট। যদিও বাংলাদেশ দলের হেড কোচ এরও একটি ইতিবাচক দিক খুঁজে বের করেছেন, ‘তামিমের না থাকাটা দলের মনোবলের জন্য অবশ্যই বড় ধাক্কা। কিন্তু জীবনের ধারাই এমন যে যখন কারো জন্য দরজা বন্ধ হয়ে যাবে, তখন সেটি আরেকজনের জন্য খুলেও যাবে। যা অন্য আরেকজনকে সফল হওয়ার সুযোগও করে দেবে। এখানে এমন অনেকে আছে, যারা নিজেদের নাম ফাটাতে চায়; কিন্তু সুযোগটা পায় না। দুঃখজনক হলেও এ ক্ষেত্রে তামিমের চোটই অন্য আরেকজনকে সেই সুযোগটি করে দিচ্ছে।’

সেই অন্য আরেকজন কে? নাজমুল হোসেনেরই তামিমের জায়গায় ওপেন করার সিদ্ধান্ত মোটামুটি হয়ে থাকলেও রোডস তা এখনই প্রকাশ্য করে দিচ্ছেন না। তাঁর মুখে শোনা গেল সম্ভাব্য সব নামই। নাজমুলের যেমন, তেমনি মমিনুল হকেরও। বিকল্প ওপেনার প্রসঙ্গে আলোচনায় এঁদের সঙ্গে উচ্চারিত আরেকটি নাম অবশ্য আফগানিস্তান ম্যাচের একাদশে আরো পরিবর্তনের ইঙ্গিতও দিচ্ছে। সেই নামটি এবারই প্রথম ওয়ানডে দলে থাকা আরিফুল হকের। নিশ্চিতভাবেই এ অলরাউন্ডার ওপেনিংয়ের জন্য বিবেচনায় নেই। তাহলে?

দল সূত্রে মিলল মুশফিকুর রহিমকেও আফগানিস্তান ম্যাচে বিশ্রাম দেওয়ার সম্ভাবনার খবর। একেই শ্রীলঙ্কা ম্যাচে পাঁজরের চোটের ধাক্কা সামলাতে সামলাতে খেলেছেন ১৪৪ রানের ইনিংস। তার ওপর যে মুশফিক কখনো ঐচ্ছিক অনুশীলনও মিস করেন না, সেই তিনি এক দিনের বিরতির পর গত পরশু সন্ধ্যায় আইসিসির একাডেমি মাঠে চার ঘণ্টার অনুশীলনে ছিলেন অনুপস্থিত। অর্থাত্ তাঁকে যথাসাধ্য বিশ্রাম দিয়ে সতেজ করে তোলার চেষ্টা করছে টিম ম্যানেজমেন্ট। তা ছাড়া গ্রুপ পর্বের পয়েন্ট যেহেতু সুপার ফোর পর্বে যোগ হবে না, তাই আফগানিস্তান ম্যাচকে ঘিরে অত মরিয়া ভাবও নেই বাংলাদেশ শিবিরে। তামিমের পর মুশফিককেও হারানোর ঝুঁকি এড়াতে তাই তাঁকে বিশ্রামে রাখার পক্ষেই মত ভারী দলে। টিম ম্যানেজমেন্টের একজনকেও সে কথা বলতে শোনা গেল, ‘মুশফিককে এই ম্যাচে খেলানোটা ঠিক হবে না।’

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে খেলোয়াড়দের শরীরের ওপর দিয়ে ধকলটাও কম যাবে না। সে ক্ষেত্রে কালকের আফগানিস্তান ম্যাচসহ চার দিনের মধ্যে আবুধাবিতে খেলতে হবে তিনটি ম্যাচ। দুবাই থেকে প্রতিদিন অন্তত দেড় ঘণ্টা করে তিন ঘণ্টা আসা-যাওয়ার হ্যাপাও যোগ হবে সঙ্গে। গ্রুপ রানার্স-আপ হলে অবশ্য ভ্রমণের সেই ধকল একটু কমবে। তবে গ্রুপ সেরা হওয়ার সুযোগ ছাড়তে চায় না বাংলাদেশ শিবির। সে ক্ষেত্রে সবচেয়ে ঠাসা সূচি মাথায় রেখেই মুশফিককে ঝরঝরে রাখার চিন্তা। সে ক্ষেত্রে মমিনুল ও আরিফুলের মধ্যে একজনের খেলে ফেলার সম্ভাবনা। হতে পারে মমিনুল খেললে তিনেই নামবেন, সে ক্ষেত্রে সাকিব নেমে যেতে পারেন চারে। আর আরিফুল খেললে ব্যাটিং অর্ডারে ঠাঁই হবে মিডল অর্ডারে।

তামিমের চোটের পর মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়ার চিন্তায় খুলে যাওয়া দরজায় তাই দাঁড়িয়ে শুধু নাজমুলই নন, একাধিক ক্রিকেটার!

 



মন্তব্য