kalerkantho


সবাইকে ছাড়িয়ে নাওমি

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



সবাইকে ছাড়িয়ে নাওমি

গায়ের রংটা কালো। জাপানি মেয়েদের রং এমন হয় না সাধারণত। নাওমি ওসাকাকে নিয়ে তাই টিটকারি হতো জাপানেই। হাইতিয়ান-আমেরিকান বাবা ও জাপানি মায়ের এই সন্তান তিন বছর বয়সে পাড়ি জমিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে। জাপানি ভাষায় কথা বলতে আটকান বারবার। সেই নাওমিই এখন জাপানের চোখের মণি। দেশটির প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে জিতেছেন কোনো গ্র্যান্ড স্লাম। তাঁকে ঘিরে উন্মাদনা জাপানজুড়ে। নিউ ইয়র্ক থেকে গতকালই প্রথম এলেন ইয়াকোহামায়। দেশে ফিরেও ছিলেন আকর্ষণের কেন্দ্রে।

ইয়াকোহামায় মুখোমুখি হন সাংবাদিকদের। অবধারিত প্রশ্ন, উত্তেজনার ইউএস ওপেন ফাইনালে আম্পায়ারের সঙ্গে সেরেনা উইলিয়ামসের দ্বন্দ্ব নিয়ে কোনো অনুতাপ আছে কি না? ব্যাপারটা অতীত বলে এ নিয়ে পড়ে নেই নাওমি, ‘আমি শুধু ভেবেছি এ নিয়ে অনুতপ্ত হওয়ার কিছু নেই। প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জেতায় ভীষণ খুশি। সেদিন ফাইনাল শেষে দর্শকরা দুয়ো দিচ্ছিল আমাকে। অথচ আমার কোনো দায় ছিল না। বুঝতে পেরে সেরেনা নিজে চুপ করতে বলেন দর্শকদের। তাঁকে আদর্শ করে বেড়ে উঠেছি। এই ঘটনার পর সেরেনার প্রতি শ্রদ্ধা বেড়ে গেছে আরো।’

ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জেতার পর বাজারদর অনেক বেড়েছে নাওমির। সুযোগটা নিয়ে ২০ বছর বয়সী এই তারকার সঙ্গে নতুন চুক্তি করে ফেলেছে অ্যাডিডাস। লন্ডনের ‘দ্য টাইমস’ জানাচ্ছে এই চুক্তিতে বছরে ১৪ মিলিয়ন ডলার পাবেন নাওমি। তাতে মেয়েদের ক্রীড়াঙ্গনে সবচেয়ে বেশি আয় করা খেলোয়াড় হয়ে যাবেন তিনি। এই চুক্তিটা মেয়েদের ক্রীড়াঙ্গনের ইতিহাসেই তৃতীয় সর্বোচ্চ। মা হওয়ার আগে সেরেনা উইলিয়ামসের সঙ্গে বছরে ১৮ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি ছিল নাইকির। সেখান থেকে সরে এসেছে এই প্রতিষ্ঠান। শারাপোভার সঙ্গেও বছরে ১৫ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি শেষ হয়েছে নাইকির। ১৪ মিলিয়ন ডলারের চুক্তিতে তাই সবাইকে ছাড়িয়ে নাওমি। জাপানের এই তারকা গতকালই আবার ‘ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর’ হয়েছেন ঐতিহ্যবাহী নিশান গাড়ির। বৃহস্পতি তুঙ্গে তাঁর।

নাওমি অবশ্য বাণিজ্য নিয়ে পড়ে না থেকে মনোযোগ বাড়াতে চান টেনিসে। স্বপ্নও বোনা শুরু করেছেন আগামী অলিম্পিক নিয়ে, ‘টোকিওতে পরের অলিম্পিক। সবার স্বপ্ন থাকে অলিম্পিক সোনা জেতার। নিজের দেশের টুর্নামেন্টে আমিও চাইব সোনা জিততে। এখন প্যান প্যাসিফিক ওপেনে ভালো করে বছরটা শেষ করতে চাইব র‍্যাংকিংয়ে সেরা পাঁচে থেকে।’ এএফপি



মন্তব্য