kalerkantho


বাংলাদেশের শুরু আজ

কোচের ভাগ্যে কি ইতিহাসের ধারা বদলাবে

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



কোচের ভাগ্যে কি ইতিহাসের ধারা বদলাবে

গত দুই এশিয়ান গেমসে যাদের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরেছে সেই উজবেকিস্তানের ম্যাচে ইংলিশ কোচের অভিষেক। তাঁর ভাগ্যে জড়িয়ে কি বাংলাদেশ ফুটবলের ভাগ্য বদলাবে?

ভাগ্য বদল কঠিন। তবে নতুন ইংলিশ কোচ জেমি ডে খুব করে চান ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে, ‘আমি সামনের দিকে তাকিয়ে আছি। কিভাবে উজবেকিস্তানের মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে লড়াই করা যায়, সে নিয়েই আমরা কাজ করেছি।’

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ফুটবলের কোচ হিসেবে জেমি ডের অভিষেক হবে আজ এশিয়ান গেমেসে। গত দুই এশিয়ান গেমসে যাদের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরেছে সেই উজবেকিস্তানের ম্যাচে ইংলিশ কোচের অভিষেক। তাঁর ভাগ্যে জড়িয়ে কি বাংলাদেশ ফুটবলের ভাগ্য বদলাবে?

ভাগ্য বদল কঠিন। তবে নতুন ইংলিশ কোচ জেমি ডে খুব করে চান ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে, ‘আমি সামনের দিকে তাকিয়ে আছি। কিভাবে উজবেকিস্তানের মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে লড়াই করা যায়, সে নিয়েই আমরা কাজ করেছি। তারা (প্রতিপক্ষ) স্বাভাবিকভাবে জয় প্রত্যাশা করবে, তাই আমাদের সেরাটা দিতে হবে। এই ম্যাচ থেকে কিছু পেতে হলে আমাদের সর্বোচ্চ দিয়ে লড়াই করতে হবে।’ তিনি কাজ করেছেন ইংলিশ ফুটবলের পঞ্চম বিভাগের এক দলে। সেখান থেকে এক লাফে তিনি বাংলাদেশ জাতীয় দলে। এই নিয়োগের ভালো-মন্দ নিয়ে অনেক কথা আছে। গত জুনে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে শুরু হয় তাঁর দল গড়ার কাজ। দেশে-বিদেশে কয়েক দফা ট্রেনিং এবং সর্বশেষ কোরিয়ায় গিয়ে তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছে বাংলাদেশ। ম্যাচ তিনটির মধ্যে গুয়াংজু এফসিই শুধু মানসম্মত প্রতিপক্ষ। বাকি দুটো বিশ্ববিদ্যালয় দল, নিচু সারির, তাদের বিপক্ষে জয় নিয়েই বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল ইন্দোনেশিয়া গেছে। গিয়েই পড়েছে বাঘের মুখে। র‍্যাংকিংয়ে ১৯৪তম দলের সামনে সবাই বাঘ। উজেবেকিস্তান তার চেয়েও যেন একটু বেশি, গত দুই এশিয়ান গেমসে তাদের কাছে হেরেছে ৩-০ গোলের ব্যবধানে। সিনিয়র দল এ পর্যন্ত তিন ম্যাচের তিনটিই হেরেছে, ন্যূনতম ব্যবধা ৩-০ গোলের।

সুতরাং উজেবেকিস্তানের প্রত্যাশা থাকবে জয়। তাদেরকে জয় বঞ্চিত করতে হলে বাংলাদেশের সবাইকে মাঠে দিতে হবে সেরাটা। বিশেষভাবে ভালো খেলতে হবে রক্ষণভাগকে। কোচের দাবি, ‘ডিফেন্ডারদের ভুল কমে এসেছে। প্রতি ম্যাচে তারা উন্নতি করেছে, উজবেকিস্তানের বিপক্ষেও সেই উন্নতিটা দেখাতে হবে।’ রক্ষণভাগে খেলবেন রহমত, তপু, বাদশা ও সুশান্ত। সেই রক্ষণকে ছায়া দেওয়ার জন্য থাকবেন দুজন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়া ও আতিকুর রহমান ফাহাদ। এর ওপরে থাকবেন সুফিল-মাশুক ও বিপলু আর ‘নাম্বার নাইন’ সাদ। সত্যি বললে, ওপরে কোনো খেলা নেই বাংলাদেশের। এতগুলো ম্যাচ খেলেও উজেবিকিস্তানের জালে কোনো গোল নেই লাল-সবুজের! সুতরাং অ্যাটাকিং খেলে বড় স্বপ্ন দেখার বাস্তব কোনো সুযোগ নেই। রক্ষণাত্মক খেলার কৌশলই নেবেন জেমি। দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু যেমন বলেছেন, ‘রক্ষণ করা শুধু রক্ষণভাগের কাজ নয়। ওপর থেকেই লাইনে খেলা, বল হারালে নিচে নামা এবং পজিশন নেওয়ার জন্য কিভাবে লড়তে হয় সেগুলোর প্র্যাকটিস হয়েছে এত দিন। প্রতিটি ম্যাচের পর প্র্যাকটিস সেশনে ভুল শুধরে দেওয়া হয়েছে। তাদের কাছ থেকে আমরা নির্ভুল ডিফেন্ডিং আশা করছি।’ এই ফুটবল ও ফুটবলারদের কাছে কত প্রত্যাশাই থাকে, কিন্তু কোনোটিই ঠিকঠাক মেলাতে পারে না।

তাই আজ যে পারবেন, সেটাই বা বলা যায় কী করে? ভোগর শহরের পাকানসারিতে বিকেল ৩টায় মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ-উজবেকিস্তান। ৩৮ বছর বয়সী বাংলাদেশের ইংলিশ কোচের দাবি, ‘উজবেকিস্তান ভালো দল, তাদের সম্পর্কে আমরা অনেক খোঁজ-খবর নিয়েছি। সে অনুযায়ীই আমাদের ম্যাচ ট্যাকটিস হবে, মার্কার থাকবে।’ নিজের অভিষেকটা স্মরণীয় করে রাখতে ইংলিশ কোচ নানাভাবে চেষ্টা করছেন, ‘কোনো কোচই চায় না ম্যাচ হারতে। আমিও চাই, অভিষেক ম্যাচে দুর্দান্ত কিছু করতে। কিভাবে প্রতিপক্ষকে সামলাব তার ওপরই সব নির্ভর করছে।’ শেষ কথা, ওই খেলোয়াড়দেরই খেলতে হবে। তাঁরাই পারেন ইতিহাসের ধারা বদলাতে।



মন্তব্য