kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

ভালো মানের বিদেশি এনে দর্শক ফেরাতে চাই

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ভালো মানের বিদেশি এনে দর্শক ফেরাতে চাই

ক্লাব ফুটবলে এবার চমকে দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছে বসুন্ধরা কিংস। স্থানীয়দের নিয়ে অন্যতম সেরা দল গঠনের পর নিয়ে আসছে সর্বশেষ বিশ্বকাপে খেলা স্ট্রাইকার। যোগ হবে আরো তিন ভালো বিদেশি। এসব নিয়েই কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়েছেন প্রিমিয়ারে নবাগত বসুন্ধরা কিংসের প্রেসিডেন্ট ইমরুল হাসান

 

 

প্রশ্ন : সাফে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স কেমন দেখলেন?

ইমরুল হাসান : খুবই দুর্ভাগ্যের যে দেশের মাঠেও বাংলাদেশ সেমিফাইনালে উঠতে পারেনি। আমাদের স্ট্রাইকারদের সামর্থ্যের অভাব তো আগে থেকেই জানা। তবে নেপালের খেলা আমার ভালো লেগেছে। যে গোলরক্ষকের ভুলে বাংলাদেশ ছিটকে পড়েছে তাঁর প্রথম একাদশে অন্তর্ভুক্তি আমাকে বিস্মিত করেছে। এশিয়ান গেমসে আশরাফুল রানা ভালো করার পরও তাঁকে সাফ একাদশের বাইরে রাখা কোনো যুক্তিতে পড়ে না। এ নিয়ে নানা কথাই কানে আসছে।

প্রশ্ন : আপনার কী মনে হয়, একাদশ নির্বাচনে কারো প্রভাব ছিল?

ইমরুল : খেলোয়াড়দের মুখে সে রকমই শুনছি। জাতীয় দলে ক্লাব-প্রীতি কাজ করলে খেলোয়াড়দের মনোবল ভেঙে যায়।

প্রশ্ন : এখন আপনার ক্লাব দলের কথা বলুন। সেখানেও তো স্থানীয় খেলোয়াড়দের ওপর নির্ভর করতে হবে।

ইমরুল : নতুন কোচের অধীনে ট্রেনিং শুরু হয়েছে।  দেশি খেলোয়াড়রাই আসল, তারা বিদেশিদের সঙ্গে তাল মেলাতে না পারলে মুশকিল হয়ে যাবে। ক্লাব শিরোপার জন্য তাদের ভূমিকা অনেক বেশি। শুধু ক্লাবের শিরোপা কেন, দেশের এই ক্লাব সংস্কৃতির মধ্য দিয়েই তো ফুটবলাররা বেড়ে ওঠে। ঘরোয়া ফুটবলের মান উন্নত হওয়া মানে দেশের ফুটবলের উন্নতি। আগামী ২১ তারিখ নীলফামারীতে মালদ্বীপের নিউ রেডিয়েন্টের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচ খেলব।  

প্রশ্ন : এবার নাকি দুর্দান্ত সব বিদেশি আনছেন?

ইমরুল : আমরা ভালো মানের বিদেশি এনে ফুটবল দর্শকদের মাঠে ফেরাতে চাই। মানুষ যেন তারকার টানে মাঠে ফেরে, চারদিকে যেন সাড়া পড়ে। সর্বশেষ বিশ্বকাপ খেলা কোস্টারিকান স্ট্রাইকার ড্যানিয়েল কলিনড্রেসের সঙ্গে চুক্তি করেছে বসুন্ধরা কিংস। তিনি এখন কোস্টারিকা দলের সঙ্গে জাপান ট্যুরে আছেন, ১২ সেপ্টেম্বর তাঁর ঢাকায় আসার কথা। এটা আমাদের মার্কেটিং পলিসিও, বড় তারকায় বসুন্ধরা কিংসের নামটা ছড়াবে চারদিকে।

প্রশ্ন : সনি নর্দের কথাও শোনা যাচ্ছে...

ইমরুল : আমরা যোগাযোগ করেছিলাম। দ্বিপক্ষীয় আলোচনা এখনো চলছে, শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে এখন বলতে পারছি না। তবে আমাদের হাতে এই মুহূর্তে অনেক বিদেশি আছে। ক্লাবের ট্রায়ালে আছে চারজন, আসবে আরো দুজন। তাঁদের মধ্য থেকে তিনজনকে বেছে নেব আমরা। আশা করি, দল গঠনের দিক থেকে আমরা এগিয়ে থাকব।

প্রশ্ন : ক্লাবের আসল টার্গেট কী?

ইমরুল : মৌসুমের সবকটি শিরোপা জেতা আমাদের টার্গেট। সঙ্গে এএফসি কাপ খেলার স্বপ্ন।



মন্তব্য